Posts Tagged ‘জাহেদ সরওয়ার’


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

rajan-murder-2015রাজন নামের শিশুটিকে খুচিয়ে খুচিয়ে মারা হলো সেটা আবার ভিডিও করা হলো ভিডিওটি আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হল। এই পুরা কর্মপ্রক্রিয়ার পেছনে যাদের কারো না কারো বুদ্ধি শ্রম পরিকল্পনা কাজ করেছে। তিনি একটা ঘটনা নির্মাণ করে চলেছেন, তিনি নির্মাণ সম্পন্ন করেছেন। এই সব ঘটনা পরম্পরায় পরিকল্পনাবিদের পরিকল্পনা দ্রুত কাজ করে চলেছে। সাম্প্রতিক অপরাধ বিজ্ঞানের ভাষায় অপরাধ ঘটানোর ক্ষেত্রে নবীন অপরাধী তার নিকটতম প্রবীন অপরাধকে ফলো করে ভেবে দেখে তার স্থান কোথায়। যখন হরহামেশা একই ধরণের অপরাধ ঘটতে থাকে। তখন নবীন অপরাধী নিজেকে আর একা ভাবেনা সে বৃহৎ এক অপরাধী সমাজের সভ্য বলে মনে করে তখন নিজেকে। (বিস্তারিত…)

Advertisements

atheism-1লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

নিজের মতবাদ বা স্বোপার্জিত সত্যের জন্য জীবন বরবাদ করে ফেলা জ্ঞানীগুণীদের মধ্যে সক্রাতেসের নাম সর্বাগ্রে। এদের মধ্যে যিশু জেনো গ্যালেলিও হাইপেশিয়াসহ আরো অনেকেই আছেন। আমাদের দেশে সম্প্রতি জ্ঞানবিজ্ঞানের চর্চা বেড়েছে বা বাড়ছে এরই প্রমাণ একে একে হুমায়ুন আজাদ, ব্লগার রাজিব বা হালে অভিজিত রায়ের হত্যা। সক্রাতেস প্রথাগত সমাজের সঙ্গে তর্ক করে বুঝতে চেয়েছিলেন যে, সমাজ কতটুকু পিছিয়ে আছে। আসলে সক্রাতেসের সব তর্কের পেছনেই আছে মানুষের মঙ্গল চিন্তা। প্লাতনের মাধ্যমে যেই সক্রাতেসকে আমরা বুঝি, তিনি আগাগোড়াই একজন ইন্টেলেকচুয়াল বা বিদ্বজ্জন। সব বিষয়আশয় নিয়েই তিনি চিন্তাভাবনা করেছেন। কিন্তু গতানুগতিকতার স্রোত থেকে এরপর আলাদা করেছেন নিজেকে। কিন্তু অন্যসব মানুষ সক্রাতেসের মতো চিন্তায় এগিয়ে যেতে পারেননি। ফলে সক্রাতেস ক্রমাগত তাদের কাছে আলাদা হতে হতে তাদের অপরে পরিণত হন। তিনি একা হয়ে যান। তার চিন্তাজগতের আশপাশে সাধারণ মানুষ নেই। যদিও তিনি সাধারণের জন্যই চিন্তা করেছেন। এমনকি আমজনতার অধিকারের কথা ভেবে সারাজনম ব্যয় করা কার্ল মার্কসের প্রলেতারিয়েতরাও মার্কসবাদী নয়। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

gaza-35আরব বিশ্ব বহুদিন ধরে পশ্চিমাবিশ্বের জ্বালানির স্থায়ী জোগানদার। তেলের খনির ওপর ভাসমান আরববিশ্ব তাই পশ্চিমাদের জন্য অপরিহার্য। মাঝখানে লাতিন আমেরিকার ভেনেজুয়েলাসহ আরো কিছু দেশের তেলের জোগান তারা হাত করতে পেরেছিল। কিন্তু লাতিন আমেরিকায় ফিদেল কাস্ত্রো ও হুগো চাভেজের নেতৃত্বে দখলদার বিরোধী চেতনা জোরদার হলে পশ্চিমাবিশ্ব সেখান থেকে একপ্রকার পাত্তাড়ি গোটায়। যদিও হুগো চাভেজের মৃত্যুর পর আবার ভেনেজুয়েলা দখলের পাঁয়তারা শুরু করেছে। অস্থির করে তুলেছে চাভেজপরবর্তী মাদুরো সরকারকে। বলা হয়ে থাকে, ভেনেজুয়েলায় সৌদি আরবের চেয়ে বহুগুণ তেলের মজুদ আছে। তবে আরববিশ্বকে তারা হাতে রেখেছে বিভিন্ন কৌশলে। আরববিশ্ব একসময় ব্রিটেন, ফ্রান্সের যৌথ উপনিবেশ ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ধীরে ধীরে আরবে পশ্চিমা উপনিবেশের অবসান হয়ে নতুন নতুন রাষ্ট্র স্বাধীনতা অর্জন করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জোরেশোরে শুরু হয় বিশ্ব সাম্রাজ্যবাদে মার্কিন নেতৃত্ব। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

workers-movement-3মানুষতো জেগে আছে

এই যে মাঠে ময়দানে অফিসে গার্মেন্টে লাখ লাখ

কোটি কোটি মানুষ ঘেমে নেয়ে উঠছে।

এই যে রাস্তায় হাটা যাচ্ছে না মানুষের ঠেলায়

বাসে জায়গা পাওয়া যাচ্ছে না, মানুষের ভীড়ে (বিস্তারিত…)

প্রকাশিত হলো মঙ্গলধ্বনির ৩য় সংখ্যা…

Posted: নভেম্বর 3, 2013 in অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক, দেশ, প্রকৃতি-পরিবেশ, মতাদর্শ, মন্তব্য প্রতিবেদন, সাহিত্য-সংস্কৃতি
ট্যাগসমূহ:, , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,

 Mongoldhoni-logo-1

মেষ শাবককে খাবার জন্যে নেকড়ের কোনো যুক্তির প্রয়োজন হয় না। কিন্তু চিঁ চিঁ ধ্বনির প্রতিবাদ নেকড়েকে প্রতিহত করতে পারে না। নেকড়েকে রুখতে হলে আকাশ বির্দীণ করা চিৎকার করতে হবে। তেমন চিৎকার একক কন্ঠে সম্ভব নয় সম্মিলিত কন্ঠে প্রবল শক্তির নির্ঘোষে হতে হবে। সেই শক্তির আবাহনের কর্তব্যবোধে ‘মঙ্গলধ্বনি’র সকল আয়োজন। জগতে একা একা কিছুই হয় না একটা কুটোও নড়ানো যায় না। তবু একা চলার সাহস দেখাতেই হবে। যে প্রথম সামনে এগোয় সে অন্যকে উৎসাহিত করে, অনুপ্রাণিত করে। একা ব্যক্তির এই ভূমিকা প্রশংসার, শ্রদ্ধার। ‘মঙ্গলধ্বনি’ প্রশংসা ও শ্রদ্ধার চেয়ে অধিক প্রত্যাশা করে সহযোগিতা ও সহমর্মিতা। আর একত্রিত হয়ে আকাশ বিদীর্ণ করা চিৎকার দেবার শক্তি হয়ে ওঠার। সে শক্তি নেকড়েদের কেবল রুখবেই না চিরতরে মানব সমাজ থেকে নিশ্চিহ্ন করে দেবে। নেকড়ে ও মানুষ এক সমাজে বাস করতে পারে না। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

sundarbansবাংলাদেশে সম্প্রতি দুইটা কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প হওয়ার জন্য সরকারি প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড’ ও ভারতীয় প্রতিষ্ঠান ‘ন্যাশনাল থারমাল পাওয়ার করপোরেশন’ (এনটিপিসি), ও জাপানি বহুজাতিক জাইকা যৌথভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। একটা বাঘেরহাট জেলা তথা সুন্দরবনের রামপাল এলাকায়। এটা করছে ভারতের এনটিপিসি কোম্পানি। অন্যটা করা হচ্ছে কক্সবাজার জেলার মহেশখালির মাতারবাড়ি ইউনিয়নে। এটা করছে জাপানি বহুজাতিক কোম্পানি জাইকা। আপাতচোখে দেশে কোনো একটা প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে মনে হয় দেশের উন্নতি হচ্ছে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

felani-1ফেলানি হত্যা দুনিয়াজুড়ে সাড়া জাগানো সীমান্ত হত্যাকাণ্ড। তারও কারণ আছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন সীমান্তে আড়ালে আবড়ালে নিয়ত হত্যা, গুম, ধর্ষণ এখন মামুলি বিষয়। বিশেষ করে এর শিকার হচ্ছে বাংলাদেশি গরীব জনগণ। ফেলানির বিষয়টা এতটা চাউর হবার কারণ হচ্ছে সে গুলি খেয়ে বিশ্বমিডিয়ার নজরে পড়ার মতো ভয়াবহভাবে ঝুলে ছিল কাঁটাতারে। এরকম আরেকটা দৃশ্য আমাদের মনে পড়ে যাবে, সার্বিয়রা যখন বসনিয়দের পাইকারিহারে হত্যা ধর্ষণ গুম করছিল। (বিস্তারিত…)


উত্তারাধিকার সূত্রে

window-6উত্তরাধিকার সূত্রে তুমি ও তুমি পেয়ে গেছো

এই দেহ ও মন। যদিও তুমি ও তোমার সাথে

কখনো সেভাবে হয় নাই মিলন।

 

দূর থেকে সূর্যের মতন তুমি টেনে নিচ্ছো আমার

জীবনের অনন্ত অধ্যায়। মিটেনা তোমার তৃষ্ণা ও ক্ষুধা (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

Crossfireন্যায় হচ্ছে শক্তিমানের স্বার্থ’ প্লাতনের রিপাবলিক কিতাবের প্রথম পুস্তকের তর্কিত এজেণ্ডাসমূহের একটি। এর আগে পলিমারকাসের ‘ন্যায় হচ্ছে দোস্তের লগে দোস্তামি আর দুশমনের লগে দুশমনি’এই যুক্তিকে সক্রাতেস কতৃক ধূলিসাৎ করা ও পলিমারকাসের পরাজয় স্বীকার করার পর থ্রাসিমেকাস এই প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন। থ্রাসিমেকাসের মতে ‘ন্যায়’, ‘অন্যায়’ এই শব্দসমূহ শক্তিমান তথা শাসকদের তৈরি। প্লাতনিয় থ্রাসিমেকাস আরো বলেন, ন্যায় হচ্ছে দুর্বলকে শোষণ করার জন্য শক্তিমানের কৌশল অথবা শক্তিমানকে পরাজিত করার জন্য দুর্বলের জোট। জনগণ যুক্তির মাধ্যমে এই ধরনের জোট করেছে তা নয়, শক্তিমান তার নীতি জনগণের উপর চাপিয়ে দেয়ার ফলে এই জোটের জন্ম। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: জাহেদ সরওয়ার

anti-terrorism-act-2বাংলাদেশে সম্প্রতি পাশ হওয়া ‘সন্ত্রাসবিরোধী আইন’র সংশোধনী ও সংযুক্ত ধারাগুলো বেশ আন্তর্জাতিক। হয়তো আন্তর্জাতিক হওয়াই বাঞ্চনীয়। কারণ আমরা বিশ্বায়নের কারণে দুনিয়াটাকে গ্লোবাল ভিলেজ বলে ডাকছি। কিন্তু কথা হচ্ছে দেশিয় আইনকে বিশ্বায়িত করতে গিয়ে তাতে যদি খোদ নিজের দেশের নাগরিকদেরই আতংকিত হবার অবকাশ থাকে তাহলে সেটা নিয়ে বাহাস করার দরকার আছে বৈকি। অবশ্য এই বিশ্বায়নের যুগে ‘সন্ত্রাসবাদ’ বা টেররিজমের সংজ্ঞাও সমালোচনার যোগ্য। যেহেতু সন্ত্রাসবাদ বিশ্বায়নেরই একটা পণ্য। (বিস্তারিত…)