Posts Tagged ‘রাষ্ট্র’


লিখেছেন: সারোয়ার তুষার

বহুদিন পর উঁহু, সম্ভবত এই প্রথম বস কোনো কাজের কাজ দিয়েছে বলে মনে হলো তার। চাকরিতে জয়েন করার পর এ পর্যন্ত যেসব অ্যাসাইনমেন্ট তূর্য পেয়েছে, সেসব শুধুমাত্র জঘন্যই না, অনেকটা ‘ডোন্ট ডিস্টার্ব দ্য বিগ ব্রাদার’ টাইপ। তারপরেও করতে হতো। করতে হয়। অন্নসংস্থান বলে কথা। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করার পর কি করবো, কি করবো এই যখন অবস্থা তূর্যের, তখন বন্ধুস্বজন অনেকেই সাংবাদিকতায় ঢোকার পরামর্শ দিয়েছিল। সেই অর্থে আটটাপাঁচটা ডিউটি নাই, ফ্রিডম আছে। আর তার যেহেতু লেখালেখির বাতিক আছে, সেই সুযোগও নাকি পাওয়া যাবে। শিক্ষকতায় ঢুকতে পারলে নাকি সবচেয়ে ভালো হতো অবারিত স্বাধীনতা, আবার জাতির বিবেকও নাকি হওয়া যায়! শুনেই তূর্যের ভিড়মি খাওয়ার মতো অবস্থা হয়েছিল, আরঙ্গে সঙ্গেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলো যাক, তাহলে সাংবাদিকতাই ভালো। শিক্ষক হয়ে জাতির বিবেক মারার মত রুঢ় পরিহাস তো অন্তত করতে হবে না। (বিস্তারিত…)

Advertisements

বস্তার – রাষ্ট্রকর্পোরেটহিন্দুত্ববাদের যৌথ সন্ত্রাস’ বইটি প্রকাশিত হয়েছে। মধ্যভারতে রাষ্ট্রীয় শোষণনিপীড়নের বিপরীতে আদিবাসীদের সংগ্রামের চিত্র উঠে এসেছে এ গ্রন্থে।

বইটি পাওয়া যাচ্ছে শাহবাগ, আজিজ মার্কেটের ‘প্রথমা’, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ‘দেবদারু’তে।

অনলাইনে rokomari.com থেকেও সংগ্রহ করা যাবে।

এছাড়া ০১৯৮০১৩৭৯৫৬ (উৎস পাবলিশার্স) নম্বরে যোগাযোগ করেও বইটি সংগ্রহ করা যাবে।

কলকাতার পরিবশক সেতু প্রকাশনীতে আগামী মাসে বইটি পাওয়া যাবে।

(বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অয়ন চৌধুরী

naxal-3ছত্তিশগড়ের গহীন অরণ্য হতে বের হচ্ছে কয়েকটা লাশ

জাতীয় পতাকায় মোড়া দুজন নিহত পুলিশ সৈন্য,

যারা ছিল জঙ্গলের অভিশাপ

আধিবাসী নারী ধর্ষণের বীর নায়ক

হত্যা আর লুন্ঠনের অগ্রগণ্য শিরোমণি,

রাষ্ট্রযন্ত্রের ব্যবহৃত কামানের খাদ্য

ক্ষমতা কুক্ষিগত করার মানব ঢাল।

(বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অশোকবিজয়

eliminate-the-state-2লেখার জন্য ভাবনার প্রয়োজন পড়ে, আবার ভাবনা ব্যক্তিক বোধ দ্বারা তাড়িত হয়, যে কারণে সকল তাড়না লেখা হয়ে ওঠে না এবং সিংহক্ষেত্রে, বেপর্দা তাড়নায় হওয়া লিখাগুলো সুঠাম শক্তিমান না থেকে হয়ে পড়ে অক্ষর স‍‍র্বস্ব এই অক্ষরসর্বস্বতা সকল দশকেই কালের শরীরে রঙিন জরির মতো, ভীষণ চমকানো সত্য কিছু তাড়না অনেক ক্ষেত্রেই বোধের সুকুমার অবস্থা তথা শিল্পের বলয় ভেদ করতে না পারায় ভাবনাকে প্রভাবিত করে না ভাবনাহীন লিখায় তাড়নার যে স্বরূপ, তাকে বলে আবেগ। আবেগ হচ্ছে এমন একটি গুণ, যা মানুষকে মানবিক, অমানবিক এবং অতিমানবিক এই ত্রিবিধকল্পে পৃথক করে রেখেছে যেকোনো যন্ত্রসত্তা, জন্তুসত্তা এবং অদৃশ্য কল্পনাতুর নালৌকিক সত্তা থেকে ব্যক্তিক ভাব হচ্ছে সেই গূঢ় আদিগুরু, যা থেকে সমস্ত ভাবনার প্রকাশ ও বিকাশ এবং আবেগ হচ্ছে সেই ভাবসঞ্জাত দূরাতিক্রম্য গুণ। আবেগের স্বরূপ একই নয়; পাত্রভেদে এর বিভিন্নতায় স্থানিক প্রভাব থাকে, সময়সঞ্জাত কালিক অভিজ্ঞতার পরিমিতিবোধ থাকে এবং নি‍‍র্দিষ্ট কোনো একটি বিষয়ে আবেগের প্রকাশ সময়ের তারতম্যে বিভিন্ন হয়ে থাকে। ভাবনার ক্ষেত্রে ভাবসঞ্জাত তাড়িত আবেগকে ডিমাউন্ট করতেই প্রাথমিক কথাগুচ্ছের অবতারণা। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

rajan-murder-2015রাজন নামের শিশুটিকে খুচিয়ে খুচিয়ে মারা হলো সেটা আবার ভিডিও করা হলো ভিডিওটি আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হল। এই পুরা কর্মপ্রক্রিয়ার পেছনে যাদের কারো না কারো বুদ্ধি শ্রম পরিকল্পনা কাজ করেছে। তিনি একটা ঘটনা নির্মাণ করে চলেছেন, তিনি নির্মাণ সম্পন্ন করেছেন। এই সব ঘটনা পরম্পরায় পরিকল্পনাবিদের পরিকল্পনা দ্রুত কাজ করে চলেছে। সাম্প্রতিক অপরাধ বিজ্ঞানের ভাষায় অপরাধ ঘটানোর ক্ষেত্রে নবীন অপরাধী তার নিকটতম প্রবীন অপরাধকে ফলো করে ভেবে দেখে তার স্থান কোথায়। যখন হরহামেশা একই ধরণের অপরাধ ঘটতে থাকে। তখন নবীন অপরাধী নিজেকে আর একা ভাবেনা সে বৃহৎ এক অপরাধী সমাজের সভ্য বলে মনে করে তখন নিজেকে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: টিপু সুলতান

এই বাল্যকালে ওই আমার সন্তান কি করেছে

ব্যক্তিগত স্বার্থে নয় ও শুধু বিপ্লব চেয়ে দোষী

শক্তি চট্টোপাধ্যায়

.

comrade-vivek-2015কিশোরের স্বপ্ন ছিল

কিশোরের প্রাণ ছিল

.

আজ স্বপ্নটা ছড়িয়ে গেছে

আর প্রাণটা পাহাড় সম

এই দেশের জমি দখল করেছে। (বিস্তারিত…)


Noam Chomsky In Conversation At British Library(এই অনুবাদকর্মটি নোম চমস্কির The Chomsky Reader বইটির অংশবিশেষ। এই অংশটি নেওয়া হয়েছে alternet.org-এ প্রকাশিত Noam Chomsky: Why Americans Know Much About Sports But So Little About World Affairs লেখাটি থেকে। এই অনুবাদকর্মটির কোনো কপিরাইট নাই। প্রয়োজনে যে কেউ এটাকে যেকোনো স্থানে ছাপাতে পারেন। অনুবাদক)

অনুবাদ: ইস্ক্রা এবং পার্থ প্রতীম দাশ

প্রশ্ন: আপনি লিখেছেন পেশাদার বুদ্ধিজীবি এবং আমলারা কেমন করে বাস্তবতাকে ধোঁয়াশাপূর্ণ করে ফেলে। এবং কোথাও কোথাও আপনি মানুষের কাণ্ডজ্ঞানকে “কার্তেসীয় কাণ্ডজ্ঞান” নামেও অভিহিত করেছেন। বিশেষত, সমসাময়িক সমাজবিজ্ঞানের ক্ষেত্রে যুক্তির অবস্থান নির্ণয় করতে গিয়ে মূলত, আপনি কাণ্ডজ্ঞানের উপরেই অধিক আলোকপাত করেছেন। কাণ্ডজ্ঞান বলতে আপনি কি বোঝাতে চান? আমাদের সমাজের প্রেক্ষিতে এর অর্থই বা কী? উদাহরণস্বরূপ, সাংঘাতিক প্রতিযোগিতাপূর্ণ এবং বিচ্ছিন্ন সমাজে থেকে মানুষের পক্ষে তার সত্যিকার আগ্রহ খুঁজে পাওয়াই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। কেউ যদি রাজনৈতিক কার্যকলাপে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণই না করতে পারে, নেহাত সাক্ষী গোপাল সেজেই থাকতে হয়, তাহলে তার পক্ষে কি অর্জন করা সম্ভব? এক্ষেত্রে কাণ্ডজ্ঞানই বা কিভাবে গড়ে উঠতে পারে? (বিস্তারিত…)


বাংলাদেশ পরিস্থিতি নয়া উদারবাদী যুগে শাসনপ্রনালী ও কথকতা” নামের প্রকাশিতব্য সংকলনের প্রবন্ধ

লিখেছেন: বখতিয়ার আহমেদ

book-cover-1[সংকলকের ভূমিকা: আমাদের সমাজে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার নানান অভিঘাতকে নির্মোহ দৃষ্টিতে বিশ্লেষণ করে থাকেন বখতিয়ার আহমেদ। রাবির নৃবিজ্ঞান বিভাগের এই শিক্ষক যে গরীব কৃষকশ্রমিকের টাকায় যে জ্ঞানচর্চা করেন; তা একটিবারের জন্যও ভুলে যান না। সমাজে ক্ষমতাশালী কোনো অংশের প্রতিনিধিত্ব করেন না তিনি। করেন না বলেই রাষ্ট্রআইনকানুননিও লিবারাল বাজারের আধিপত্যকে নৃবৈজ্ঞানিক অবস্থান থেকে নির্মোহ বিশ্লেষণ করতে পারেন তিনি।

বখতিয়ার আহমেদের কাছে প্রথমে লেখা চেয়েছিলাম এই সঙ্কলনের জন্য। পরে সময় বিবেচনায় নিয়ে এবং কাজের ব্যাপারে তার পারফেকশান আর ধীর গতির (দুটোই আমার কাছে ইতিবাচক। সেকারণেই তিনি যা বলেন/লেখেন তা জরুরি হয়ে ওঠে। হুটহাট বলেন না বলেই।) কথা মাথায় রেখে ফন্দি আঁটি কোনোভাবে একটি বক্তৃতা করিয়ে নেয়া যায় কিনা তাঁকে দিয়ে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: বাধন অধিকারী

21-august-2007-procession২০০৭ এর আগস্টে সেনাকর্পোরেট জরুরিক্ষমতার সরকারের কালে সংঘটিত ছাত্র বিক্ষোভের পর এইবার দিয়ে চতুর্থবারের মতো ২০২১২২ তারিখ উদযাপিত হচ্ছে। কিন্তু যে প্রশ্নকে সামনে রেখে আমরা কিছু শিক্ষকশিক্ষার্থী সেনাকর্পোরেট কর্তৃত্বের মহাজরুরি ক্ষমতার সেই সরকারের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলাম; বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতার সেই প্রশ্নটিকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেনাসদস্য কর্তৃক শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনাকে আমরা নিছক একটি নির্যাতনের ঘটনা হিসেবে দেখিনি। একে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতায় রাষ্ট্রীয় জরুরি ক্ষমতার অন্যায্য হস্তক্ষেপ বিবেচনা করেছি। সুমহান জনযুদ্ধের ৭১’এর প্রেরণায় স্বাধীন বাংলাদেশে যে জনমত ছিল;সেই জনমত বঙ্গবন্ধুর সরকারের কাছে থেকে আদায় করে নেয় ৭৩’এর অধ্যাদেশ; বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসনের দলিল। সেই অধ্যাদেশের প্রেরণাটুকুকে উপজীব্য করে আমরা ক’জন মাত্র শিক্ষকশিক্ষার্থী (পরে আরও ক’জন যুক্ত হয়েছিল। সবমিলে মোটামোটি ৮০ জন ছিলাম) মৌন মিছিলে দাঁড়িয়েছিলাম। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ফারুক আহমেদ

toba-group-workers-5ঈদের আগের দিন থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারী এবং আবাস থেকে উচ্ছ্বেদ হওয়া শ্রমিকরা তাদের কর্মস্থলে এসে জড়ো হন। পোষাক নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান তোবা গ্রুপের ৫টি কারখানার ১৬০০ শ্রমিককে তিনমাস ধরে বেতন দেওয়া হয়নি। শ্রমিকদের যে বেতন দেওয়া হয়, তাতে নিয়মিত বেতন পেলেও পরিবার পরিজন নিয়ে তাঁদের মান সম্পন্ন খাবার এবং আবাস জোটে না। কষ্ট করে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে থেকে শুধুমাত্র জীবন ধারণের জন্য খাবার খেয়ে কোন রকমে তাঁরা জীবনটাকে চালিয়ে নিয়ে যেতে পারেন। বেতন বন্ধ হলে স্বাভাবিকভাবেই তাঁদের উপোস থাকতে হয়। (বিস্তারিত…)