Posts Tagged ‘ভারতীয় আগ্রাসন’


rampal-1গত ২৪ সেপ্টেম্বর সকালে ঢাকা প্রেসক্লাব থেকে রওনা হয়ে সাভার, রানা প্লাজা, জাহাঙ্গিরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, মানিকগঞ্জ, গোয়ালন্দ, মাগুরা, ঝিনাইদহ, কালিগঞ্জ, যশোর, নওয়াপাড়া, ফুলতলা, দৌলতপুর, খুলনা, বাগেরহাট, গৌরম্ভা বাজার, চুলকাঠি হয়ে পাঁচ দিনে চার শত কিলোমিটার অতিক্রম করে আমরা আজ ২৮ সেপ্টেম্বর বিকালে বৃহত্তর সুন্দরবনের দিগরাজে উপস্থিত হয়েছি। সুন্দরবন রক্ষাসহ সাত দফা আদায়ের এই লংমার্চের প্রস্তুতিকালে এবং লংমার্চের সময় কালে বহু লক্ষ মানুষ আমাদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: কল্লোল মোস্তফা

ভারতের আন্ত:নদী সংযোগ প্রকল্প অনুসারে, ভারতের উত্তরপূর্বদিকের হিমালয় অঞ্চলের বিভিন্ন নদীর “বাড়তি” পানি বিভিন্ন সংযোগ খালের মাধ্যমে ভারতের দক্ষিণের শুষ্ক এলাকার নদীগুলোতে সরবরাহ করে সেচ ও বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজে ব্যবহার করা হবে। ভৌগলিক ভাবে এই প্রকল্পকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছেহিমালয় অঞ্চল এবং দক্ষিণাঞ্চল বা পেনিনসুলার অঞ্চল। হিমালয় অঞ্চল থেকে মোট ৬ হাজার ১০০ কিমি দৈর্ঘ্যের ১৪টি খাল ও ১৬টি জলাধার ব্যবহার করে ১৪১.৩ বিলিয়ন কিউবিক মিটার(বিসিএম) পানি দক্ষিণের দিকে নিয়ে যাওয়া হবে এবং দক্ষিণের বিভিন্ন নদীর মধ্যে ৪,৭৭৭ কি,মি দৈর্ঘ্যের আরো ১৬টি খাল ও ৫৮টি জলাধার ব্যাবহার করে ৩৩ বিসিএম পানি সংগ্রহের মাধ্যমে হিমালয় ও দক্ষিণাঞ্চল মিলিয়ে মোট ১৭৪.৩ বিসিএম পরিমাণ পানি স্থানান্তর করা হবে। মুশকিল হলো, উজানের দেশ ভারতের শাসক শ্রেণী ও উন্নয়ণ বিশেষজ্ঞদের দৃষ্টিতে যে নদীগুলোর পানি ‘বাড়তি’ হিসেবে অযথাই বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়ে ‘অপচয়’ হচ্ছে, ভারতের গোটা হিমালয় অঞ্চলের জনগণ ও প্রকৃতির জন্য কিংবা গঙ্গাব্রহ্মপুত্র অববাহিকার ভাটির দেশ বাংলাদেশের জনগণের জন্য তাই অপরিহার্য, কারণ নদী অববাহিকার জনগণ ও প্রকৃতির কাছে নদী কেবল কিউমেক/কিউসেকে পরিমাপ যোগ্য পানির আধার নয়, নদী একটি প্রবাহমান জীবন্ত সত্ত্বা যার সজলসজীববাধাহীন অস্তিত্বের উপরই নির্ভর করে গোটা অববাহিকার কৃষিমৎসবনাঞ্চলজলাভূমি সহ সমগ্র জীবন ও প্রকৃতির স্বাভাবিক সজীব অস্তিত্ব।

যদিও নদী সংযোগ প্রকল্পটি রাষ্ট্রীয় সীমা নির্বিশেষে ভয়ংকর এবং সার্বিক ভাবেই ক্ষতিকর, বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে আমরা এখানে আন্ত:নদী সংযোগ প্রকল্পের মধ্যে কেবল বাংলাদেশে প্রবেশের আগে ব্রহ্মপুত্র ও গঙ্গা নদী অববাহিকার পানি যে প্রক্রিয়ায় স্থানান্তর করা হবে তার একটা চিত্র তুলে ধরার চেষ্টা করব যেন বিপর্যয়ের একটা আদল আমাদের কাছে ষ্পষ্ট হয়। আন্ত:নদী সংযোগ প্রকল্পের আওতায় ভারতের হিমালয় অঞ্চল থেকে ভারতের দক্ষিণে স্থানান্তরের জন্য নির্ধারিত মোট ১৪১.৩ বিলিয়ন কিউবিক মিটার(বিসিএম) পানির মধ্যে ৪৩ বিসিএম পানি নিয়ে যাওয়া হবে ব্রহ্মপুত্র অববাহিকা থেকে যে নদীটি শুষ্ক মৌসুমে বাংলাদেশের ৮০% পানির উৎস। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: কল্লোল মোস্তফা

সাম্রাজ্যবাদী আঞ্চলিক শক্তি ভারতের সাথে বাংলাদেশের শাসক শ্রেণীর বন্ধুত্বের নাটক যখন তুঙ্গে, যখন তিস্তার পানি বন্টন নিয়ে নামতা জপার পরও “বন্ধু পানি দিলনা” বলে আফসোসের জিগির উঠেছে, যখন কাটাতারের ঘেরাওয়ের মধ্যে বসে ট্রানজিটের মাধ্যমে রাস্তাবন্দর ভাড়া খাটিয়ে “বেশ্যা অর্থনীতি”র বেসাতি চলছে তখন “সুখবর” পাওয়া গেল বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলের এক গুরুত্বপূর্ণ নদী সারীগোয়াইনের উজানে বাধ বানানো শেষ করে এনেছে। গত কয়েকদিন ধরে এই বাধ নিয়ে সিলেট অঞ্চলে প্রতিবাদ বিক্ষোভ চলছে, কয়েকটি দৈনিক এবং অনলাইনে খরবও প্রকাশিত হয়েছে কিন্তু শাসক গোষ্ঠীর তাতে কিছু যায় আসে বলে মনে হয় না, তারা টিপাইমুখ বাধের মতোই “বাংলাদেশের জন্য ক্ষতিকর কোন কিছু করা হবে না” জাতীয় ভারতের আশ্বাস বাণী শুনতেই আরাম বোধ করেন। আসলে এরা বিষয়টি জেনেও না জানার ভান করছে, ভারতের কাছে আশ্বাস বাণী পাওয়ার আগেই আশ্বস্ত হয়ে বসে আছে, কারণ এটাই এই শ্রেণীর জন্য লাভজনক।

সিলেটের জৈন্তাপুর, গোয়াইনঘাট, কোম্পানিগঞ্জ ও সদর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চল দিয়ে বয়ে যাওয়া সারীগোয়াইন বা হারি গাঙ নদীর উতপত্তি ভারতের মেঘালয় পর্বতে। জৈন্তাপুরের লালখাল এলাকা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের আগে মাইনথ্রু(MYNTDU) নদী নামে প্রবাহিত হয়েছে। এই মাইনথ্রু নদীতেই মেঘালয়ের লেসকা অঞ্চলে “মাইনথ্রু লেসকা হাইড্রোইলেক্ট্রিক প্রেজক্ট” নামে ১২৬ মেগাওয়াটের(৪২*+ ৪২*) একটি জলবিদ্যুত প্রকল্পের কাজ প্রায় শেষ করে এনেছে ভারত।

সূত্র: Myntdu Leshka St-I H.E. Project

http://meseb.nic.in/leshka.htm

মানচিত্রে সারী উজানে মাইনথ্রু-লেসকা বাধের অবস্থান

২০০২ সালে উদ্বোধন হওয়া এই প্রকল্পটি চলতি সেপ্টম্বর মাসেই চালু হওয়ার কথা। (বিস্তারিত…)