Archive for মার্চ, 2014


লিখেছেন: মনির ইউসুফ

ওমরের আদর্শ হচ্ছে স্বাধীনতা। কোন মিসাইল এ আদর্শকে হত্যা করতে পারবে না।” (ওমর তোরিজো)

উত্তরের দানবের সঙ্গে টক্কর দেওয়া খুবই কঠিন,তবু ওমরের আদর্শের জয় হবে।” (গ্রাহামগ্রীন)

Getting-to-Know-the-Generalউপরের উদ্ধৃতি দুটি এমন দু’জন মহান ব্যক্তির যারা দু’জনই নিজের দেশ ও সংস্কৃতিকে রক্ষা করার জন্য একযুগে কাজ করেছিলেন। একজন সরাসরি অস্ত্র ও নিজের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে। অন্যজন সেই অঞ্চলসমূহের জনগণের মুখের ভাষাকে সম্বল করে। পানামার সাবেক দেশপ্রেমিক প্রেসিডেন্ট ওমর তোরিজো, যিনি পরক্রমশালী আমেরিকার বিরুদ্ধে মাত্র ২০ লাখ লোকসংখ্যা নিয়ে একাই যুদ্ধ করেছিলেন। শেষ পর্যন্ত ঘাতক কর্পোরেটোক্রেসির হাতে তাকে প্রাণ দিতে হয়েছিল, আমেরিকার তৈরি সাম্রাজ্যবাদের এই নতুন পলিসি কত যে ভয়ঙ্কর হতে পারে সে ভুক্তভোগী ছাড়া কেউ বুঝতে পারবে না। ইকুয়েডর, এল সালভেদর, ইন্দোনেশিয়া, পানামা, সৌদিআরব, ইরান, ইরাক, লিবিয়া, কলম্বিয়া, কুয়েত, সিরিয়া, ফিলিস্থিন এইসব দেশের জনগণ বুঝতেই পারে নি তারা কি নির্মম নৃশংস ও নব্যঘাতকের শিকার হয়েছেন। তাদের দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ, লোক সম্পদ গ্রাস করার জন্য আমেরিকা এমন কোন সূত্র নেই যা ব্যবহার করে নি। আমেরিকার সঙ্গে যেসব দেশের সরকার কাজ করে নি তাদের পরিণতি হয়েছিল খুবই করুণ। সে করুণ হত্যাকাণ্ডের নির্মম শিকার পানামার দেশপ্রেমিক প্রেসিডেন্ট তোরিজো। আমেরিকার তৈরি ঘাাতক শৃগাল বাহিনীর হাতে বিমান দুর্ঘটনা অত্যন্ত করুণভাবে মৃত্যু হয়েছিল তোরিজোর। আমেরিকা অত্যন্ত কৌশলে তোরিজোকে হত্যা করেছিল। কিন্তু তাঁর আদর্শকে কোনভাবেই হত্যা করতে পারে নি। পানামা জেগে উঠেছিল, তাঁর সঙ্গে জেগে উঠেছিল ল্যাতিন আমেরিকার সমগ্র অঞ্চল। তোরিজো হয়ে উঠেছিল ল্যাতিন আমেরিকার জনগণের একমাত্র লোকনায়ক।
(বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: মেহেদী হাসান

smash_the_patriarchyউপরের শিরোনাম দেখে অনেকেই হয়ত চমকে উঠবেনকিভাবে, কিভাবে এটা সম্ভব!

বলছি, একে একে গুটিকতক

প্রথমেই বলে নেই পুরষতান্ত্রিক সমাজের প্রথা মেনে বিয়ে করাটা আমার কাছে খুবই ন্যাক্কারজনক ও অমানবিক একটা কাজ বলে মনে হয়। কেন মনে হয়? কারন হলবিয়ে হচ্ছে এমন একটি প্রথা যা পুরুষ কর্তৃক নারী শোষণের অনেক বড় হাতিয়ার বা বিস্তৃত একটা ক্ষেত্র এবং আদিম সমাজে নারীর ঐতিহাসিক পরাজয় প্রক্রিয়ার সমান্তরালে এই প্রথার আবির্ভাব যেখানে পুরুষের উত্তরাধিকারকে সুনির্দিষ্ট করার জন্য নারীকে একগামী হওয়ার কড়া নির্দেশ প্রদান করে এবং বিপরীত ক্ষেত্রে পুরুষের জন্য রয়ে যায় সমাজে চালু থাকা নারীর গণিকাবৃত্তি এবং পুরুষের বহুবিবাহের ফলে সামষ্টিক যৌনকাজের বিস্তৃত পরিসর। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অজয় রায়

china-congress-1বর্তমানে চীন বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে। তবে দেশটি ক্রমশ বিশ্ব পুঁজিবাদী ব্যবস্থার সঙ্গে আরও সমন্বিত হচ্ছে। আর চীন যদিও উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে, সেদেশের নিম্ন মজুরির দরুন বিশ্বের বহুজাতিক সংস্থাগুলি দেশটির থেকে বিপুল মুনাফা লুটছে।

স্পষ্টতই ব্যাপক মাত্রায় বিনিয়োগের ও রপ্তানির উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে চীন। আর সেদেশের রপ্তানির দুইতৃতীয়াংশই বিক্রি করা ও জাহাজে তেলা হচ্ছে অচীনা কোম্পানিগুলির সম্পূর্ণ বা আংশিক মালিকানাধীন কারখানার থেকে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অরবিন্দ অনন্য

naxal-saluteঐ দ্যাখ আমার বাড়ি, আমার ঘর

বিস্মিত হইয়ো না!

ঐখানেই আমার ঘর ছিল,বাপ দাদার কবর ছিল,

ঐ সবুজ বনে আমার অধিকার ছিল (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: পাইচিংমং মারমা

CHT-7মুশকিল কোষা গঞ্জে শাফা সাইফুল আদবে নেওয়াজ শাহ কলন্দর শাহ সুফি হযরত মোহাম্মদ সোলায়মান শাহ চিশতী (রঃ ) একজন সুফি সাধক। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় তাঁর মাজার। প্রতি বছর চৈত্র সংক্রান্তির সময় হাজার হাজার মানুষ বাসে, লড়িতে, ট্রাকে করে তাঁর ঔরসে যায়। আমিও একবার গিয়েছিলাম। সেখানে সারারাত থেকেছি। দেখলাম হাজার হাজার মানুষ কেউ শুয়ে কেউ বসে, অনেকে দল বেঁধে কেউ কেউ দলছুট হয়ে, কেউ গাঁজা খেয়ে আর কেউ ভাত খেয়ে ‘হায় সুলেমান, হেই সুলেমান’ করছে। কারো কারোর চোখ নিভু নিভু, যেন একটা ঘোর নিয়ে ঘুরছেতবু মাথা ঝাঁকাতে ঝাঁকাতে তারা সোলেমান শাহের নাম নিচ্ছে দমে দমে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ফারুক আহমেদ

national-flag১৯৭১ সালের ১৬ ডেসেম্বরের আগে এই জনপদের মানুষের লড়াই ছিল বিদেশী লুন্ঠক, শোষকদের বিরূদ্ধে। বিদেশী সাংষ্কৃতিক আধিপত্যের বিরূদ্ধে। লড়াই ছিল নিজস্ব সংষ্কৃতি নির্মাণে নিজস্ব একটি ভুখন্ডের জন্য। ২৪ বছরের লড়াই সংগামের মধ্যদিয়ে ১৯৭১ সালে চূড়ান্ত লড়াইয়ে এই জনপদ থেকে বিদেশীদের শাসনের আবসান ঘটেছিল। মূল্য দিতে হয়েছিল। ত্রিশ লক্ষ মানুষকে জীবন দিতে হয়েছিল। আড়াই লক্ষ নারীকে পাষন্ডিক নির্যাতনের শিকা্র হতে হয়েছিল। অসংখ্য মানুষকে গৃহহারা, সম্পদ হারা হতে হয়েছিল। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আনোয়ার হোসাইন ফার্মার

accident-Ctgবাস কোম্পানিগুলোর রমরমা ব্যবসার খবর এদেশে কারো অজানা নয়! হানিফ এন্টার প্রাইজ, শ্যামলি এন্টার প্রাইজ, সৌদিয়া এন্টার প্রাইজ, সোহাগ পরিবহণ নামধারী যাত্রীসেবা প্রধানকারী কোম্পানীগুলো বরাবরই এদেশে যাত্রী পরিবহণের জন্য প্রসিদ্ধ! এক্ষেত্রে কোম্পানিগুলো শুধুমাত্র ঢাকাচট্টগ্রাম রুটে প্রতিবছর মুনাফা করে থাকে অন্তত পনেরশো কোটি টাকা! হিসেব করলে দেখা যায়, ঢাকা টু চট্টগ্রাম রুটে কথিত বিজনেস ক্লাস ও এক্সিকিউটিভ ক্লাসের বাস চলাচল করে অন্তত দুই হাজার। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আহমদ জসিম

bnp-logoকার্য্যত বিএনপি এখন কোথাও নেই। নেই ক্ষমতায়,নেই বিরোধী দলে। নেই আন্দোলনের মাঠে, নেই সংলাপের টেবিলে। নেই মানে দলটার অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে ব্যাপারটা মোটেও এমন নয়। বরং আজও সরকারের শক্তিশালী প্রতিপক্ষের নাম বিএনপি। আজও কোটি কোটি নেতা, কর্মী, সমর্থক নিয়ে সমাজে বিরাজমান রাজনৈতিক শক্তির নাম বিএনপি। যে দলের এত শক্তি এতবড় কর্মী বাহিনী তবে তার এমন করুণ হাল কেন হলো? (বিস্তারিত…)


জন এম. কোয়েইটজি

অনুবাদ: বখতিয়ার আহমেদ

m-j-coetzeeনাথানিয়েল হ্যাথর্ন তার ‘স্কারলেট লেটার’এ লিখেছিলেন, “একটি উপনিবেশ যখন কোথাও শেকড় গাড়ে, নিতান্তই বাস্তব প্রয়োজনে, একেবারে শুরুতেই যে পদক্ষেপটি নেয় তা হল অধিকৃত ভূমির একটি অংশে গোরস্থান এবং আরেকটি অংশে কারাগার স্থাপন”। উপনিবেশ হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকাও এর ব্যতিক্রম নয়, দেশটির সারা মুখ জুড়ে গুটি বসন্তের দাগের মত ছড়িয়ে আছে অসংখ্য কারাগার, হ্যাথর্ন যাদের নাম দিয়েছিলেন “সভ্য সমাজের কালো ফুল”। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আনোয়ার হোসাইন ফার্মার

জিন কি?

monsantoপৃথিবিতে ব্যাকটেরিয়া থেকে শুরু করে মানুষ পর্যন্ত যত জীবন আছে প্রত্যেকেরই দেহকোষে ডিএনএ নামক রাসায়নিক পদার্থ আছে। অন্যভাবে বললে, ডিএনএ ছাড়া কোন জীব বা জীবনের অস্তিত্ব নেই। যে কোন জীবের জন্মগত সকল বৈশিষ্ট্য এই ডিএনএ দ্বারাই নির্দিষ্ট হয়। যেমন ধরা যাক, একটি আম গাছ, তার সমস্ত দৈহিক বৈশিষ্ট্য, পাতার আকার, ফলের আকার, কাঠের ঘনত্ব, ফলের মিষ্টতা এর প্রত্যেকটি নির্দিষ্ট হয় এক বা একাধিক নির্দিষ্ট প্রোটিনের ওপর! এক্ষেত্রে একএকটি নির্দিষ্ট প্রোটিন উৎপন্ন হবে কিনা, হলে কতটা পরিমানে হবে তা নির্ভর করে সুত্রের আকারের ডিএনএ অনুর এক একটি অংশের ওপর। (বিস্তারিত…)