Archive for মে, 2015


লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

fire-11সময় কত ভাবতে গিয়ে

দিন চলে যায়, আঁধার নামে

ভূবনগ্রামে আগুন তখন একলা রাজা,

.

পুরস্কারে নুইয়ে মাথা

শিল্পী পেলেন নতুন বীক্ষা

ঝোলায় ভিক্ষা, উল্লসিত দাসের বাজার। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: বেনামি সমাদ্দার

human-trafficking-121প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন যারা সমুদ্রে ভাসছে সমুদ্র পথে বিদেশে যেতে গিয়ে থাইল্যান্ডে বা মালয়েশিয়ার সমুদ্রপোকূলে কেঁদে বুক ভাসাচ্ছে; তারা দেশের বদনাম বয়ে আনছে। মানব পাচারকারীদের মতো তারাও অপরাধী। অর্থাৎ দেশে যত অনাচারই হোক, যত নিরাপত্তাহীনতাই থাকুক, না খেয়ে কাজ না পেয়ে মরে গেলেও কোনো প্রকারে দেশ ছেড়ে যাওয়া যাবে না। কেবল যাওয়া যাবে সরকার যখন দাস পাচার করবে তখন। সেটাও এখন বন্ধ। দেশে জনসংখ্যা এখন আঠার কোটির ঘরে। বেশিরভাগই দরিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। বিদ্যালয়ে পড়তে পারে না। হাসপাতালে চিকিৎসা পায় না। খাবারদাবার সংগ্রহের মত কাজ নাই। অর্থাৎ শিক্ষা এখন একশ্রেণীর ব্যবসা। এই শিক্ষা ব্যবসার ছাড়পত্র কিন্তু সরকারই দিয়েছে। অমর্ত্য সেন তার গ্রন্থ ‘ভারত: উন্নয়ন ও বঞ্চনা’তে লিখেছেন, জাতীয়ভাবে তথা সরকারীভাবে বন্টন না হলে কখনোই শিক্ষার বা চিকিৎসার সমবন্টন সম্ভব না। সমবন্টন শুধু মুখের কথা যেমন মুখের কথা অনেক কিছুই। চিকিৎসাও একধরনের ব্যবসা। এ এমন এক ব্যবসা। মনে হতে পারে জীবনের চেয়ে মৃত্যুই শ্রেয়। একটা আধুনিক সরঞ্জামাদি থাকা হাসপাতালে ঢুকলে বেরিয়ে আসার আর কোনো উপায় থাকে না। সবই পরীক্ষানিরীক্ষা করা যায়; কিন্তু এরপর নিজের বাসস্থানও বিক্রি করে তার দাম পরিশোধ করতে হয়। এমনও ঘটছে যে রোগীটি মারা গেল। আকাশ পরিমাণ বিল পরিশোধ না করা পর্যন্ত মৃতদেহটিও ফেরত দেয়া হচ্ছে না। ঠিক তেমনি অন্যান্য সকল বিষয়েই প্রযুক্তিটা উন্নত হচ্ছে; কিন্তু তাতে পকেট কাটা যাচ্ছে জনগণের। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

naxal-movement-321আজকের পৃথিবীতে সকল সংস্কৃতি, সকল সাহিত্য ও সকল শিল্পই বিশেষ শ্রেণীর সম্পত্তি এবং বিশেষ রাজনৈতিক লাইন প্রচার করাই তার কাজ। শিল্পের জন্য শিল্প, শ্রেণী স্বার্থের ঊর্ধ্বে অবস্থিত বা রাজনীতির সাথে সম্পর্কহীন ও স্বাধীন শিল্প বলে আসলে কিছুই নেই। প্রলেতারীয় সাহিত্য ও শিল্প হচ্ছে সমগ্র প্রলেতারীয় বিপ্লবী লক্ষ্যেরই একটি অংশ; লেনিনের ভাষায় তা হচ্ছে বিপ্লবী যন্ত্রেরই দাঁত এবং চাকা। (শিল্প ও সাহিত্য প্রসঙ্গে মাওয়ের ইয়েনানে প্রদত্ত ভাষণ থেকে গৃহিত) (বিস্তারিত…)


২৫ মে ২০১৫

ganamuktir-ganer-dolগত ২২ মে ২০১৫ তারিখ, শুক্রবার, বিকাল ৪টায় “বর্তমান বিশৃঙ্খলাপূর্ণ পরিস্থিতিতে সক্রিয় সংগ্রামী প্রচার ও মনোভাবের দ্বারা আমরা জনগণকে জাগ্রত করতে পারি।”মনিরুজ্জামান তারা

এই শ্লোগান নিয়ে গণমুক্তির গানের দল স্বাধীনতা স্কয়ার, স্টেশন বাজার, সিরাজগঞ্জএ মহান মাওবাদী ও কমরেড চারু মজুমদারের লাইনের অন্যতম প্রধান পতাকাবাহী নেতা কমরেড মনিরুজ্জামান তারার ৪১তম শহীদ দিবসএ আলোচনা সভা ও গণসাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: নীলিম বসু

narendra-modiএই লেখা যে সময় লিখছি তখন ছত্তিশগড়ে সালয়া জুড়ুমের নবপর্যায় ঘোষিত, মুম্বাইতে এক বহুজাতিক হীরে রপ্তানী সংস্থায় চাকরির আবেদন করে এক মুসলমান প্রার্থী জবাব পেয়েছেন যে, ঐ কোম্পানী শুধু অমুসলমান নাগরিকদের চাকরি দেয় (যদিও এই নিয়ে সংবিধান অবমাননা, এফআইআর, কোম্পানীটির মধ্যে দায় এড়ানোর নাটক চলছে), দেশের দুটি রাজ্যে গোরু হত্যা নিষিদ্ধ করার মাধ্যমে একটা বড় অংশের নাগরিকের রুটিরুজি ও খাদ্যাভ্যাসে হস্তক্ষেপ করা হয়ে গেছে, নিহত হয়েছেন কুসংস্কারবিরোধী আন্দোলনের কর্মী, গত ১ বছরে ঘটে গেছে কমবেশি ৫০০টি ছোটো বড় সাম্প্রদায়িক হিংসা (পড়ুন সংখ্যালঘুদের ওপর আক্রমন), সংখ্যালঘু নিধনে অভিযুক্তরা বেকসুর খালাস পেয়েছেন কোর্ট থেকে, ‘ঘর ওয়াপসী’ নামক এক বিশাল ধর্মান্তকরণ কর্মসূচী দেশজুড়ে চলমান ইত্যাদি। এর সাথে ভারতের লোক দেখানো সংসদকেও এড়িয়ে গিয়ে অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে শাসক দলের ইচ্ছা অনুযায়ী আইন তৈরির এক ধারাবাহিকতা দেখা যাচ্ছে, বিপ্লবী আন্দোলন দমনে সেনা নামানোর হুঙ্কার শোনা যাচ্ছে, গুজরাটে জারী হয়েছে ঘৃণ্য কালা কানুন (যা আজ বা কাল আমরা কেন্দ্রীয় স্তরেও দেখতে পাবো)। কর্পোরেট ও রাষ্ট্রের হাত মেলানোর প্রমান কেন্দ্রীয় বাজেট (কৃষিতে ব্যয় বরাদ্দ কমানো, ১০০ দিনের কাজের মতো সামাজিক প্রকল্পগুলিতে যেটুকু ব্যয় বরাদ্দ ছিল, তাও কমিয়ে একই সাথে কর্পোরেট বেল আউটে বরাদ্দবৃদ্ধি ও গ্রামীন সামন্তশ্রেণীর বহুদিনের দাবী মেটানোর মাধ্যমে রাষ্ট্রের আধাসামন্ততান্ত্রিক আধাঔপনিবেশিক চরিত্রকে শক্তিশালী করার বাজেট) (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শুভজিৎ দত্ত

Art-Abstract-Painting-543তোকে ভেবেই গান

সুর আর শরীর একাকার,

একা মিছিল কি আর কোরাস গায় রে পাগলি?

কিছু শব্দ সাজিয়ে নিলে (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আবিদুল ইসলাম

sindabader-galicha-1বন্ধুবর আহমদ জসিমের ‘সিন্দাবাদের গালিচা’ নামক গল্পগ্রন্থটি বেরিয়েছে এ বছরের একুশে বইমেলায়, অগ্রদূত পাবলিকেশন্স লিমিটেড থেকে। আমার জানামতে এটি তার দ্বিতীয় গল্পগ্রন্থ, এর আগে ‘যেভাবে তৈরি হল একটি মিথ’ নামে প্রথম বইটি প্রকাশিত হয়েছিল ২০১০ সালে তেপান্তর থেকে। বইয়ের প্রচ্ছদ সুদৃশ্য, ভেতরের ফ্ল্যাপে বইটি সম্পর্কে অকালপ্রয়াত সাহিত্যিক কামরুজ্জামান জাহাঙ্গীরের দুয়েকটি কথা লেখা দেখে মনে বেদনাবোধ জাগ্রত হয়। জাহাঙ্গীর হঠাৎই গত ৭ মার্চ আমাদের ছেড়ে গেছেন না ফেরার দেশে।

বাংলা কথাসাহিত্যের আধুনিক ধারায় শিল্পীরা যা রপ্ত করেছেন তাহলো নৈর্ব্যক্তিকতার কৌশল। এখানে বলে নেয়া ভালো যে সাহিত্য সম্পর্কে আমার নিজের জ্ঞান অতি অল্প, আর সাম্প্রতিক লেখকদের গল্পকবিতাও আমি পড়েছি খুবই কম। আধুনিক লেখক বলতে এখানে যেটা বোঝাচ্ছি তার শুরু সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর হাত ধরে। ওয়ালীউল্লাহ থেকে শওকত ওসমান, হাসান আজিজুল হক, শওকত আলী, সৈয়দ শামসুল হক, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, শহীদুল জহির, মঈনুল আহসান সাবের, শাহাদুজ্জামান এদের কথাই বোঝাতে চাইছি কেননা তাদের সাহিত্যকৃতির সাথেই আমি কমবেশি পরিচিত। সাহিত্যের বিভিন্ন শৃঙ্খলার মধ্যে ছোট গল্প নির্মাণ আমার কাছে সবচেয়ে কঠিন কাজ বলে মনে হয়। কেননা একটি সীমিত পরিসরে নৈর্ব্যক্তিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে জীবনকে দেখা, মূল বক্তব্য সরাসরি প্রকাশ না করেও পাঠকের মধ্যে তার অন্তর্বস্তুটুকুকে চারিয়ে দেয়া এটা কোনো সহজ কথা নয়। তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে গল্পের সারকথা বক্তব্য আকারে সামনে আনতে গেলে শুধু যে তা শিল্পগুণ হারায় তাই নয়, পাঠকের বোধজ্ঞানের ওপরও বলতে গেলে অবিচার করা হয়। (বিস্তারিত…)


২২ মে ২০১৫

বিদেশে পাঠানোর নামে নব্যদাস ও পণবাণিজ্যের ঘটনার জাতীয় ও আন্তর্জাতিক তদন্তসহ পাচারচক্রের বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিচার ও শাস্তিসহ সকল সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার দাবী”

Human-Trafficking-11আজ ২২ শে মে ২০১৫ সকাল ১০ টায়, জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে “সাগরে ভাসমান বন্দী ও নিখোঁজ পাচারকৃত শ্রমিকদের অবলিম্বে উদ্ধার এবং পাচারকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে গণঅধকিার সংগ্রাম কমিটি বিক্ষোভ সমাবশে ও মিছিল করেছে।

গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক নিজাম উদ্দিন স্বপনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা সরকারের এ নিষ্ক্রিয়তার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, গত ১৫ দিনে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এসব পাচারকৃত মানুষদের উদ্ধার করার জরুরী ব্যবস্থা না নিয়ে একে অপরের উপর দায় চাপিয়ে পিংপং খেলায় মেতে থেকেছে। এখনও পর্যন্ত পাচারকৃত শ্রমিকদের উদ্ধার, ফিরিয়ে আনা ও পুনর্বাসনের বিষয়ে সরকারের জরুরী ও শক্তিশালী কোন পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অনুপ কুণ্ডু

human-trafficking-2015-1মানব পাচার সাম্প্রতিক সময়ের এক জটিল সমস্যা। ১২ মে ২০১৫ পর্যন্ত থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ার উপকূল থেকে ২০০০ বাংলাদেশী এবং রোহিঙ্গা অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়েছে। থাইল্যান্ডে আবিষ্কৃত হয়েছে ৩০টির মতো গণকবর। পাচার হওয়া শত শত অভিবাসীর শেষ ঠাঁই হয়েছে এই কবরে। মানব পাচার রোধে বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের তৎপরতা বৃদ্ধি পেলেও কার্যকর কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেনি। (বিস্তারিত…)


atheism-1লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

নিজের মতবাদ বা স্বোপার্জিত সত্যের জন্য জীবন বরবাদ করে ফেলা জ্ঞানীগুণীদের মধ্যে সক্রাতেসের নাম সর্বাগ্রে। এদের মধ্যে যিশু জেনো গ্যালেলিও হাইপেশিয়াসহ আরো অনেকেই আছেন। আমাদের দেশে সম্প্রতি জ্ঞানবিজ্ঞানের চর্চা বেড়েছে বা বাড়ছে এরই প্রমাণ একে একে হুমায়ুন আজাদ, ব্লগার রাজিব বা হালে অভিজিত রায়ের হত্যা। সক্রাতেস প্রথাগত সমাজের সঙ্গে তর্ক করে বুঝতে চেয়েছিলেন যে, সমাজ কতটুকু পিছিয়ে আছে। আসলে সক্রাতেসের সব তর্কের পেছনেই আছে মানুষের মঙ্গল চিন্তা। প্লাতনের মাধ্যমে যেই সক্রাতেসকে আমরা বুঝি, তিনি আগাগোড়াই একজন ইন্টেলেকচুয়াল বা বিদ্বজ্জন। সব বিষয়আশয় নিয়েই তিনি চিন্তাভাবনা করেছেন। কিন্তু গতানুগতিকতার স্রোত থেকে এরপর আলাদা করেছেন নিজেকে। কিন্তু অন্যসব মানুষ সক্রাতেসের মতো চিন্তায় এগিয়ে যেতে পারেননি। ফলে সক্রাতেস ক্রমাগত তাদের কাছে আলাদা হতে হতে তাদের অপরে পরিণত হন। তিনি একা হয়ে যান। তার চিন্তাজগতের আশপাশে সাধারণ মানুষ নেই। যদিও তিনি সাধারণের জন্যই চিন্তা করেছেন। এমনকি আমজনতার অধিকারের কথা ভেবে সারাজনম ব্যয় করা কার্ল মার্কসের প্রলেতারিয়েতরাও মার্কসবাদী নয়। (বিস্তারিত…)