Posts Tagged ‘বিদ্রোহী’


লিখেছেন: শাহেরীন আরাফাত

revolutionary-force-2বড় অসময়ে আমার আগমণ এখানে

শোষণের বেড়াজালে বন্দী জীবনে

বিষিয়ে উঠা মন হঠাৎ হয়ে উঠে বিদ্রোহী

 

তবু এটাই বাস্তবতা

ঔপনিবেশিক গণতন্ত্র আর তার ধ্বজাধারী

সাম্রাজ্যবাদী কর্পোরেট আর শোষক শ্রেণী (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: কুঙ্গ থাঙ

ভাষা শহীদ সুদেষ্ণা সিংহ

ভাষা শহীদ সুদেষ্ণা সিংহ

পৃথিবীর ইতিহাসে কেবল দু’টি ভাষার জন্যই জনগণকে লড়াই করতে হয়েছে, বুকের রক্ত ঝরাতে হয়েছে ভাষা দুটি হলো বাংলা এবং বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি । তামিল ও কন্নাড়া ভাষাকে প্রাদেশিক ভাষা করার দাবীতেও আন্দোলন হয়েছে, তবে কেবল বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার আন্দোলন পুরোপুরিভাবে জাতিগত অস্তিত্বের সাথে সম্পর্কিত ছিল। বাংলার মতোই বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদেরকে তাদের মাতৃভাষার স্বীকৃতির জন্য কঠিন সংগ্রাম করতে হয়েছে। সেই সংগ্রামে অনেক রক্ত ও প্রাণ ঝরেছে এবং সে সংগ্রাম ছিল বাংলা ভাষা আন্দোলনের চেয়েও দীর্ঘতর। মাতৃভাষার সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও মাতৃভাষায় শিক্ষার দাবীতে ভারতের আসাম ও ত্রিপুরা রাজ্যে গত শতকের পঞ্চাশের দশক থেকে প্রায় অর্ধশত বছর ধরে সংঘটিত হয়েছে এক রক্তক্ষয়ী আন্দোলন। সেই আন্দোলনের চরম পর্যায়ে পুলিশের গুলিতে আত্মাহুতি দিয়েছিল সুদেষ্ণা সিংহ নামের এই বিদ্রোহী তরুণী। (বিস্তারিত…)


বিদ্রোহী

বল বীর

বল উন্নত মম শির!

শির নেহারি’ আমারি নতশির ওই শিখর হিমাদ্রির!

বল বীর

বল মহাবিশ্বের মহাকাশ ফাড়ি’

চন্দ্র সূর্য গ্রহ তারা ছাড়ি’

ভূলোক দ্যুলোক গোলক ভেদিয়া

খোদার আসন ‘আরশ’ ছেদিয়া,

উঠিয়াছি চিরবিস্ময় আমি বিশ্ববিধাতৃর!

মম ললাটে রুদ্র ভগবান জ্বলে রাজরাজটীকা দীপ্ত জয়শ্রীর!

বল বীর

আমি চির উন্নত শির!

আমি চিরদূর্দম, দুর্বিনীত, নৃশংস,

মহাপ্রলয়ের আমি নটরাজ, আমি সাইক্লোন, আমি ধ্বংস!

আমি মহাভয়, আমি অভিশাপ পৃথ্বীর,

আমি দুর্বার,

আমি ভেঙে করি সব চুরমার!

আমি অনিয়ম উচ্ছৃঙ্খল,

আমি দ’লে যাই যত বন্ধন, যত নিয়ম কানুন শৃঙ্খল!

আমি মানি না কো কোন আইন,

আমি ভরাতরী করি ভরাডুবি, আমি টর্পেডো, আমি ভীম ভাসমান মাইন!

আমি ধূর্জটি, আমি এলোকেশে ঝড় অকালবৈশাখীর

আমি বিদ্রোহী, আমি বিদ্রোহীসুত বিশ্ববিধাতৃর!

বল বীর

চিরউন্নত মম শির! (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: বন্ধু বাংলা

আমার দেশের সকল মাতা কাঁদবে আমার তরে / ভাববে তাদের আপন ছেলে গেছে দেশান্তরে//

বৃদ্ধ নজরুলএক নজরুল ভক্ত (!) বলেন, নজরুল আল্লার অলি ছিলেন। ভাবছি অদুর ভবিষ্যতে এই মোসলেম সমাজে হুমায়ুন আজাদ ও অলি হয়ে যাবে!!!

নেতাজি সুভাস চন্দ্র বলছিলেন, “যুদ্ধে আমরা নজরুলের গান গাইব, তেমনি জেলখানায় আমরা নজরুলের গান গাইব”। নজরুল যাতে নজরুল না হয়ে উঠতে পারে সে জন্য এদেশের কিছু মোসলমান কবি সাহিত্যিক কম চেষ্টা করে নাই। বিদ্রোহী কবিতার সেই চরণ ;

ভূলোক দ্যুলোক গোলক ভেদিয়া, খোদার আসন আরশ ছেদিয়া, উঠিয়াছি চিরবিস্ময় আমি বিশ্ববিধাত্রীর!”

বা,

ধরি বাসুকির ফণা জাপটি‘, ধরি স্বর্গীয় দূত জিব্রাইলের আগুনের পাখা সাপটি‘”

বা

পূজিছে গ্রন্থ ভন্ডের দল মূর্খরা সব শোন/ মানুষ এনেছে গ্রন্থ, গ্রন্থ আনেনি মানুষ কোন

এমন হাজারো সাহসী উচ্চারণ আর সাম্যবাদীতার কারণে “আম জনতা মুসলমান!”; নজরুলকে কাফির বলতে দ্বিধা করে নাই। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শারমিন সুলতানা

কিছুই প্রায় শিখিনি তুলনাহীন শুধুমাত্র অবিরাম গুলির শব্দের মধ্যে জীবনটাকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া ছাড়া

ঘটনাবৃত্ত শেষ পর্যন্ত প্রতিমুহূর্তের সংঘাত আর হত্যাকান্ডের ‘নৈতিক’ ষড়যন্ত্রে

সম্পর্কহীন এক সম্পর্কের প্ররোচনায় বন্দী করল

সব চেয়ে বিষ্ময়করভাবে

আমাদেরই নিজস্ব ভূমিতে

আমাদের সন্তানদের ।

কিছুই প্রায় শিখিনি তুলনাহীন শুধুমাত্র অবিরাম গুলির শব্দের মধ্যে জীবনটাকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া ছাড়া

আমার মায়ের সেলাই করা জানালায় ঝুলন্ত

জেরুজালেমের নকশায় যেখানে যীশু দাড়িয়ে ছিলেন (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শারমিন সুলতানা

পাখিরা মরে যাচ্ছে আর সব মৃত পালকের ছায়ায় ছিটিয়ে পড়ছে আলো

অতি দুরূহ দুঃস্বপ্নের ফাটলগুলো চুইয়ে

গেরিলার নিঃশব্দ বিদায় মুহূর্তের অপলক

দূগর্ম হেঁটে যাওয়া; এগুচ্ছে,

সূর্যের একরোখা আগুন গানে

যেখানে

যন্ত্রণার দাবানল দুর্বল পাঁজরগুলোও

সশস্ত্র স্বাভাবিক লড়ছে সোৎসাহেই । (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শারমিন সুলতানা

বঞ্চনা তোমার গর্ভ আবিষ্কার করেছি

অগ্নিপিণ্ড এক।

ন্যায়ের সর্বাঙ্গে আধিপত্যের কারফিউ; উফঃ ভয়,

তুমি এসো না

রাত্রির আতংঙ্কগ্রস্থ রুদ্ধশ্বাস

বন্ধ চোখ, কাঁপা কন্ঠ ‘ভালবাসি’ বলার

অপূর্ব মুহূর্তটি খুন করে।

হ্যাঁ

ঠিক এখানটাতেই (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শারমিন সুলতানা

এক রাজমিস্ত্রি যে অনবরত ঘামাচ্ছে আর নিজের জন্য বানাচ্ছে দেয়াল

এখানে আপনার ঠিক কিছুই করার থাকবে না

যখন সৈন্যরা চলে যাবে

লাশগুলো টানার জন্য একটা শিশুও বেঁচে থাকবে না

ভাঙ্গচুড়া দেয়ালে ছোপ ছোপ স্বপ্নের কণা আর মাটিতে হু হু

রক্তের হ্রদ ব্যতিত

অন্য কোন সঙ্গীর কথা চিন্তা করাও ‘বেআইনি’

এটাই গাজা অথবা তেলআবিব বা জেরুজালেমের স্বাধীনতা !

এক রাজমিস্ত্রি যে অনবরত ঘামাচ্ছে আর নিজের জন্য বানাচ্ছে দেয়াল (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শারমিন সুলতানা

সূর্য একদিন বসন্তসহ অতিথি হলো

অভিভূত আমাদের পৃথিবী

স্তব্ধ পাহাড়ে পুর্নজন্ম নিল

এক শাদা ঝর্ণা

আর

এক কলরব নদী

একজন অপরজনকে নাম ধরে ডাকলো

প্রশান্তি

আর

সুস্থিতি ।

পৃথিবীভর্তি হাসিমুখ আমাদের প্রিয়জন

সমস্ত দুঃখবোধ আর নিপীড়ণের জ্বলজ্বলে মলাটের গায়ে তীব্র শ্লেষের কালি দিয়ে লিখে দিলাম

আমাদের বিরুদ্ধতা

আর

সংগ্রাম ।

পৃথিবীভর্তি হাসিমুখ আমাদের প্রিয়জন (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আলবিরুনী প্রমিথ

মেয়েটি প্রতিবারই ভেবেছিলো

সে বুঝি তাদের কাম্য , আকাংখিত ,

যেমনটা আকাংখিত থাকে রংধনু

বৈচিত্র্য পিয়াসী আকাশপ্রেমীর কাছে ।

কিন্তু বারবার তার আশাভঙ্গ হয়েছে

বারবার তাকে ফিরে যেতে হয়েছে ,

যেখান থেকে সে স্বপ্ন দেখেছিলো , সেখানে ।

বিফল মনোরথে তাকে ফিরে যেতে হয়েছে

নতুন করে শুরু করতে হয়েছে নিজস্ব যাত্রা ।

অনেক পরে বুঝেছিলো সে , দেখেছিলো

সবাই তাকে দখল করে রাখতে চায় ,

কিন্তু জয় করে নিতে চায়না , চায়নি ।

জয় করতে চাইলে সাহচর্য্যের সফেদ শুভ্র ,

চাদর তার গায়ে থাকতো , তার উপরে থাকতো

লাল উষ্ণতার কারুকাজ , পথ চলার অমলীন সবুজ । (বিস্তারিত…)