Posts Tagged ‘বাংলাদেশ’


atheism-1লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

নিজের মতবাদ বা স্বোপার্জিত সত্যের জন্য জীবন বরবাদ করে ফেলা জ্ঞানীগুণীদের মধ্যে সক্রাতেসের নাম সর্বাগ্রে। এদের মধ্যে যিশু জেনো গ্যালেলিও হাইপেশিয়াসহ আরো অনেকেই আছেন। আমাদের দেশে সম্প্রতি জ্ঞানবিজ্ঞানের চর্চা বেড়েছে বা বাড়ছে এরই প্রমাণ একে একে হুমায়ুন আজাদ, ব্লগার রাজিব বা হালে অভিজিত রায়ের হত্যা। সক্রাতেস প্রথাগত সমাজের সঙ্গে তর্ক করে বুঝতে চেয়েছিলেন যে, সমাজ কতটুকু পিছিয়ে আছে। আসলে সক্রাতেসের সব তর্কের পেছনেই আছে মানুষের মঙ্গল চিন্তা। প্লাতনের মাধ্যমে যেই সক্রাতেসকে আমরা বুঝি, তিনি আগাগোড়াই একজন ইন্টেলেকচুয়াল বা বিদ্বজ্জন। সব বিষয়আশয় নিয়েই তিনি চিন্তাভাবনা করেছেন। কিন্তু গতানুগতিকতার স্রোত থেকে এরপর আলাদা করেছেন নিজেকে। কিন্তু অন্যসব মানুষ সক্রাতেসের মতো চিন্তায় এগিয়ে যেতে পারেননি। ফলে সক্রাতেস ক্রমাগত তাদের কাছে আলাদা হতে হতে তাদের অপরে পরিণত হন। তিনি একা হয়ে যান। তার চিন্তাজগতের আশপাশে সাধারণ মানুষ নেই। যদিও তিনি সাধারণের জন্যই চিন্তা করেছেন। এমনকি আমজনতার অধিকারের কথা ভেবে সারাজনম ব্যয় করা কার্ল মার্কসের প্রলেতারিয়েতরাও মার্কসবাদী নয়। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: শাহেরীন আরাফাত

world-to-win

[নির্বাচন সম্পর্কে বামপন্থী মহলে একটা বিতর্ক রয়েছে বহুপূর্ব হতেই। কেউ বা স্থানীয় সরকার নির্বাচনের পক্ষে সাফাই দেন; কেউ বা জাতীয় নির্বাচনে যাওয়ার পক্ষে যুক্তি দেখান; আবার কেউ বা শাসকশ্রেণীর কোনো একটি অংশকে “মন্দের ভালো” জ্ঞান করে তাতেই নিজের আখের গোছাতে মত্ত হন। আবার কেউ কেউ “নির্বাচন মানেই সংশোধনবাদ” এমন তত্ত্ব ফেরি করেন। কোনো কোনো বামপন্থী সংগঠন ভারতের রাজধানী দিল্লীতে আত্মপ্রকাশ করা আম আদমি পার্টির সাথে নিজেদের মেলাচ্ছে; আবার কেউ বা এই নির্বাচনে শ্রেণী–সংগ্রামের স্বপ্নও দেখেন! এমন বিবিধ চিন্তা–চেতনায় কেউ কেউ বিভ্রান্তও হতে পারেন। তাই এ নিয়ে কিছু লেখা, তথা নির্বাচন সম্পর্কে নিজের অবস্থান তুলে ধরার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছি। এই লেখাটি যেহেতু নির্বাচন সম্পর্কিত অবস্থান; তাই এখানে সংক্ষিপ্তাকারে হলেও এভূখণ্ডে পুঁজিবাদ–সাম্রাজ্যবাদের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরাটা জরুরী। আর এর মাধ্যমে ইতিহাস ও মতাদর্শের আলোয় বাংলাদেশের আর্থ–সামাজিক কাঠামোর সাথে নির্বাচনের বিষয়টি মিলিয়ে দেখা সম্ভব হবে বলেই আমার ধারণা।।]

(বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আহমেদ মহিউদ্দিন

felani-21গত ৭ জানুয়ারী ২০১৫ ছিল বিশ্বব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টিকারী ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী কর্তৃক বাংলাদেশের ১৫ বছর বয়সী কিশোরী ফেলানিকে নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের চতুর্থবর্ষ। ফেলানি একটা নাম, যা ২০১১ সালের ৭জানুয়ারী বিশ্ববাসীর সামনে বাংলাদেশের মানুষের প্রতি প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত কর্তৃক ঘৃণ্য মনোভাবের করুণতম চিত্র প্রকট করেছিল। সারা বিশ্ববাসীর সামনে এই ঘটনা উলঙ্গভাবে প্রকাশ পেলেও এর এখনও পর্যন্ত হতাশাজনক খবর হচ্ছে ভারতীয় আদালত কর্তৃক খুনি বিএসএফ সদস্যের বিরুদ্ধে কোন প্রমান না পাওয়ার অজুহাতে বেকসুর খালাস প্রদান। যদিও ফেলানির বাবার আপত্তির মুখে এই খুনের মামলার পূণরায় রিভিশন চলছে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: নেসার আহমেদ

Fukushima-nuclear-disaster২০১৩ সালের ১৫ জানুয়ারি। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাশিয়া সফর করেন। ওই সফরে প্রেসিডেন্ট পুতিনের সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৮ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র ক্রয়সংক্রান্ত একটা ঋণচুক্তি স্বাক্ষর হয়। যা আমরা কমবেশি সবাই জানি।

ওই একই সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে রাশিয়ার আরেকটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষর হয়। যাকে পরমাণুশক্তি নির্ভর বিদ্যুৎ প্রকল্প চুক্তি বলা হচ্ছে। যা ঈশ্বরদীর রূপপুরে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কথা। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ২০১৩ সালের ২ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে তার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন এবং সরকারের পক্ষ থেকে আরো জানানো হয় যে, রূপপুরে একটি নয় দুই দুইটি পরমাণুশক্তি নির্ভর বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন করা হবে। যার এক একটির উৎপাদন ক্ষমতা হবে ১০০০ মেগাওয়াট করে। তার সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য ৪,০০০ কোটি টাকার ঋণচুক্তি করা হয়েছে। তবে প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে প্রায় ২ বিলিয়ন ডলার। যার ৯০ ভাগ বহন করবে রাশিয়া। আর ১০ ভাগ বহন করতে হবে বাংলাদেশকে। এবং এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ২৬০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এখানে যে রিঅ্যাক্টর ব্যবহার করা হবে তার নাম VVER-1000। যা নাকি সর্বোচ্চ ৮ মাত্রার ভূমিকম্পের মধ্যে টিকে থাকতে সক্ষম। এ ভাষ্যটি অবশ্য রাশিয়ানদের। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ফারুক আহমেদ

Education-654শিক্ষা হঠাৎ কোন পন্ডিত বা বুদ্ধিজীবীর মস্তিষ্ক থেকে উৎসারিত বিষয় নয়। শিক্ষা কোন পন্ডিতের পান্ডিত্য দ্বারা আবিষ্কারেরও বিষয় নয়। শিক্ষা হলো গোটা মানব সমাজ কর্তৃক অর্জিত জ্ঞান ভান্ডার। শিক্ষা কিভাবে অর্জন করতে হয় এবং পরবর্তী মানব শিশুর মধ্যে কিভাবে সঞ্চারিত করতে হয়, শিশু থেকে শুরু করে পরিণত বয়সের মানুষকে পর্যন্ত কিভাবে মানব সমাজের আর্জিত জ্ঞানের সাথে পরিচিত করতে হয় তাও মানব সমাজ কর্তৃক নির্ধারিত। শ্রেণী স্বার্থের রক্ষকের দায়ীত্বপ্রাপ্ত পন্ডিতরা নানা কৌশলে বরাবরই সেই পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। শ্রেণী স্বার্থেও এক ধরণের শিক্ষার প্রয়োজন পড়ে। শ্রেণী স্বার্থের রক্ষক পন্ডিতবুদ্ধিজীবীরা শ্রেণী সেবক তৈরীর জন্য যতটুকু প্রয়োজন ঠিক ততটুকু শিক্ষার ব্যবস্থা করারই তত্ত্ব নির্মাণকারী। এই নির্মাণেই তাদের পান্ডিত্য এবং বুদ্ধিজীবীতা। কোন সমাজে কতটুকু শিক্ষা থাকবে, তার বৈশিষ্ট্য কেমন হবে, শিক্ষার মান কেমন হবে তা নির্ধারিত হয় সেই সমাজের শাসক শ্রেণীর শ্রেণী চরিত্রের ওপর। বাংলাদেশে শিক্ষার যে দুরবস্থা চলছে, এখানে শিক্ষাকে যেভাবে আক্রান্ত করা হয়েছে, শিক্ষাকে আক্রান্ত করতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের যেভাবে আক্রান্ত করা হচ্ছে, সকল শিক্ষার্থী বিশেষ করে শিশুদের যেভাবে মানসিক অসততার ভয়াবহতার মধ্যে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে তা এখানকার শাসক শ্রেণীর শ্রেণী চরিত্রেরই প্রতিফলন। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ফারুক আহমেদ

ak-khandokar-bookমুক্তিযুদ্ধের উপসর্বাধিনায়ক এয়ার ভাইস মার্শাল আব্দুল করিম খন্দকারের লেখা বই ১৯৭১ : ভেতরে বাইরেনিয়ে অনেকেই লিখেছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ এবং আওয়ামী লীগের ক্ষমতার কৃপাপ্রার্থীদের লেখার মধ্যে কোন যুক্তি না থাকলেও আওয়াজ অনেক বড়। কিন্তু তর্জনগর্জনের মধ্যে সবকিছু চাপা পড়ে যায় না। প্রশ্নকে উপেক্ষাও করা যায় না, স্থায়ীভাবে দাবিয়েও রাখা যায় না। বাংলাদেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার দীর্ঘ লড়াইসংগ্রামে ১৯৭১ সালে মুক্তির জন্য মানুষের লড়াই বিরাট ঘটনা। ঘটনা যত বড় হয় তাকে পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে জানার আগ্রহও মানুষের ততই গভীরহয়। জানা এমন এক বিষয় যে, ক্ষমতাবানরা যা জানাবেন তাকেই পূর্ণ জ্ঞান করা যায় না। জানা পূর্ণতা পায় প্রশ্নের মধ্যদিয়ে প্রাপ্ত উত্তর থেকে। ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশের মানুষের শোষণমুক্তির লড়াইয়ের মাইলফলক। তাই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রশ্ন মানুষের সামনে বার বার আসতেইথাকবে। মুক্তিযুদ্ধে মানুষের ভুমিকা কি ছিল, পরবর্তীতে যারা ক্ষমতাসীন হয়েছিলতাদের ভুমিকা কি ছিল, নের্তৃত্বের ভুমিকা কি ছিল, যুদ্ধের পরিকল্পনা কি ছিল এরকম অনেক প্রশ্ন মানুষের সামনে আসছে এবং আসবে। সেসব প্রশ্নের উত্তর মানুষ খুঁজতেই থাকবেন। এদেশের মানুষ একটি বুঝ থেকে মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন। মানুষের সংগ্রামের কেন্দ্রীকতার জন্য, দিক নির্দেশনার জন্য নের্তৃত্বের প্রয়োজন পড়ে। মানুষের বুঝ এবং চাওয়ার সাথে মিলে যাওয়ার শর্তে মানুষ নের্তৃত্বের উপর আস্থা রাখেন। মানুষ যেমন নের্তৃত্বের উপর আস্থা রাখেন তেমনই নের্তৃত্বেরও দায় থাকে। ১৯৭১ সালেরমুক্তি যুদ্ধে মানুষ যেসব নের্তৃত্বের উপর আস্থা রেখেছিলেন সেসব নের্তৃত্ব মানুষেরআস্থার দায় কিভাবে মিটিয়েছিলেন এ প্রশ্ন উঠতেই থাকবে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আবিদুল ইসলাম

Russian President Putin shakes hands with Bangladesh PM Hasina during their meeting in Moscow's Kremlinএ বছরের প্রথম দিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক সরকারি সফরে রাশিয়া গমন করেনপ্রায় ৪০ বছর পর এটি ছিল বাংলাদেশ থেকে শীর্ষ পর্যায়ে রাশিয়ায় দ্বিপক্ষীয় সফরসফরকালে সে দেশের সাথে তিনি কয়েকটি চুক্তি করেছে, যার মধ্যে অন্যতম ছিল গত ১৫ জানুয়ারি,০০০ কোটি টাকার অস্ত্র ক্রয়সংক্রান্ত হাসিনাপুতিন ঋণচুক্তিএছাড়া অন্য যে কয়টি চুক্তি সে সময় সম্পাদিত হয়েছিল তার মধ্যেপাবনা জেলার ঈশ্বরদীর রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ চুল্লি নির্মাণের বিষয়ে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের লক্ষ্যে ৫০০ মিলিয়ন ডলার বা ৪,০০০ কোটি টাকার ঋণচুক্তিটি ছিল বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্যগত ২ অক্টোবর শেখ হাসিনা রূপপুরে এই প্রকল্পের প্রাথমিক ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেনবুধবার বেলা ১১:১২ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রকল্পের উদ্বোধন করেনএ সময় তার সঙ্গে ছিলেনপরিকল্পনামন্ত্রী এ কে খন্দকার, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু,বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানরোসাটম ও আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি কমিশনের (আইএইএ)এরকর্মকর্তাগণ (বিস্তারিত…)


জন এম. কোয়েইটজি

অনুবাদ: বখতিয়ার আহমেদ

m-j-coetzeeনাথানিয়েল হ্যাথর্ন তার ‘স্কারলেট লেটার’এ লিখেছিলেন, “একটি উপনিবেশ যখন কোথাও শেকড় গাড়ে, নিতান্তই বাস্তব প্রয়োজনে, একেবারে শুরুতেই যে পদক্ষেপটি নেয় তা হল অধিকৃত ভূমির একটি অংশে গোরস্থান এবং আরেকটি অংশে কারাগার স্থাপন”। উপনিবেশ হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকাও এর ব্যতিক্রম নয়, দেশটির সারা মুখ জুড়ে গুটি বসন্তের দাগের মত ছড়িয়ে আছে অসংখ্য কারাগার, হ্যাথর্ন যাদের নাম দিয়েছিলেন “সভ্য সমাজের কালো ফুল”। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ফারুক আহমেদ

election-2013নবম সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামীলীগ যে নির্বাচনী ইশতেহার জনগণের সামনে হাজির করেছিল সরাসরি অন্যায় সুবিধা প্রাপ্তরা ছাড়া দেশের ব্যাপক অধিকাংশ মানুষ পরবর্তীতে উপলব্ধি করেছেন, তা ছিল একটি রাজনৈতিক দলের প্রতারণার দলিল। সারা দেশে শহর, বন্দর, গ্রাম, গঞ্জের সর্বত্র জনগণের শ্রমার্জিত কোটি কোটি টাকায় নির্মিত বিলবোর্ডগুলো প্রতারণার সেই সাক্ষ্য বহন করে চলেছে। বিলবোর্ডের মিথ্যা সাজানো গল্প মানুষ বিশ্বাস করতে পারে না, কারণ মানুষ ভুক্তভোগী। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: কল্লোল মোস্তফা

.

Shaheed_Minarভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণকারীদের শ্রেণী অবস্থান, রাজনৈতিক দর্শন, অংশগ্রহণের অনুপ্রেরণা ইত্যাদি সম্পর্কে ১৯৮৫৮৬ সালে ১২৩ জন ভাষা সংগ্রামীর মধ্যে একটি জরিপ পরিচালনা করা হয়। উর্দু একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হলে বাঙালির আর্থসামাজিক ও সাংস্কৃতিক বিকাশ বাধার সম্মুখীন হবে বলে ভাষা আন্দোলনকারীদের মধ্যে একটা আশংকা ছিল। উর্দু একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হলে তাদের ব্যাক্তিগত ক্ষতি কি ধরণের হবে বলে তারা ভেবেছিলেনএ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে তাদের অনেকেই (১২৩ জনের মধ্যে ৪৪ জন) বলেছিলেন যে, ব্যাক্তিগত ক্ষতির কথা তখন তাদের ভাবনায় ছিল না। (বিস্তারিত…)