Posts Tagged ‘জেলখানা’


abstract-oil-painting-1

লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

জল কি কখনো মুছে দিতে পারে জন্মের দাগ?

আগুন কি পারে ছাই করে দিতে সব অনুরাগ?

.

কাগজ কি পারে বুকে লিখে নিতে বেদনার স্বর?

কলম কখনো খোঁজে কি বুকের চাপা অক্ষর?

.

আবেগ কি পারে জানাতে সকল গোপন কথা?

যুক্তি কি পারে ঘোঁচাতে মনের আদিখ্যেতা? (বিস্তারিত…)

Advertisements

chotrodhor-1

(উৎসর্গ: ছত্রধর মাহাতো, সুখশান্তি বাস্কে, সাগর মুর্মু, শম্ভু সোরেন, রাজা সরখেল, প্রসূন চ্যাটার্জী)

লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

এখনও তোরা ওদের বুকে কাঁপন ধরাস

তোদের জন্য বরাদ্দ তাই লোহার খাঁচা

এখনও মানুষ শপথ নিলো তোদেরই নামে

স্বপ্ন দেখার স্পর্দ্ধা নিয়ে প্রবল বাঁচার (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মাহবুব হাসান

জুলিয়াস ফুচিক

জুলিয়াস ফুচিক

প্রিয়তমা আমার, হাওয়ায় উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া নদীর ঢালু পাড়ের পর ঠেসে দেওয়া রোদ্দুরে দুটি ছোট্ট শিশুর মতো দু’জনে হাত ধরে আর কোন দিন যে আমরা বেড়াতে পারবো, তার আশা কম। আর কোনদিন যে আমরা সুখে শান্তিতে লিখতে বসবো, বন্ধুত্ব দিয়ে আমাদের ঘিরে রাখবে বই; আবার কোনদিন যে আমি লিখবো সেই সব কথা, দু’জনে আমরা যা দিনের পর দিন বসে আলোচনা করেছি, পঁচিশটা বছর ধরে যত কিছু আমার মধ্যে জমা হয়েছে, অঙ্কুরিত হয়েছে যত কিছুতার আশা কম। আমার বইগুলোকে কবর দিয়ে ওরা এরই মধ্যে আমার জীবনের একটি অঙ্গ খসিয়ে দিয়েছে। কিন্তু হাল আমি কিছুতেই ছাড়বো না; হার মেনে নিয়ে জীবনের অন্য অঙ্গটাকেও ২৬৭ নম্বরের এই সাদা একেবারে নিঃশেষে মিশিয়ে দিতে আমি রাজি নই। তাই মুত্যুর কাছ থেকে চুরি করে আনা এই সময়টুকুতে আমি চেক সাহিত্য নিয়ে লিখছি। সে লেখাগুলো যে তোমাদের হাতে পৌঁছে দেবে, তার কথা যেন কোন দিন একমুহূর্তের জন্যও ভুলে যেও না। সে ছিল বলেই মুত্যু আমাকে পুরোপুরি গ্রাস করতে পারেনি। তার দেওয়া কাগজপেন্সিল আমার মধ্যে যে আবেগ জাগায়, একমাত্র প্রথম প্রেমেই তা পারে। শব্দগুলোকে বাক্যের ছাঁচে ঢালতে গিয়ে চোখ আমার খোলে যায়; আমি অনুভব করি, স্বপ্ন দেখি। মৌলিক মালমশলা ছাড়া, গবেষণা ছাড়া লেখা শক্ত হবে। (বিস্তারিত…)