Posts Tagged ‘রাজনৈতিকতা’


Mofakhaffer Ul Chowdhury-1

মোফাখ্খার চৌধুরী

(আমরা সাধারণত “ক্রসফায়ার”এর একমুখী প্রচারপ্রচারণাটাই শুনে থাকি, এমনকি একেই সত্য বলে ধরে নিই, কিন্তু তার অপরদিকের সত্যটা আমাদের সামনে উন্মোচিত হয় না, বা হতে দেওয়া হয় না। এই “ক্রসফায়ার”এর অন্তর্নিহিত কারণ এবং এর সাথে রাষ্ট্রের রাজনৈতিকতার সম্পর্কটাও তুলে ধরা হয়েছে নেসার আহমেদ সম্পাদিত ক্রসফায়ার’ রাষ্ট্রের রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড বইটিতে। বইটি হয়তো অনেকেই পড়েছেন, আবার অনেকেরই হয়তো তা এখনো পড়া হয়নি। আর এ জন্যই এই বইয়ের প্রতিবেদনসমূহ এখানে পর্যায়ক্রমিকভাবে তুলে দেওয়া হচ্ছে। সম্পাদক)

প্রতিনিধি পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল)

নেসার: আপনার নাম, দলের নাম এবং পার্টিতে আপনার সাংগঠনিক অবস্থান উল্লেখ করে আলোচনা শুরু করা যেতে পারে।

তুষার: আমার নাম তুষার। আমি পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল) এর একজন প্রতিনিধি। (বিস্তারিত…)


bonduk(আমরা সাধারণত “ক্রসফায়ার”এর একমুখী প্রচারপ্রচারণাটাই শুনে থাকি, এমনকি একেই সত্য বলে ধরে নিই, কিন্তু তার অপরদিকের সত্যটা আমাদের সামনে উন্মোচিত হয় না, বা হতে দেওয়া হয় না। এই “ক্রসফায়ার”এর অন্তর্নিহিত কারণ এবং এর সাথে রাষ্ট্রের রাজনৈতিকতার সম্পর্কটাও তুলে ধরা হয়েছে নেসার আহমেদ সম্পাদিত ক্রসফায়ার’ রাষ্ট্রের রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড বইটিতে। বইটি হয়তো অনেকেই পড়েছেন, আবার অনেকেরই হয়তো তা এখনো পড়া হয়নি। আর এ জন্যই এই বইয়ের প্রতিবেদনসমূহ এখানে পর্যায়ক্রমিকভাবে তুলে দেওয়া হচ্ছে। সম্পাদক) (বিস্তারিত…)


bonduk(আমরা সাধারণত “ক্রসফায়ার”এর একমুখী প্রচারপ্রচারণাটাই শুনে থাকি, এমনকি একেই সত্য বলে ধরে নিই, কিন্তু তার অপরদিকের সত্যটা আমাদের সামনে উন্মোচিত হয় না, বা হতে দেওয়া হয় না। এই “ক্রসফায়ার”এর অন্তর্নিহিত কারণ এবং এর সাথে রাষ্ট্রের রাজনৈতিকতার সম্পর্কটাও তুলে ধরা হয়েছে নেসার আহমেদ সম্পাদিত ক্রসফায়ার’ রাষ্ট্রের রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড বইটিতে। বইটি হয়তো অনেকেই পড়েছেন, আবার অনেকেরই হয়তো তা এখনো পড়া হয়নি। আর এ জন্যই এই বইয়ের প্রতিবেদনসমূহ এখানে পর্যায়ক্রমিকভাবে তুলে দেওয়া হচ্ছে। সম্পাদক) (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আলবিরুনী প্রমিথ

গত ১৬ ডিসেম্বর বিকালে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮ শিক্ষার্থী সুরমার শাখানদী চেঙ্গেরখালে নৌকাভ্রমনে যাওয়ার পর সন্ধ্যায় ফেরার পথে ডাকাতের কবলে পড়লে সেখানে কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড পলিমার সায়েন্স (সিইপি) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্রদ্বয় দীপঙ্কর ঘোষ অনিক ও খায়রুল কবীর নিহত হন, যাদের লাশ পরবর্তী দিনে অর্থাৎ শনিবার সকালে চেঙ্গেরখাল থেকে উদ্ধার করা হয়। লাশ গ্রহণ করার সময়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর হিমাদ্রি শেখর রায়ের অবিস্মরনীয় বানী ‘ডুবুরীর কোন দরকার নেই, মরা বাহাত্তর ঘন্টার পর এমনিতেই ভেসে উঠবে!!!’ এবং সহকারী প্রক্টর ফারুক উদ্দীনের লাশের সামনে সিগারেট ধরানো এবং পরবর্তীতে সাধারণ ছাত্রদের ‘রাজনীতি বিমুখতা’কে কাজে লাগিয়ে শাসকসশ্রেণীর পৃষ্ঠপোষকতায় থাকা ছাত্র সংগঠনটির বিষয়টিকে ঘিরে আন্দোলনকে ‘অরাজনৈতিক’ মোড়কে দেখিয়ে স্তিমিত করার দূরভিসন্ধীর বিষয়টি নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা জরুরী ঠেকেছে,বিধায় তা নিয়ে লিখতে বসলাম।

অনিক ও খায়রুল'এর নিথর দেহ

এ কথা অনস্বীকার্য যে যেকোন ইস্যুতেই গনআন্দোলন কখনোই ‘অরাজনৈতিক’ হতে পারেনা, তা সম্ভবও নয়, কেননা আন্দোলনের প্রতিটা ইস্যুই স্পষ্টত বিদ্যমান ক্ষমতা কাঠামোর আওতায় এবং যেই ক্ষমতা বিদ্যমান শাসকশ্রেণীর কুক্ষীগত। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অবলীলায় হত্যার বিষয়টি নিয়ে আন্দোলন করলে তা অবশ্যই ‘অরাজনৈতিক’ হওয়া আরো সম্ভব নয়। দেশের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের হত্যার বিষয়টিকে ‘অরাজনৈতিক’ হিসাবে দেখতে শিখলে কিংবা সেভাবে ধরে নিলে প্রকৃতপক্ষে অবলীলায় শিক্ষার্থীদের হত্যার বিষয়টিকেই অনুমোদন করা হয়। এই ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের যেই তিন দফা দাবী ছিলো সেগুলা হলো:

১। দায়িত্বে অবহেলার জন্য ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই প্রক্টরকে পদত্যাগ করতে হবে।

২। লাশের প্রতি অবমাননার দরুন ফারুক স্যারকে ছাত্রছাত্রীদের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

৩। অবিলম্বে হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসি কার্যকর করতে হবে। (বিস্তারিত…)