Posts Tagged ‘নয়া উদারবাদ’


লিখেছেন: অজয় রায়

ভারতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের তিন বছর পূর্ণ হয়েছে গত মে মাসে। যা খুব জাঁকজমক করে পালন করা হয়। তবে এ তিন বছরে দেশটির আমজনতার দুর্দশা আরও বেড়েছে। গত ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে ভারত সরকার নয়াউদারবাদী নীতি ধারণ করে চলেছে। তবে এক্ষেত্রে বিগত কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট সরকার থেকেও বেশি জোর কদমে দেশ বেচার এই জনবিরোধী নীতিকে কাজে পরিণত করতে উঠে পড়ে লেগেছে বর্তমান বিজেপি সরকার। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: অজয় রায়

%e0%a6%ab%e0%a6%bf%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%b2-%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a7%8bগত ২৫ নভেম্বর কিউবা বিপ্লবের শীর্ষ নেতা ও দেশটির সাবেক রাষ্ট্রপতি ফিদেল কাস্ত্রো রুজ প্রয়াত হয়েছেন।[] বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। তিনি ছিলেন বিংশ শতকের মার্কিন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী বিদ্রোহের এক মূর্ত প্রতীক। সুপারপাওয়ার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দোরগোড়াতেই কিউবায় তিনি গত প্রায় পাঁচ দশক ধরে সরকার পরিচালনা করেছিলেন। তাঁকে ক্ষমতাচ্যুত করার চেষ্টা হয়েছে অনেকবার। হত্যার চেষ্টাও হয়েছে। ২০০৬ সালের জুলাইয়ে অবশ্য ফিদেল অসুস্থতার দরু রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব হস্তান্তর করে দেন তাঁর ভাই রাউল কাস্ত্রোকে, যিনি সে সময় কিউবার উপরাষ্ট্রপতি ছিলেন।[] (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অজয় রায়

narendra-modi-one-year-1কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদী সরকারের এক বছর পূর্ণ হতে চলেছে। এর মধ্যেই তারা সাম্রাজ্যবাদের স্বার্থবাহী অবস্থান নিয়েছে। আর দেশ বিক্রির বাজারমুখী সংস্কার নীতি গ্রহণের পাশাপাশি সাম্প্রদায়িক ফ্যাসিবাদের পথ প্রশস্থ করেছে। মোদীর নির্বাচনী প্রচারে বিপুল অর্থ ঢেলেছিল কর্পোরেট মহল। যাদের প্রতিদানে ব্যাপক সুযোগসুবিধা পাইয়ে দিতে উঠে পড়ে লেগেছে বিজেপি সরকার। বিগত ইউপিএ সরকারের থেকেও বেশি জোর কদমে বিশ্বায়নের নয়াউদারবাদী নীতি গ্রহণ করছে এরা। আর সেই সঙ্গে লুম্পেন উন্নয়নের পথে হাঁটছে। যাতে মুষ্টিমেয় ধনীদের স্বার্থ সিদ্ধি হচ্ছে। আর মেহনতি মানুষের রুটিরুজি ও অর্জিত অধিকারের উপর আঘাত নেমে আসছে। (বিস্তারিত…)


বাংলাদেশ পরিস্থিতি নয়া উদারবাদী যুগে শাসনপ্রনালী ও কথকতা” নামের প্রকাশিতব্য সংকলনের প্রবন্ধ

লিখেছেন: বখতিয়ার আহমেদ

book-cover-1[সংকলকের ভূমিকা: আমাদের সমাজে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার নানান অভিঘাতকে নির্মোহ দৃষ্টিতে বিশ্লেষণ করে থাকেন বখতিয়ার আহমেদ। রাবির নৃবিজ্ঞান বিভাগের এই শিক্ষক যে গরীব কৃষকশ্রমিকের টাকায় যে জ্ঞানচর্চা করেন; তা একটিবারের জন্যও ভুলে যান না। সমাজে ক্ষমতাশালী কোনো অংশের প্রতিনিধিত্ব করেন না তিনি। করেন না বলেই রাষ্ট্রআইনকানুননিও লিবারাল বাজারের আধিপত্যকে নৃবৈজ্ঞানিক অবস্থান থেকে নির্মোহ বিশ্লেষণ করতে পারেন তিনি।

বখতিয়ার আহমেদের কাছে প্রথমে লেখা চেয়েছিলাম এই সঙ্কলনের জন্য। পরে সময় বিবেচনায় নিয়ে এবং কাজের ব্যাপারে তার পারফেকশান আর ধীর গতির (দুটোই আমার কাছে ইতিবাচক। সেকারণেই তিনি যা বলেন/লেখেন তা জরুরি হয়ে ওঠে। হুটহাট বলেন না বলেই।) কথা মাথায় রেখে ফন্দি আঁটি কোনোভাবে একটি বক্তৃতা করিয়ে নেয়া যায় কিনা তাঁকে দিয়ে। (বিস্তারিত…)