Archive for মার্চ, 2012


লিখেছেন: অবিনাশ রায়

সুখ হারা কারো দুখদূষিত হৃদয় ধুয়ে, দিয়েছে বিশ্ব ভিজায়ে,

শুধু শব কবরের পাশে শুকনো বালি দেখে, দিয়েছিলাম উড়ায়ে।।

হয়তো বালি কণা কারো চোখের যাতনা হয়ে, ক’ফোটা জল ঝড়িয়ে

ধুলি মাখা এপিটাফের গা গড়িয়ে, গোড়ায় জন্মে থাকা গুল্মের মূলে

চলে গেল; শব সারে বেড়ে ওঠা মৃতজীবী, মৃতের নতুন প্রাণ।

তার আহ্বান; ফিরে আসা প্রিয় হারা কারো ভালোবাসা প্রদান।

তার আহ্বান; ক্ষুদ্র বৃক্ষকে দুঃখ দিতে ছোট কীট পতঙ্গের খাদ্য ভাণ্ডার তার সবুজ দেহ,

খুঁটে খুঁটে খাদ্য সংগ্রহে ব্যস্ত পতঙ্গের দল,

পার্থিবের অপার বাস্তবের বুকে বিচরণ কালে যেমন, খুঁটে খুঁটে খেয়েছে মন ঘুন পোঁকা,

বোকার মত শব ছদ্মবেশে কবরে আশ্রয় তার,

তবুও মেলেনি নিরব নির্ঝরনিস্তার, (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: প্রীতম অংকুশ

একটি গোলাপ ফুল নিবো।

টকটকে লাল, রক্তরাঙা গোলাপ।

কি হবে?

অন্তরের তীব্র ক্ষরণে ভালোবাসার বহি:প্রকাশ হবে।

পাপড়িতে রবে কোমলতার পরশ।

বেদনার গাঢ় নীলাভ ছায়া পড়বে আমার আকাশে,

আর মেঘে মেঘে বাজ খেলে যাবে সেই ভালোবাসা

যা আমাকে দিয়েছ।

শুধু আমায়?

না। আমাদের দিয়েছো। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: খোন্দকার সোহেল

স্বাধীনতা আমি তোমার দুয়ারে

আজও ঘুরেফেরা এক পথচারী।

হাত দুটো আজও আমার হয়ে উঠেনি,

জিহ্বাটাও রয়ে গেছে পরাধীন।

ভাবনাগুলো আজও হৃদয় বন্দি,

থরকম্পেই থাকি বাকহীন।

স্বাধীনতা আজও তুমি

ফেলানী হয়ে ঝোল তারের কাটায়,

রাষ্ট্রীয় কুকুরের গুলিতে গুম হয়ে যাও,

রাজপথে, ডোবা আর নালানর্দমায়। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সৌরভ ব্যানার্জী

আমি নিজেকে যতটা ভালবাসি ততটাই তোমাকে

তুমি নেই পাশে, নেই কাছে, এই মূহুর্তে

শুধু প্রতিটি নিঃ‍শ্বাস জানায় তোমার উপস্থিতি

প্রতিটা মূহুর্ত ঠেলে দেয় আমাকে তোমার কাছে, আরও কাছে

মনের কত কাছে তবু দেহ থেকে কত দূরে

কত চেনা তবু কত অপরিচিত, অজানা, শব্দাতীত

তবে মনে মনে জানি একদিন দেখা হবে হঠাৎ, অজান্তে

আর তুমি দেবে আমায় মুক্তি, নবজাগরণ।

প্রথম মিলনের নজরাণা। (বিস্তারিত…)


লালফৌজ কদম কদম হাঁটছে

কোন প্রত্যুত্তর আসেনি কারো থেকে

কোন ক্রন্দন আমি শুনিনি

কোন প্রতিক্রিয়া আমাকে

জাগায়নিএ হয় না

ঘুমঘুম রৌদ্রছায়ার মতো

আমি জেগেছি এবং দেখেছি

বিশ্বাস ঘাতক কত প্রকার

আমি সচেষ্ট থেকেছি

প্রতিবাদের ভাষা যেদিকে গড়ায়

আমি থেমে থাকিনি

নিশ্চেষ্টতা আমি মানিনি

বারবার আক্রমণ প্রতিরোধের সশব্দে

আমি জেগেছি

পলাশের গায়ে রক্তরেণু আমি ছুঁয়েছি

নিলোৎপল রক্তশিরায় ঢেউ তুলতে

আমি দেখেছি (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাকারিয়া হোসাইন অনিমেষ

পুঁজিবাদ তুমি কি ভেবেছো

আমি হিসাব নেবো না ?

আমার শ্রম চুরি করে

উর্দ্বৃত্ত মূল্যের যে পাহাড় তুমি গড়েছো

তার হিসাব কি আমি নেবো না ?

আমার মৃত শিশুর কঙকালসার শরীর কি আমি ভলে গেছি ?

আমার স্ত্রীর শুকনো স্তন কি আমি দেখিনি ?

আমার পেটে বাধা প্রত্যেকটি পাথরের হিসাব আমি নেবো ।

আমি জানি তোমার আছে বারুদ, বোমা, ন্যাটো, জাতিসংঘ

আর বহুজাতিক জল্লাদ।

তবু তোমার কত ভয়

আমাকে ঠেকানোর জন্য কত আয়োজন !! (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অবিনাশ রায়

পতাকাটি উড়ছিল,

ছাঁদের উপর

ছেঁড়া তবুও অবিরাম উড়ছিল;

উড়ছিল বাতাসের তাড়নে,

সর্বোচ্চে ঠেলে দেয়ার কারণে।

দূষিত বাতাস, কালো আকাশ,

কলঙ্কিত সূর্য, কিরণে বজ্র,

ক্রমাগত আঘাত হানে, বানে ভাসায়, তানে ফাঁটায়;

লালসবুজের নির্জীব নিশান,

নিরব ধৈর্য্যে সহে সে বাণ।

পতাকা, দুঃখে চিরে যায় অন্তর;

দেখে, জাতের নয়, জাতির দশা। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শাতিল আহমেদ

ঈশ্বরের ঋষ্যপাল ছোটে পলাতকা গোধূলি

সিঁদুর কপালে দাবড়িয়ে নিয়ে

ডোরাকাটা সুন্দর, সুন্দরবন!

আর কতক মনুষ্যপাল

মানবারণ্যে হ্রেষাধ্বনি তোলে

জিন্দাবাদ জিন্দাবাদ

মৃতদের নামে কেটে যায়

এভিন্যুর অলৌকিক সন্ধ্যাটুকু। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: প্রীতম অংকুশ

কলমের কালি শেষ।

মনের কালিমা দিয়ে কালি তৈরী করবো।

অনেকদিনের জমে যাওয়া ঝুল দিয়ে বেশ জুতসই কালি হবে।

যদি তাতে খানিকটা প্রায়শ্চিত্ত হয় …….!

বেশি কিছু না, শুধু একটু শব্দজট খোলার জন্য,

মানসিক স্বস্তিতে ভেলা ভাসিয়ে স্বপ্ন ছোঁব বলে।

সাহিত্যশিল্প আর শব্দের মায়াজালে আচ্ছন্ন থেকেছি বহুদিন।

পরিপাটি চুলে তেলের যত্ন আর চিরুনির সদ্ব্যবহারে লিপ্ত থেকেছি নিয়ত।

আজ সময় হলো বলে …..

এক টুকরো হাড় নিয়ে হুটোপুটিতে রত শিশুদের আধোবোলে গাল দেয়ার

আর আমার প্রায়শ্চিত্তের! (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আলবিরুনী প্রমিথ

আমি দুঃখিত নই, স্বাধীনতা দিবসের

শুভেচ্ছা আপনাদের জানাবোনা বলে,

আমি দেখি আমার ঘরের জানালার পাশে

এক চিলতে জায়গা নেই, আকাশ নেই।

আমি আকাশ দেখতে চেয়েছিলাম, পারিনি

ডেভেলপড সোসাইটিতে আকাশ থাকেনা

থাকে সুউচ্চ বিল্ডিং, আকাশ তাই নেই।

আমি ব্যাথিত নই, স্বাধীনতার শুভেচ্ছা

আপনাদের জানাতে আগ্রহী না বলে,

এই রাষ্ট্র কেবল মুসলমানদের বলে স্বীকৃত

সংবিধান আর কারো জন্য কিছু রাখেনি।

এই কবিতাটি যখন পড়ছেন জানবেন,

হিন্দু বলে বিসিএসে কেউ আটকে যাচ্ছে

আদিবাসী কিশোরী ধর্ষিত হচ্ছে, দিনের আলোতে। (বিস্তারিত…)