Archive for এপ্রিল, 2013


লিখেছেন: মাসুদ রানা

ইতিহাসের এপ্রিল থিসস

সর্বহারার প্রতীক...লেনিন তাঁর বিখ্যাত ‘এপ্রিল থিসিস’ লিখেছিলেন ১৯১৭ সালের এপ্রিলে। সুইৎজারল্যাণ্ডের নির্বাসন থেকে ৩ তারিখে পেত্রোগ্রাদে ফিরে এসে তিনি ৭ তারিখে লিখেছিলেন মোট ১০টি টীকার একটি থিসিস। তিনি তাঁর দল অল রাশান সৌশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক লেবার পার্টির গৃহীত রাজনৈতিক লাইনকে প্রত্যাখ্যান করেছিলেন এপ্রিল থিসিসে। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: প্রশান্ত মাহমুদ

savar-disaster-12আবারো লাশের মিছিল। গত ২৪ নভেম্বর তাজরীন গার্মেন্টসে শত শত শ্রমিক পুড়ে অঙ্গার হওয়ার ঠিক ৫ মাসের মাথায় গত ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পের ইতিহাসে ভয়াবহতম ঘটনায় ভবন ধ্বসে পড়ে জীবন্ত কবর হলেন সাভারের রানা প্লাজার পাঁচটি গার্মেন্টেসের হাজারো শ্রমিক। এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা লাশের সংখ্যা ৩৯৮। অবিরাম, অবিশ্রান্ত উঠে আসছে লাশ। জানিনা, এই লেখা শেষ করতে করতে এই লাশের সংখ্যা কততে গিয়ে ঠেকবে। (বিস্তারিত…)


ছবি

০৬.

art-1-পোষ্টারের ছবিটা বহুবার দেখেছি তোমার ঘরে

অমন শক্ত ফ্রেমে ছবিটা আটকালে কেনো !

প্রশ্নটা ছূঁড়ে দিয়ে হাত দিয়ে ছুঁলে ছবিটা

জোনাকীর মিহিন আলো ছড়িয়ে পড়লো তোমার স্পর্শে

তুমি আমার দিকে তাকালে, যেনো

হাজার প্রশ্নে ফুটেছে বিস্ময়(বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আবিদুল ইসলাম

savar-disaster-15গত ২৪ এপ্রিল, বুধবার বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষ, বিশেষত গার্মেন্টস সেক্টরে কর্মরত শ্রমিকদের জন্য এক ঘোরতর বিপর্যয়ের দিন। সাভারের বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় ‘রানা প্লাজা’ নামে এক বহুতল ভবন দৃশ্যমান কোনো কারণ ছাড়াই হঠাৎ ধসে পড়ে। এই ভবনে থাকা পাঁচটি গার্মেন্টসের কয়েক হাজার শ্রমিক এর ধ্বংসস্তুপের মধ্যে চাপা পড়েন। সেখান থেকে এখন পর্যন্ত আড়াই হাজারের অধিক শ্রমিককে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ইরফানুর রহমান

(সাভারের রানা প্লাজা গণহত্যার শহিদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে)

 

worker-6তাঁরা কাজ করছিলেন।

হঠাৎ তাঁদের মাথার ওপর হুড়মুড় করে ভেঙে পড়লো, আকাশ নয়, মৃত্যু।

বালির মত। পাথরের মত। ইট রড সিমেন্টের মত। (বিস্তারিত…)


revolutionary-force-2বিদ্রোহ হোক

(কবি শেখ বাতেন বন্ধু বরেষু)

 বিদ্রোহ হোক চলতে ফিরতে চলায়

বিদ্রোহ হোক দেখায় শেখায় বলায়

বিদ্রোহ হোক বীজফশলের বাড়ায়

বিদ্রোহ হোক মনের সকল ধারায় (বিস্তারিত…)


gonomancha-banner-2

এপ্রিল ২৬, ২০১৩

আজ, শুক্রবার, এপ্রিল ২৬, ২০১৩, দুপুর ৪ টায় জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে সর্বসম্মতিক্রমে দুই বছরের জন্য সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটি এবং নির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়।কমিটি গঠন শেষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে একটি বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। (বিস্তারিত…)


gonomancha-banner-2

২৪ এপ্রিল ২০১৩

সাভারে ভবন ধ্বসে গণহত্যার ঘটনায় ভবন মালিক, গার্মেন্টস মালিক, ভবন অনুমোদনকারী পৌর কর্তৃপক্ষসহ দায়ীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও বিচার করতে হবে

প্রত্যেক নিহতের পরিবারের জন্য ২০ লক্ষ এবং গুরুতর আহতদের জন্য ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতি পূরণ দিতে হবে

 

আজ ২৪ এপ্রিল সাভারের রানা প্লাজা নামের একটি ৮ তলা ভবন ধ্বসে শতসহস্র শ্রমিক হতাহতের ঘটনায় জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করছে। এ ঘটনা আবারো স্পষ্ট করেছে যে মালিকের বেপরোয়া মুনাফার আকাঙ্খার কাছে অকাতরে বলি হচ্ছেন দেশের নিরীহ শ্রমিক ও জনগণ। এবং জনগণের নিরাপত্তার প্রতি রাষ্ট্রের উদাসীনতাই শত শত মানুষের এ নির্মম মৃত্যুর জন্য দায়ী। সুতরাং এটি কোন দুর্ঘটনা নয় । বরং রাষ্ট্রসরকার ও মালিক শ্রেণী দ্বারা সংঘটিত নৃশংস শ্রমিক গণহত্যা। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন:আবিদুল ইসলাম

ধর্মভিত্তিক রাজনীতির স্বরূপ

বাংলাদেশের ইসলাম ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলো থেকে দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠার ডাক দেয়া হয় মাঝে মধ্যেই। হেফাজতে ইসলাম নিজেদের অরাজনৈতিক দল হিসেবে দাবি করলেও তাদের কর্মসূচির রাজনৈতিক চরিত্রও চোখে পড়ার মতো। শতকরা ৯৫ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত দেশে আজ “ইসলাম বিপন্ন” এমন শ্লোগান হেফাজতে ইসলামের লোকজনের পক্ষ থেকে উত্থিত হচ্ছে, যদিও এই ভূখণ্ডে এ আওয়াজ নতুন কিছু নয়। পাকিস্তান আমল থেকেই জনগণের যেকোনো গণতান্ত্রিক আন্দোলনসংগ্রামের সময় শাসক গোষ্ঠীর পক্ষ হতে এ আওয়াজ তোলা হতো। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন সহ অধিকাংশ সময়েই গণতান্ত্রিক দাবিদাওয়া আদায়ের সংগ্রামে জনগণ সংগঠিত হলেই পাকিস্তানি শাসকদের পক্ষ হতে ‘ইসলাম গেল’ চিৎকার ওঠানো হতো। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন:আবিদুল ইসলাম

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রসঙ্গ ও শাহবাগের আন্দোলন

বর্তমানে যে ইস্যুটি নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে তাহলো ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় হানাদার বাহিনীর সহযোগী তথা রাজাকার, আলবদর, আলশামসের সদস্য হিসেবে যারা বিভিন্ন প্রকার অপরাধে লিপ্ত ছিল তাদের বিচার প্রসঙ্গ। বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটসরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসে কতিপয় যুদ্ধাপরাধীর বিচারের জন্য মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের বিষয়ক এক ট্রাইবুনাল গঠন করে। এই ট্রাইবুনাল থেকে প্রথম রায় দেয়া হয় গত ২১ জানুয়ারি বাচ্চু রাজাকার ওরফে আবুল কালাম আজাদের। পলাতক এই যুদ্ধাপরাধীকে প্রদান করা হয় সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। (বিস্তারিত…)