Posts Tagged ‘শাহীন রহমান’


লিখেছেন: শাহীন রহমান

ভূমিকা

সাধারণ অর্থে একটি উন্নত দেশ কর্তৃক অপর একটি বা একাধিক অনুন্নত দেশের উপর আধিপত্য বা সাম্রাজ্য বিস্তারকে সাম্রাজ্যবাদ বলা হয়। পররাজ্য গ্রাস ও লুণ্ঠন করে পদানত রাখার ব্যবস্থা হলো সাম্রাজ্যবাদ। উন্নত একটি পুঁজিবাদী রাষ্ট্র ও সেই রাষ্ট্রের পুঁজিপতি বা বুর্জোয়াদের দ্বারা অন্য একটি দেশ ও তার জনগণের উপর শোষণশাসন কায়েম করাই সাম্রাজ্যবাদ। পুঁজিবাদের বিকাশের গোড়ার দিকে কতিপয় পুঁজিবাদী দেশ এই ধরনের সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রে পরিণত হয়। তারা অনুন্নত ও প্রাক পুঁজিবাদী বিভিন্ন দেশে রাজনৈতিক তথা সামরিক অভিযান চালিয়ে তাদের পদানত ও পরাধীন করে। সেইসব দেশের ভূমি, প্রাকৃতিক সম্পদ ও কাঁচামাল নিজেদের দখলে নেয়। এমনকি পরাধীন দেশগুলিকে নিজেদের প্রত্যক্ষ শাসনের অধীনে নিয়ে আসে দখলকারী দেশগুলি। পুঁজিবাদের উদ্ভবের পরে কতিপয় উন্নত পুঁজিবাদী রাষ্ট্রের এই পররাজ্য দখল ইতিহাসে উপনিবেশবাদ রূপে পরিচিত। এই উপনিবেশিক কর্মনীতি দ্বারা বিভিন্ন অনুন্নত, পশ্চাদপদ দেশগুলি উপনিবেশে পরিণত হয়েছিল সাম্রাজ্যবাদী দেশগুলির। বিভিন্ন উন্নত পুঁজিবাদী দেশের পুঁজিবাদের বিকাশে এই উপনিবেশিক শোষণশাসন লুণ্ঠনের বিশেষ ভূমিকা ছিল। এভাবে সাম্রাজ্যবাদ ও উপনিবেশবাদকে (colonialism) এক করে দেখা হলেও এদের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। উপনিবেশবাদের ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ রাজনৈতিক তথা সামরিক অভিযানের ভূমিকাই মুখ্য। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: শাহীন রহমান

পৌরুষত্ব

এটা আজ প্রমাণিত সত্য যে, সমাজ পুরুষকে একভাবে সৃষ্টি করে। আর নারীকে অন্যভাবে গড়ে তোলে। ফলে পুরুষরা বিশেষ কতগুলি বৈশিষ্ট্য নিয়ে বড় হয়। আর নারীরা ভিন্ন কতগুলি বৈশিষ্ট্য অর্জন করে। নারী ও পুরুষের এই বৈশিষ্ট্য স্বাভাবিকভাবে সৃষ্টি হয় না। বরং সমাজ এসব বৈশিষ্ট্য তাদের উপর নানাভাবে চাপিয়ে দেয়। এই পুরুষ মানুষ ও মেয়ে মানুষ তৈরীর প্রক্রিয়া এমনভাবে সমাজে সক্রিয় থাকে যে, আমরা তা স্বাভাবিক বলে মনে করি। এভাবে সমাজ পুরুষ মানুষের মধ্যে বিশেষ কিছু স্বভাব, চরিত্র, বৈশিষ্ট্য বা আচারআচরণের প্রকাশ ঘটায়, যাকে বলা হয় পুরুষ সুলভ স্বভাব বা পৌরুষত্ব। সহজ কথায় পুরুষ মানুষের দৈহিক, মানসিক ও যৌন বৈশিষ্ট্য স্বভাব বা আচরণ হল পৌরুষত্ব। কিংবা সমাজ পুরুষ মানুষ গড়ে তোলার মাধ্যমে তার মধ্যে যেসব বৈশিষ্ট্য আরো করে, সেটাই পৌরুষত্ব। অন্যদিকে সমাজ নারীকে ভিন্নভাবে গড়ে তোলায় তার মধ্যে যেসব বৈশিষ্ট্যের প্রকাশ ঘটে সেটাই হচ্ছে মেয়েলিপনা বা নারীত্ব। অর্থাৎ মেয়ে মানুষের স্বভাব চরিত্র, আচারআচরণ ও বৈশিষ্ট্য হল মেয়েলীপনা বা নারীত্ব। মেয়েদের দৈহিক, মানসিক ও যৌন স্বভাব বা বৈশিষ্ট্য এর অন্তর্ভূক্ত। (বিস্তারিত…)