Posts Tagged ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকার’


লিখেছেন: বাধন অধিকারী

21-august-2007-procession২০০৭ এর আগস্টে সেনাকর্পোরেট জরুরিক্ষমতার সরকারের কালে সংঘটিত ছাত্র বিক্ষোভের পর এইবার দিয়ে চতুর্থবারের মতো ২০২১২২ তারিখ উদযাপিত হচ্ছে। কিন্তু যে প্রশ্নকে সামনে রেখে আমরা কিছু শিক্ষকশিক্ষার্থী সেনাকর্পোরেট কর্তৃত্বের মহাজরুরি ক্ষমতার সেই সরকারের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলাম; বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতার সেই প্রশ্নটিকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেনাসদস্য কর্তৃক শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনাকে আমরা নিছক একটি নির্যাতনের ঘটনা হিসেবে দেখিনি। একে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতায় রাষ্ট্রীয় জরুরি ক্ষমতার অন্যায্য হস্তক্ষেপ বিবেচনা করেছি। সুমহান জনযুদ্ধের ৭১’এর প্রেরণায় স্বাধীন বাংলাদেশে যে জনমত ছিল;সেই জনমত বঙ্গবন্ধুর সরকারের কাছে থেকে আদায় করে নেয় ৭৩’এর অধ্যাদেশ; বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসনের দলিল। সেই অধ্যাদেশের প্রেরণাটুকুকে উপজীব্য করে আমরা ক’জন মাত্র শিক্ষকশিক্ষার্থী (পরে আরও ক’জন যুক্ত হয়েছিল। সবমিলে মোটামোটি ৮০ জন ছিলাম) মৌন মিছিলে দাঁড়িয়েছিলাম। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: ফারহান হাবীব

election-2013এই লেখাটা যখন লেখা শূরু করেছিলাম তখন প্রায় রাত সাড়ে দশটা। লেখা শুরুর প্রায় মিনিট দশেক আগে ঔষধ কিনতে বের হয়েছিলাম। অনেক খোজাখুজি করে একটি দোকানে ঔষধ পাই। পল্টন এলাকা সাধারণত রাত ১টা পর্যন্তও সরগরম থাকে। কিন্তু আজ চিত্রটা পুরোই ভিন্নরকম। রাত সোয়া দশটায় ঢাকাকে একটা মৃত্যুপুরী মনে হয়েছে আমার। দু’একটা রিকসা চলছে আর অল্প কিছু মানুষ। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শাহেরীন আরাফাত

election-2013গত কয়েকদিন দেশের প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া ছিল বেশ সরগরম, যার মোদ্দা কথা চার সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন। যেহেতু বর্তমান প্রেক্ষাপটে সরকারের তরফে কেবল ঘরোয়া রাজনীতিই বৈধ রাখা হয়েছে, তাই রাজনৈতিক বিশ্লেষণের হিসেব কষা ও প্রচারাভিযানের কাজে শাসক শ্রেণীর সরকারী ও বিরোধী অংশ উভয়েই বেশ ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে এখানকার ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, তথা টক শোগুলোতে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: আবিদুল ইসলাম

khaleda-zia-4-বর্তমান আওয়ামী লীগনেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গণতান্ত্রিকভাবে দেশ চালাচ্ছে একথা বর্তমানে তাদের অন্ধ সমর্থক ছাড়া আর কেউই বলবেন না। বিগত কয়েক বছরের মানবাধিকার পরিস্থিতি, সন্ত্রাসনির্যাতনধর্ষণগুমখুন, জনগণের অর্থ লোপাট, নিরাপত্তাহীনতা, নৈরাজ্য থেকে শুরু করে প্রতিটি ক্ষেত্রেই দুঃশাসন নতুন মাত্রা অর্জন করেছে। এর বিরুদ্ধে খুব কার্যকরভাবে না হলেও জনগণের ক্ষোভ বৃদ্ধি পাচ্ছে। জনসাধারণ বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে একত্র হয়ে এসবের প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। এমনকি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ব্যানার থেকেও বর্তমানে চলমান যাবতীয় অনাচারঅত্যাচার থেকে রেহাই পাওয়ার দাবি জানিয়ে সমাবেশমিছিলঅনশনমানববন্ধন ইত্যাদি করা হচ্ছে। এসব দাবি ও দাবি প্রকাশের ধরন ইত্যাদির কার্যকারিতা নিয়ে অনেক রকম প্রশ্ন ও বিতর্ক তোলা যেতে পারে। কিন্তু এসব যে হচ্ছে তার মধ্যে দিয়েই আন্দাজ পাওয়া যায় বর্তমান সরকারের অধীনে দেশ কতোটা ‘ভালোভাবে’ চলছে। নিজেদের গণবিরোধী শাসনসৃষ্ট প্রতিক্রিয়ায় সরকার নিজেই এখন দিশেহারা। নিজেদের অপশাসনদুঃশাসন তাদের চারিদিকে যে চোরাবালির বলয় তৈরি করেছে তাতে তাদের স্বখাতসলিলে ডুবে মরার মতো অবস্থা। এজন্য যুদ্ধাপরাধীদের বিচারপ্রক্রিয়া ছাড়া বলতে গেলে তাদের হাতে এই মূহুর্তে আর তেমন কিছুই নেই। এ কারণেই এ ইস্যুটিকে তারা বারবার সামনে আনতে চাইছে, এবং বিরোধী মতের অন্যান্য সংগঠনের যেকোনো সরকারবিরোধী সমালোচনা ও আন্দোলন প্রচেষ্টাকেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচারপ্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করার ষড়যন্ত্র হিসেবে আখ্যায়িত করে বিষয়গুলো ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সত্যজিত দত্ত পুরকায়স্থ

সোজা কথা.

২০১৩ সালের নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নাকি অন্তবর্তীকালীন সরকারের অধীনে হবে এই নিয়ে বিতর্কের ফলাফল হিসাবে যাই আসুক এটা স্পষ্ট যে আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতির মান এবং এর বিকাশ খুবই দুর্বল। কারণ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার মত অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থার মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কোন যৌক্তিকতা কতটুকু প্রশ্ন সাপেক্ষ। সবচেয়ে মজার ব্যপার হলোআমাদের সভ্য নাগরিক নেতারা এই ইস্যুতে বিবাদমান দুই দলের কাছেই যখন এর জন্য সমাধান খুঁজছেন এবং তাদের দুদলকে আলোচনার টেবিলে বসার পুনঃপুনঃ আহ্বান জানাচ্ছেন। স্বভাবতই প্রশ্ন জাগে, আমরা কি আমাদের রাজনীতির ভাগ্য কি এই দুদলের কাছে ইজারা দিয়েছি? (বিস্তারিত…)