Posts Tagged ‘প্রতিরোধ’


গ্রন্থ পর্যালোচনা :: মুখোশ ও মুখশ্রী

লিখেছেন: লাবণী মণ্ডল

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী রচিত মুখোশ ও মুখশ্রী বইটি শেষ করার মধ্যদিয়ে এটুকু আরও পরিষ্কার হলো যে, জানার কোনো শেষ, শেখারও কোনো শেষ নেই। জীবন মানেই জানা আর শেখা। সেই জানাকে কাজে লাগানোর জন্য, মানুষের জন্য কিছু করার জন্য মানুষের মধ্যে নিজের জ্ঞানকে বিতরণ করার ক্ষুদ্র প্রয়াস এ লেখাটি। একইসাথে এ লেখার যে কোনো মতামত আমাকে বিকশিত করবে বলে প্রত্যাশা করছি।

পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম বন্ধু বই। এখন পর্যন্ত এ সত্যটিকে বিশ্বাস করতে চাই, এ কথাটির উপর আস্থাও রাখতে চাই। একটা বই যে মানুষকে কতটা আন্দোলিত করতে পারে তা তো আর বলে বুঝানো যাবে না। তবে আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকেই বলছি, বই আমাকে বেঁচে থাকার প্রেরণা দেয়। নিজেকে নতুন করে ভাবার জন্য, নতুন করে আবিষ্কার করার জন্য সহযোগিতা করে। যা হোক, মুখোশ ও মুখশ্রী বইটি পড়ে বেশ কিছু প্রশ্ন এরই মধ্যে আমার চিন্তাজগতে প্রবেশ করেছে। যে প্রশ্নগুলোর উত্তর পাওয়ার জন্য আরও কিছু বইয়ের দারস্থ হতে হবে। আলোচ্য বইটিতে মোট দশটি প্রবন্ধ রয়েছে। প্রতিটা প্রবন্ধই চিন্তার উদ্রেক ঘটায়। অভাব, সংস্কৃতি, চেতনা, সাহিত্য, সঙ্গীত, চলচ্চিত্র, চিত্রকলা সম্পর্কেও স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায় এ বইটি থেকে। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: অভয়ারণ্য কবীর

বাংলাদেশের সাম্প্রতিক আন্দোলনগুলোর চরিত্রকে পাল্টে দিচ্ছে যে আন্দোলন, তা হলো চলমান ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনএই আন্দোলন যারা করছে, তারা হলেন ‘সকাল আটটানটার সূর্য’তাদের আটকানোর মতো কোনো শক্তি নেইতাদের থামিয়ে দেয়ার মতো কোনো ট্যাঙ্ক নেই, নেই কোনো জলকামানশিক্ষার্থীদের একটি স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভ যে রাজনৈতিক ভারিক্কি ধার করে, তার অনেকটা এই কিশোরের দল ছাড়িয়ে গেছেতাদের থেকে বাংলাদেশের সকল বিপ্লবীদের শিখতে হবেএখানেই ‘জনগণের কাছ থেকে শেখো’ তত্ত্বের বাস্তব প্রয়োগের প্রশ্ন চলে আসেএটা না করে প্রথমেই তাদের শেখাতে যাওয়া হবে বিরাট মাপের ভুল (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: নীলিম বসু

narendra-modiএই লেখা যে সময় লিখছি তখন ছত্তিশগড়ে সালয়া জুড়ুমের নবপর্যায় ঘোষিত, মুম্বাইতে এক বহুজাতিক হীরে রপ্তানী সংস্থায় চাকরির আবেদন করে এক মুসলমান প্রার্থী জবাব পেয়েছেন যে, ঐ কোম্পানী শুধু অমুসলমান নাগরিকদের চাকরি দেয় (যদিও এই নিয়ে সংবিধান অবমাননা, এফআইআর, কোম্পানীটির মধ্যে দায় এড়ানোর নাটক চলছে), দেশের দুটি রাজ্যে গোরু হত্যা নিষিদ্ধ করার মাধ্যমে একটা বড় অংশের নাগরিকের রুটিরুজি ও খাদ্যাভ্যাসে হস্তক্ষেপ করা হয়ে গেছে, নিহত হয়েছেন কুসংস্কারবিরোধী আন্দোলনের কর্মী, গত ১ বছরে ঘটে গেছে কমবেশি ৫০০টি ছোটো বড় সাম্প্রদায়িক হিংসা (পড়ুন সংখ্যালঘুদের ওপর আক্রমন), সংখ্যালঘু নিধনে অভিযুক্তরা বেকসুর খালাস পেয়েছেন কোর্ট থেকে, ‘ঘর ওয়াপসী’ নামক এক বিশাল ধর্মান্তকরণ কর্মসূচী দেশজুড়ে চলমান ইত্যাদি। এর সাথে ভারতের লোক দেখানো সংসদকেও এড়িয়ে গিয়ে অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে শাসক দলের ইচ্ছা অনুযায়ী আইন তৈরির এক ধারাবাহিকতা দেখা যাচ্ছে, বিপ্লবী আন্দোলন দমনে সেনা নামানোর হুঙ্কার শোনা যাচ্ছে, গুজরাটে জারী হয়েছে ঘৃণ্য কালা কানুন (যা আজ বা কাল আমরা কেন্দ্রীয় স্তরেও দেখতে পাবো)। কর্পোরেট ও রাষ্ট্রের হাত মেলানোর প্রমান কেন্দ্রীয় বাজেট (কৃষিতে ব্যয় বরাদ্দ কমানো, ১০০ দিনের কাজের মতো সামাজিক প্রকল্পগুলিতে যেটুকু ব্যয় বরাদ্দ ছিল, তাও কমিয়ে একই সাথে কর্পোরেট বেল আউটে বরাদ্দবৃদ্ধি ও গ্রামীন সামন্তশ্রেণীর বহুদিনের দাবী মেটানোর মাধ্যমে রাষ্ট্রের আধাসামন্ততান্ত্রিক আধাঔপনিবেশিক চরিত্রকে শক্তিশালী করার বাজেট) (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: নীলিম বসু

Modi-1ক্ষোভ, যন্ত্রণা, হতাশা,রাগ অনেক জমে আছে এই দেশটায়। হিন্দু ফ্যাসিবাদী শক্তি সেগুলো গড়ে ওঠার জন্য দায়ী নয় কোনোভাবেই। আসাম্যমূলক শোষক সমাজে সেগুলো থাকবেই। সেগুলোকে কাজে লাগিয়ে তার স্বাভাবিক গতিপথকে পালটে দিয়ে অসাধারণ ধৈর্য্য, কৌশল, চাতুর্য্য ও নৈপূণ্যের সাথে হিন্দু ফ্যাসিবাদীরা নিয়ে যাচ্ছে এক বিকৃত ও মিথ্যা অহংকারের দিকে দেশটাকে। যে দেশের জনগণের ৮০% দিনে ২০ টাকার চেয়ে বেশি খরচ করতে পারে না, যে দেশের জনগণ ক্রমাগত উচ্ছেদ হচ্ছেন বা হওয়ার জন্য দিন গুনছেন তাঁদের বাসভূমিসংস্কৃতিভাষাজীবিকা থেকে তাঁকে একটা কিছুর গর্বে তো গর্বিত করে তুলতে হবে, না হলে কিভাবে জুটবে সস্তা শ্রম, বিশাল বাজার, অনিয়ন্ত্রিত মুনাফা! তাই সেই গর্ব হোক এমন কিছুর, যা সে ব্যক্তিগত বা সমবেত প্রচেষ্ঠায় কোনোভাবেই অর্জন করতে পারবে না; এমন কিছু, যা কাল্পনিকধূলোমাটির থেকে বহু দূরের, অলিক। এই অবাস্তব গর্বের খুড়োর কল এই দেশে গড়ে তুলছে এক রণক্ষেত্র। যে রণক্ষেত্রে শ্রেণীবন্ধুরাই অস্ত্র ধরেন শ্রেণীবন্ধুদের বিরুদ্ধে। মনে পড়ে ২০০২ গুজরাট? যেখানে দেশের তৃতীয় দরিদ্রতম জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হয়েছিলেন দেশের দরিদ্রতম দুই জনগোষ্ঠী দলিত ও আদিবাসীরা? যে গুজরাটে হাজার বছর ধরে উচ্চবর্ণ, তথা হিন্দু ব্রাহ্মণ্যবাদীদের হাতে শোষিত, অবহেলিত, বঞ্চিত দলিতআদিবাসীরা তাঁদেরই শোষকদের নির্দেশে নেমে পড়েছিল মুসলিম নিধনে। দায় কার? এ তো আমরা ১৯৩০এর জার্মানি থেকে দেখে আসছি যে, কমিউনিস্টরা বাস ধরতে না পারলে, সেই বাসে উঠে নিজেদের লক্ষ্যে পৌঁছতে চায় ফ্যাসিবাদিরা। কোথাও রাইখস্ট্যাগ পোড়ে, তো কোথাও সবরমতি এক্সপ্রেস কোথাও আর্য শ্রেষ্ঠত্বের শ্লোগান, তো কোথাও হিন্দুরাষ্ট্রের আওয়াজ, এই তো পার্থক্য। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সুস্মিতা চক্রবর্তী

bondukকতটা পীড়ন রক্তের মত ঝরে!

ওরা গুম হয় ওরা খুন হয়,

দেশে দেশে ঘরে ঘরে!

বঞ্চনাভরা ওদের বসতি,

কেড়ে নেয়া মাঠে ওদেরই অস্থি; (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: পাইচিংমং মারমা

CHT-8-মনে করুন আপনি কোথাও বাসে চলেছেন। কানে হেডফোন গুঁজে প্রিয় একটা গান চালাতেই আপনার পাশে বসা সহযাত্রী হর হর করে বমি করে দিলো আপনার কোলের উপর। আপনার গান শোনা আর জানলা দিয়ে প্রকৃতি দেখা বমির টক গন্ধে, বিবমিষায় ভরে গেলো। এরপর সেই পার্শ্ববর্তী যাত্রী আপনার সামনে, আপনার পাশে বারবার বমি করলো। আপনার গোটা যাত্রাপথটাই সে নোংরা করে দিলো। কানে গুঁজে দেওয়া মিষ্টি মিষ্টি প্রেমের গানগুলো সে বমির গন্ধে টক বানিয়ে দিলো। কেমন লাগবে? (বিস্তারিত…)


dabanol-1দেশ এক অন্তহীন সংকটে প্রবাহমান। বাংলাদেশ নামক এই মৃত্যু উপত্যকায় কৃষকশ্রমিক ও শ্রমজীবি মানুষের রক্ত ঝরছে অবিরাম। লুটপাটকারি শাসকগোষ্ঠীর সর্বগ্রাসি ক্ষুধায় ধ্বংস হচ্ছে আমাদের জীবন, সংস্কৃতি প্রকৃতি ও সম্পদ। লুটের বিশাল সম্পদের বেশির ভাগটাকে ভোগের জন্য শাসকগোষ্ঠীর ভেতরে হিংস্রতার কামড়াকামড়ি বিদ্যমান। এই কামড়ে লুটেরেরা যতোটা না পরস্পর পরস্পরকে রক্তাক্ত করছে তার চেয়েও অনেক বেশি রক্তাক্ত হচেছ একটি সুন্দর স্বপ্ন নির্মাণের সংগ্রামে জড়িত কৃষকশ্রমিক ও শ্রমজীবি সাধারণ মানুষেরা। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মিঠুন চাকমা

The_first_nupilaln_1904_(women_agitation_against_british)নুপি লান একটি মনিপুরী শব্দগুচ্ছ। এর অর্থ হচ্ছে নারীদের সংগ্রাম। মনিপুরী মহারাজ ও ব্রিটিশ সরকারে বিরুদ্ধে মনিপুরী নারীরা এই সংগ্রাম সংঘটিত করে। মনিপুরে এ সময় ব্রিটিশ সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে ছিলো মি. জিম্পসন (১৯৩৩১৯৪৫)। মনিপুরী সরকারের অর্থনৈতিক ও প্রশাসনিক শোষনমূলক নীতির বিরুদ্ধে মনিপুরী নারীরা এই সংগ্রাম করেছিল। এই সংগ্রামের কারণে শেষপর্যন্ত মনিপুরী সরকার শাসনতান্ত্রিক ও প্রশাসনিক সংস্কার করতে বাধ্য হয়েছিল। এই সংগ্রাম মনিপুরের ভবিষ্যত লড়াইকেও প্রভাবিত করেছিল। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মাহাবুব হাসান

che-5মৃত্যুর স্বপ্ন কী উন্মত্ত উড্ডীন ছিলো

যখন বাতাসে হেমন্তের গন্ধে ভরা রোদের জমকালো দুপুরগুলো বিকেলের পথ ধরে গোধূলীতে এসে উত্তাল লালে সমস্ত পৃথিবীকে জানিয়ে যাচ্ছিল তার সন্ধিলগনের মাহেন্দ্র পার্বণের কথা। তখনও বলিভিয়া সামরিক কালো থাবায় মানুষের অধিকার স্বাধীনতা নখের আঁচড়ে রক্তাক্ত ভূলণ্ঠিত। যেমন ছিলো কিউবায়। সাম্রাজ্য হায়েনার হাতে বন্দী।হাতে মিলল হাত বইয়ের পাতা থেকে জীবন্ত ও অত্যাবশকিয় হয়ে উঠলেন কার্ল মার্ক্স এর লাল ইস্তেহার (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: পাইচিংমং মারমা

() সোজা হিসাব

hill killing-1কে কে পাহাড়ের আদিবাসী সংস্কৃতির বিকাশ চান?

নিশ্চয় সবাই চান। এবার বলুন

কে কে পাহাড়ে পর্যটনের প্রসার চান?

অনেকেই চান। কেন চান?

আপনারা বলবেন, কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে। মানুষের আয় রোজগার বাড়বে। এলাকার উন্নয়ন হবে। দূর্গম অঞ্চলে রাস্তাঘাট হবে। আমরা আধুনিক দুনিয়ার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারবো। আমরা নেংটি ছেড়ে জিন্সের প্যান্ট পরবো। আমরা উন্নত হবোইত্যাদি ইত্যাদি। (বিস্তারিত…)