Archive for নভেম্বর, 2012

গার্মেন্টস শ্রমিকদের মৃত্যু – নানা কথা নানা ব্যথা

Posted: নভেম্বর 29, 2012 in আন্তর্জাতিক, দেশ, মন্তব্য প্রতিবেদন
ট্যাগসমূহ:, , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,

লিখেছেন: বন্ধুবাংলা

নিঃসন্দেহে শ্রমিক কর্মচারীদের ঐক্য পরিষদের বানারে স্কপ’ ছিল স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম শক্তি। বিভিন্ন ইস্যুতে স্কপে ও বিভিন্ন ট্রেড ইউনিয়নে বামপন্থীরা নীতি নির্ধারকের ভূমিকায় ছিল। কিন্তু তাঁদের আন্দোলনের ফসল ঘরে তুলে পর্যায়ক্রমে ভোগ করেছিল বুর্জোয়া রাজনৈতিক শক্তির দলগুলো। লীগ ও বিএনপি, জামাত এমনকি স্বৈরাচার এরশাদও আছে এই ভোগের তালিকায়। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের পর এভাবেই বামপন্থীরা বুর্জোয়া রাজনৈতিক শক্তির ক্ষমতায়ণ , এবং তাঁদের ক্ষমতা সুসংহত ও সুসঙ্গত করতে ব্যবহৃত হয়েছিল এবং এখনো হচ্ছে। এক্ষেত্রে তাঁদের অর্জন যেমন শূন্য, তেমনি শ্রমিকদের অর্জনও শূন্য।

৯০ এর পর বামপন্থীরা আর কোন শ্রমিক আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। যদিও স্বৈরাচারের ঢালাও বেসরকারিকরণ প্রক্রিয়া ক্ষমতাসীন বুর্জোয়া রাজনৈতিক শক্তিগুলো আরও পূর্ণমাত্রায় চালু রেখেছিল। মিল কারখানা বন্ধ করে পানির দামে বিক্রি করা হলো। ঢালাও বেসরকারিকরণ এজেন্ডার সাথে বরাবরেরে মত অন্যান্য এজেন্ডা যেমন, শ্রম আইনের সংস্কার, বিভিন্ন খাতের শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধি, গার্মেন্টসে ট্রেড ইউনিয়ন চালু সহ নানা এজেন্ডা ছিল এবং কিছু এদিকওদিক বাদে এখনো সেই এজেন্ডা সমূহের বাস্তব অবস্থা বিরাজমান। (বিস্তারিত…)


প্রেস বিজ্ঞপ্তি

প্রগতির পরিব্রাজক দল

কেন্দ্রীয় কার্যালয়: ডাকসু ভবন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

মোবাইল: ০১৯১৩৩০৫২১৪, ইমেইল: propod_ppd@yahoo.com

—————————————————————————–

২৮ নভেম্বর ২০১২

আশুলিয়ায় আগুনে পুড়িয়ে শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদের ১১টি সাংস্কৃতিক ও ছাত্র সংগঠনের বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল

নিহতদের ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ও মালিককে গ্রেপ্তারের দাবি

গত ২৪ নভেম্বর আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তাজরিন ফ্যাশনে অগ্নিকান্ডে শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদে ১১টি প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক ও ছাত্র সংগঠনের নেতৃত্বে ছাত্রবুদ্ধিজীবীসংস্কৃতিকর্মীরা আজ ২৮ নভেম্বর নিশ্চিন্তপুরে তাজরিন ফ্যাশনের পাশে বিক্ষোভ সমাবেশ আয়োজন করে।

জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চের যুগ্ম আহবায়ক এহতেশাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং বিপ্লবী ছাত্রযুব আন্দোলনের আহবায়ক তৌহিদুল ইসলামের পরিচালনায় এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মনজুরুল হক

বাংলাদেশে গার্মেন্ট ‘শিল্পে’র গোড়াপত্তন প্রায় বত্রিশ বছর আগে। এই বত্রিশ বছরে গার্মেন্ট কারখানার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার। প্রায় কুড়ি থেকে ত্রিশ লাখ শ্রমিক এই বিশাল সেক্টরে শ্রম দিচ্ছে। সব সরকারই বেশ ফুলিয়েফাঁপিয়ে এই সেক্টরের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের খতিয়ান দিয়ে কৃতিত্ব জাহির করেছে এবং করছে। পরিসংখ্যান দিয়ে বিশ্বের অন্য কোনো দেশ চললেও বাংলাদেশ চলে না। এই পোশাক শিল্পের আয় দেশের জাতীয় বাজেটের ‘কত অংশ, দেশের কী কী উপকার করছে, দেশের অর্থনীতিতে কতো পার্সেন্ট অবদান রাখছে ব্যাপারগুলো অর্থহীন। ওটা বানরের পিঠা ভাগ করার মতো চালাকি বিশেষ। এতো বড়ো একটা সেক্টরে শ্রমিক অসন্তোষ থাকবে, মারামারিকাটাকাটি থাকবে, চুরিচামারি থাকবে, ধাপ্পাবাজিফেরেপবাজি থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। এই গার্মেন্টস কারখানাগুলোতে কী হয়নি? শ্রমিকের রক্ত চুষে নেওয়া, নারী শ্রমিককে ভোগ করা, ধর্ষণ করা, খুন করা, পুড়িয়ে মারা, পায়ে দলে মারা, পিষে মারা, ছাঁটাই করে মারা, জেলে ভরা, হাতপা গুঁড়ো করে দেওয়া, এসিড দিয়ে ঝলসে দেওয়া, ধর্ষণ করতে করতে মেরে ফেলা কী হয়নি? এবং এসবই হয়েছে ওই তথাকথিত বৈদেশিক মুদ্রা আর তথাকথিত অর্থনীতির চাকা চরার ধাপ্পা দিয়ে। (বিস্তারিত…)

গার্মেন্টসে অগ্নিকাণ্ড ও ফ্লাইওভার ধ্বসের ঘটনায় কয়েকটি প্রগতিশীল সংগঠনের যৌথ বিবৃতি

Posted: নভেম্বর 27, 2012 in দেশ
ট্যাগসমূহ:, , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,

যৌথ বিবৃতি

গত ২৪ নভেম্বর আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তোবা গ্রুপের তাজরিন ফ্যাশনের কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে শত শত শ্রমিক নিহত হয়েছে। সরকার ও গণমাধ্যমগুলো ১৩০জন শ্রমিক নিহত হয়েছে জানালেও স্থানীয় শ্রমিকদের দাবি অন্তত দেড় হাজার শ্রমিক নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে, আজই উক্ত কারখানার মালিক কর্ণফুলি ইন্সিওরেন্স থেকে ক্ষতিপূরণের চেক গ্রহণ করতে যাচ্ছেন। এই ঘটনার মাধ্যমে এটাই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে এসব কোন দুর্ঘটনা নয়। বরং, মালিক শ্রেণীর পরিকল্পিত নৃশংস শ্রমিক গণহত্যা। আর এতে ইন্ধন দিয়ে যাচ্ছে মালিক সমিতি বিজিএমইএসহ রাষ্ট্র ও সরকার। (বিস্তারিত…)


অনুবাদ: বন্ধুবাংলা

(মূল লেখাটি ১৯ নভেম্বর ২০১২ তারিখে কাউন্টার পাঞ্চে প্রকাশিত হয়।)

সাম্প্রতিক ইসরাইলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে গাজায় যে বিক্ষোভআন্দোলন ফুঁসে উঠছে, ইসরাইল এই আন্দোলনের টুটি চেপে ধরার জন্য হামাসের সামরিক প্রধান আহমেদ জাবারিকে গুপ্ত হত্যা করে। হামাস দীর্ঘমেয়াদী যুদ্ধ বিরতিতে আন্তরিক থাকা সত্ত্বেও হামাস এই ঘটনায় ইসরাইলে শতাধিক রকেট হামলা চালায় যার কিছু তেলআবিবের নিকটবর্তী স্থানে আঘাত হানে। ফলে বিস্মিত হওয়ার কিছু নাই যে, ইসরাইল ব্যাপক সংঘর্ষের জন্য ভীত হয়ে পড়ে এবং গাজা দখল করে রকেট হামলার ভয়কে দূর করতে চাচ্ছে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: দেবাশীষ ধর

আমার প্রার্থনার স্থান পুড়লো

পবিত্র দেয়াল হতে ঝলসানো

ঘাম কান্না গড়গড়িয়ে ঝরছে

দাহের ভস্ম বিধ্বস্থ চেহারায়

বহুদিনকার সাংসারিক অর্জনগুলো

.

আমি যে জন্মেই হয়েছি জাতপাপী। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মেহেদী হাসান

এক

সমাজে অবস্থানগত দিক থেকে বাংলাদেশে দুই ধরনের যৌনকর্মী আছে। একদল বাস করে সমাজের বাইরে আরেক দলের অবস্থান আবশ্যিকভাবে সমাজের অভ্যন্তরেই। সমাজের বাইরে যারা বাস করে তাদের মধ্যে আছে আবার তিনটি গ্রুপ। একটি গ্রুপ বিভিন্ন জেলা শহরে অবস্থিত পতিতা পল্লীতে বসবাস করে এবং তাদের ব্যবসাও সেখানেই। পতিতালয়ে বসবাসকারী যৌনকর্মীরা পুরোপুরি পেশাদার, মানে তাদের জীবন জীবিকা সম্পূর্ণভাবেই যৌনকর্মের উপর নির্ভর করে। সমাজের ভেতরে তাদের কোনধরনের অবস্থান যেমন নেই, তেমনি যৌনকর্মী বাদে তাদের আর কোন পরিচয়ও থাকেনা এদের নিজস্বতা বলতেও প্রায় কিছুই থাকেনা। কারণ এদের সবাইকে পল্লীর সর্দারনীর কাছে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। এদের শরীরের মালিক ঐ সর্দারনী, সে তাদের শরীরকে খদ্দেরদের কাছে ভাড়া খাটায়। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আবিদুল ইসলাম

সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া একজন ইহুদীবর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যের গাজা ইস্যুতে ‘সেক্যুলার মুক্তমনা’দের তেমন কোনো নড়াচড়া দেখা যাচ্ছে না। মাত্র কিছুদিন আগেও যারা মালালা আর নাফিসকে নিয়ে অনলাইন জগৎ তোলপাড় করে তুলেছিলেন; তালেবান, আলকায়েদা, লাদেন, হিজবুল্লা থেকে শুরু করে বাংলাদেশের জামাতে ইসলামী পর্যন্ত কোনো কিছুই আলোচনার টেবিল থেকে বাদ দেন নাই, তারা আজকে ঘরের মধ্যে বোধহয় সুখে ‘নিন্দ পাড়তেছেন’; ভাবখানা এমন যতো যা কিছুই হোক, এর সাথে তো আর তালেবান কিংবা আল কায়েদার কোনো সংযোগ নাই। সুতরাং এই ইস্যু নিয়ে আলোচনার কোনো মানে হয় না। এক বিখ্যাত বিবর্তনবাদী ‘পণ্ডিত’ বিভিন্ন তথ্যপ্রমাণ সহকারে ধর্মীয় জঙ্গিসন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ডের পেছনে ক্রিয়াশীল জিনগত বৈশিষ্ট্যের তত্ত্ব হাজির করেছিলেন কিছুদিন আগে, তাকেও বর্তমান পরিস্থিতি বিশ্লেষণে এ ধরনের কিছু নিয়ে এগিয়ে আসতে দেখা যাচ্ছে না। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মেহেদী হাসান

চতুর্দিকে শক্ত পাথরের মজবুত দেয়াল

মাঝখানে কিছু খসখসে বস্ত্রহীন জমিন।

এরই মাঝে ঘুরে ঘুরে চলা ফেরা

একই পথরেখায় পরপর পায়ের ছাপ,

ঘুরছি, ঘুরছে, ঘুরছো পরস্পর অনতিক্রান্ত।

মাথার সামান্য উপরে টাইলসের ছাদ

লাফঝাপ মাথায় দারুন আঘাত;

বিকলাঙ্গ, কখনো বা মৃত্যু অবধারিত। (বিস্তারিত…)

তাহের হত্যা, ৭ই নভেম্বর :: অসমাপ্ত বিপ্লব

Posted: নভেম্বর 6, 2012 in দেশ, মতাদর্শ
ট্যাগসমূহ:, , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,

লিখেছেন: শাহেরীন আরাফাত

কর্নেল আবু তাহের

কর্নেল আবু তাহের

৭ই নভেম্বর, বাংলার ইতিহাসের এক অনন্য দিন। কারো মতে ১৯৭৫ সালের ৭ই নভেম্বর ইতিহাসের এক কালো অধ্যায়ের সূচনা, আবার কারো মতে তা বিপ্লব ও সংহতি দিবস। বিএনপি’র পক্ষ থেকে উল্লেখ করা হয়, এই দিনে সিপাহিজনতার উত্থানের মধ্য দিয়ে একটি বিপ্লব সংঘটিত হয়েছিল, ফলে দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরে আসে এবং সার্বভৌমত্বস্বাধীনতা রক্ষা পায়। ৭ নভেম্বর বিএনপি জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস হিসেবে পালন করলেও এই বিপ্লব সংঘটনের অপরাধেই মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার কর্নেল আবু তাহের বীর উত্তম ও তাঁর রাজনৈতিক দল জাসদের নেতৃবৃন্দকে এক প্রহসনের বিচারের মুখোমুখি করা হয়, কর্নেল তাহেরকে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করা হয়।

কিন্তু প্রকৃতপক্ষে, ঐ দিনের ঘটনাক্রম ছিল পাকিস্তান আমল বা বাংলাদেশ রাষ্ট্রে ঘটে যাওয়া বুর্জোয়া রাজনৈতিক টানাপোড়েন থেকে একদমই ভিন্ন। সেদিন সমাজতন্ত্রের আদর্শে উদ্বুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে জড়িত সেনা সদস্যরা একটি ভিন্ন লক্ষ্যে এগিয়ে আসে। বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্মের পর সাধারণ মানুষের চরম দুর্ভোগ, চাটুকার ঘেরা তৎকালীন সরকার, রাষ্ট্রদ্রোহীতার দায়ে জাসদের (জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল) নিষিদ্ধকরণ ও দমন নিপীড়ণের স্বার্থে দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীসমর্থকদের হত্যা এবং মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে কতগুলো অভ্যুত্থান আর রক্তপাতের বিরুদ্ধে ছিল তাদের তীব্র ঘৃণা; আর এরই ফলশ্রুতিতে জাতীয় জীবনে পরিপূর্ণ মুক্তির লক্ষ্যে তাদের এই প্রচেষ্টা। এখানে বলে রাখা ভাল যে, এখনকার শোষকের ভাগীদার জাসদ আর তৎকালীন জাসদ’কে এক করাটা পুরোদস্তুর বোকামী হবে। তবে কর্নেল তাহেরের কর্মকাণ্ডের পর্যালোচনা করার ক্ষেত্রে দলটির মূল্যায়ণ অতীব জরুরী, যা আমরা আলোচনার পরের অংশে করব। (বিস্তারিত…)