Posts Tagged ‘রাজনীতি’


লিখেছেন: মতিন বৈরাগী

০১.

abstract-art-432দীর্ঘ সময় ধরে চলমান সামাজিক রাজনৈতিক আবদ্ধতা মানুষের মনজগতে নানা প্রতিক্রিয়ার প্রভাব ফেলে। মানুষ সামগ্রিকভাবেই চিন্তা চেতনার ক্ষেত্রে কমবেশি পঙ্গুত্বকে বহন করতে শুরু করে। নতুন চিন্তা যা কিছু তারা বলে তা পুরানো চিন্তারই নামান্তর, অর্থাৎ দাস মনোবৃত্তিই তাদের মনোজগতে প্রবল হয়ে ওঠে ও প্রভুর সকল ছলচাতুরীকে তারা গোষ্ঠী জাতি বা বৃহত্তর মানুষ গোষ্ঠীরা প্রায় একই রূপ বহন করতে থাকে তারা মনে করে যে তারা নতুন জীবন দেখছে নতুন সুযোগ পাচ্ছে এবং নতুনের দিকে যাচ্ছে। আসলে এই ভাবনা তার মনোবৈকল্যের ফলাফল। আমরাও আমাদের চারপাশে এরকম অবস্থাই দেখছি। দেখা স্বাভাবিক। বিশ্বপরিস্থিতির ভেতরই আমাদের বসবাস এবং বিশ্ব মোড়লদের একই ছকের ভেতর আমাদের দিনরাত্রি। হিসেব নিকেশও প্রায় একই রকম। সামান্য কিছু হেরফের থাকলেও উন্নত বিশ্ব বা গরীব বিশ্বের মানুষেদের মনোজগতের ক্রিয়া কর্মে খুব বেশি দূরত্ব থাকেনা।। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: সৌম্য মণ্ডল

indian-media-and-army[মূল্যায়ন পত্রিকার তরফে ত্রয়ন দা আমাকে নেপালের ভূমিকম্প :: একটি রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা বিষয়ক প্রবন্ধ লিখতে বলেছে। দীর্ঘ দিন ঝুলিয়ে অবশেষে লিখতেই হল। রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা নিয়ে লিখতে গেলে সেটা অবধারিতভাবেই রাজনৈতিক মতামত হয়ে দাঁড়াবে। কিন্তু মুশকিল হল এই যে নেপাল সম্বন্ধে আমার যানা বোঝা হল কিছু বই পড়া ভাসা ভাসা জ্ঞ্যান আর গত ভূমি কম্পের সময় ইউএসডিএফ United Students’ Democratic Front (USDF)-এর তরফে নেপালে স্বেচ্ছাশ্রম দিতে গিয়ে যেটুকু নেপাল দেখা। মাও সেতুঙএর ভাষায় যাকে বলে ঘোড়ায় চড়ে ফুল দেখা। মাওএর মতে, কোন বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসন্ধান না করে সেই বিষয়ে মতামত দেওয়ার কোন অধিকার থাকে না। আর এই বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ স্টাডি আমার নেই। ফলে লেখাটি একটি অহেতুক অকারণ অগভীর প্রবন্ধে পর্যবসিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। আজ কাল কথিত মূল ধারার অধিকাংশ রাজনৈতিক প্রবন্ধের ক্ষেত্রে যা হয় আরকিতবুও এইটুকু সময়ের মধ্যে যা দেখাজানাবোঝা (ভুল বা সঠিক) সেটা পাঠককে জানাবার সুযোগ পেলে মন্দ কি? বাকি বিচার পাঠকের উপরই ন্যস্ত থাকলো।।] (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মাসুদ রানা

Prochod -vabbudbudস্বাধীনতা অর্জনের কয়েক দশক পেরিয়ে গেল না পেলাম অর্থনৈতিক মুক্তি, না পেলাম রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তি। যেখানে দিন দিন এগিয়ে যাওয়ার কথা ছিল, সেখানে প্রতিনিয়ত অবনতির কড়াল গ্রাসের মতো পিছনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। দেশ, সমাজটা যেন জৌলসে অনেক উন্নতি করেছে। আগের চেয়ে রাস্তাঘাট, অফিসআদালত, দালানকোঠা সুন্দর হয়েছে। কিন্তু মানুষের হাহাকার কমেনি, বরঞ্চ তা বেড়েছে বৈকি! এসবের পাশাপাশি আমাদের দেশে বুদ্ধিবৃত্তিক সঙ্কট আরো বেশি ঘনীভূত হয়েছে এবং হচ্ছে। এসব সঙ্কটের রূপ আরো গভীরে গিয়ে পর্যবেক্ষণ করা ছাড়া কোনো উপায় খুঁজে পাওয়ার সুযোগ নেই। আপাত অর্থে আমাদের দেশ পরিচালনাকারী রাজনৈতিক দল, রাজনীতিবিদরা এ সঙ্কটের জন্য মূলগতভাবে দায়ী। কিন্তু এসবের পাশাপাশি রাজনীতিবিদদের রাজনৈতিকভাবে সাহায্যসহযোগিতা করেছে আমাদের দেশের তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা। বুদ্ধিজীবীরাই মূলত সাংস্কৃতিক সঙ্কটের জন্য এককভাবে দায়ী। এরাই আমাদের সাহিত্যসংস্কৃতি এবং রাজনৈতিক পরিবেশকে কলুষিত করেছেন। প্রগতিশীল ভেকধারী তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরাই এ সঙ্কটের তৈরি করেছেন, বললে অত্যুক্তি হবে না। এসব বুদ্ধিজীবী সম্পর্কে আহমদ ছফা বলেছেন

যাঁরা মৌলবাদী তারা শতকরা একশো ভাগ মৌলবাদী। কিন্তু যাঁরা প্রগতিশীল বলে দাবী করে থাকেন তাঁদের কেউ কেউ দশভাগ প্রগতিশীল, পঞ্চাশ ভাগ সুবিধাবাদী, পনেরো ভাগ কাপুরুষ, পাঁচ ভাগ একেবারে জড়বুদ্ধিসম্পন্ন। (সাম্প্রতিক বিবেচনা বুদ্ধিবৃত্তির নতুন বিন্যাস) (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

[কম. নির্মলদা (অজিতদা)-কে মনে রেখে]

.

world-to-winজেগে থাকে রুগ্ন গাছ, ক্ষয়ে যাওয়া চাঁদ

উপদ্রুত অঞ্চল, ত্রস্ত জনপদ

স্মৃতির এলবাম জুড়ে বিষণ্ন বিকেল

রাতঘুমে অনিবার্য ছন্দপতন। (বিস্তারিত…)


chotrodhor-1

(উৎসর্গ: ছত্রধর মাহাতো, সুখশান্তি বাস্কে, সাগর মুর্মু, শম্ভু সোরেন, রাজা সরখেল, প্রসূন চ্যাটার্জী)

লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

এখনও তোরা ওদের বুকে কাঁপন ধরাস

তোদের জন্য বরাদ্দ তাই লোহার খাঁচা

এখনও মানুষ শপথ নিলো তোদেরই নামে

স্বপ্ন দেখার স্পর্দ্ধা নিয়ে প্রবল বাঁচার (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অশোক চট্টোপাধ্যায়

kabir-suman-3শব্দগুলো আসলে বোমা কিম্বা বুলেট নয়, তারা বরং ছোট ছোট পুরস্কার, আর সেই পুরস্কারের একটা অর্থ ও তাৎপর্য থাকে। কথাগুলো ফিলিপ রথএর। শাসক যখন কাউকে কোনও পুরস্কার দেন, তখন তা নিছক সম্মান জানানোর জন্যে নয়, এর বাইরেও তার আর একটা নিগূঢ় অর্থ থেকে যায়। উনিশ শতকে ঔপনিবেশিক বাংলায় যখন ব্রিটিশ সরকার কাউকে রায়বাহাদুর, সিআইই, কেসিআইই প্রভৃতি খেতাব দিতেন তখন তা কি নিছক সম্মানজ্ঞাপক ছিল? কোনওনাকোনোভাবে রাজস্বার্থের সেবাপরায়নতার পুরস্কার ছিল এগুলি। যার জন্যে দেখা যায় পুরস্কার বা সম্মাননা সকলেই পাননা, কেউ কেউ পান। অনেক লেখক সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন, অনেকে যথেষ্ট যোগ্যতাসম্পন্ন হওয়া সত্ত্বেও পাননি। এই কেন পাননি প্রশ্নের উত্তর নিহিত থাকে একটি নির্দিষ্ট রাজনীতির মধ্যে। (বিস্তারিত…)


abstract-art-soul-wave-2

লিখেছেন: স্বপন মাঝি

ভেবনা, তোমরা একা;

অন্ধকারে।

মিথ্যের মায়াজালে তোমাদের আটকে

শাসকগোষ্ঠীর এ খেলা

নূতন কিছু নয়। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: স্বপন মাঝি

abstract-art-painting-51রাষ্ট্রদ্রোহীরা সক্রিয় ছিল, আছে বলেই এখনো বাগানে ফুল ফোটে;

এখনো পাখীরা গান গাইবার পারে।

রাষ্ট্রদ্রোহী হয়েছিল বলেই,

মানুষ আদিম শিকল ছিড়ে বেরিয়ে আসতে পেরেছিল।

দ্রোহী হতে পেরেছিল বলেই,

দ্রোহের আগুনে এখনো রাজপথ মাতিয়ে রাখে। (বিস্তারিত…)


আজ (বুধবার) বিকাল ৪টার দিকে নীলক্ষেত বাবুপুরা মার্কেটে প্রচারপত্র বিলির সময় গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটির তিন নেতাকর্মীকে সরকারি দলের কর্মীরা আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। এসময় গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটির কর্মীরা দুই জোটের গণবিরোধী রাজনীতির প্রতিবাদে আগামী ২০ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য প্রতিবাদী পদযাত্রার প্রচারপত্র বিলি করছিলেন। (বিস্তারিত…)


mongoldhonyপ্রকাশিত হলো মঙ্গলধ্বনিসাম্রাজ্যবাদবিরোধী সংখ্যা। সাম্রাজ্যবাদকে বিভিন্নজন বিভিন্ন আঙ্গিকে ব্যাখ্যাবিশ্লেষণ করেছেন এবারের সংখ্যায়। প্রচ্ছদ করেছেন হেলাল সম্রাট। সহযোগিতায় ছিলেন আবিদুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, অনুপ কুণ্ডু, আব্দুল্লাহ আলশামছ্‌ বিল্লাহ, তৌফিক খান, সুস্মিতা তাশফিন, কৌস্তভ অপু প্রমুখ। ২১ ফর্মার এই সংখ্যাটির বিনিময় মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫০টাকা। নিম্নে এবারের সংখ্যার সম্পাদকীয়, সূচিপত্র এবং প্রাপ্তিস্থান তুলে দেওয়া হলো।

—————————————

সম্পাদকীয়

সাম্রাজ্যবাদ পূর্বের ন্যায় কেবলমাত্র অস্ত্রহাতেই কি তার উপস্থিতি, নাকি এখন সে ভিন্ন কৌশলে অভিন্ন উদ্দেশ্যে ঘরের দোরগোড়ায় উপস্থিত ফুলেল মুখোশে? আর সেই মুখোশ চিনে নিতে আমরা নিজেরাই বা কতোটা প্রস্তুত? (বিস্তারিত…)