Posts Tagged ‘গণতন্ত্র’


লিখেছেন: নীলিম বসু

narendra-modiএই লেখা যে সময় লিখছি তখন ছত্তিশগড়ে সালয়া জুড়ুমের নবপর্যায় ঘোষিত, মুম্বাইতে এক বহুজাতিক হীরে রপ্তানী সংস্থায় চাকরির আবেদন করে এক মুসলমান প্রার্থী জবাব পেয়েছেন যে, ঐ কোম্পানী শুধু অমুসলমান নাগরিকদের চাকরি দেয় (যদিও এই নিয়ে সংবিধান অবমাননা, এফআইআর, কোম্পানীটির মধ্যে দায় এড়ানোর নাটক চলছে), দেশের দুটি রাজ্যে গোরু হত্যা নিষিদ্ধ করার মাধ্যমে একটা বড় অংশের নাগরিকের রুটিরুজি ও খাদ্যাভ্যাসে হস্তক্ষেপ করা হয়ে গেছে, নিহত হয়েছেন কুসংস্কারবিরোধী আন্দোলনের কর্মী, গত ১ বছরে ঘটে গেছে কমবেশি ৫০০টি ছোটো বড় সাম্প্রদায়িক হিংসা (পড়ুন সংখ্যালঘুদের ওপর আক্রমন), সংখ্যালঘু নিধনে অভিযুক্তরা বেকসুর খালাস পেয়েছেন কোর্ট থেকে, ‘ঘর ওয়াপসী’ নামক এক বিশাল ধর্মান্তকরণ কর্মসূচী দেশজুড়ে চলমান ইত্যাদি। এর সাথে ভারতের লোক দেখানো সংসদকেও এড়িয়ে গিয়ে অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে শাসক দলের ইচ্ছা অনুযায়ী আইন তৈরির এক ধারাবাহিকতা দেখা যাচ্ছে, বিপ্লবী আন্দোলন দমনে সেনা নামানোর হুঙ্কার শোনা যাচ্ছে, গুজরাটে জারী হয়েছে ঘৃণ্য কালা কানুন (যা আজ বা কাল আমরা কেন্দ্রীয় স্তরেও দেখতে পাবো)। কর্পোরেট ও রাষ্ট্রের হাত মেলানোর প্রমান কেন্দ্রীয় বাজেট (কৃষিতে ব্যয় বরাদ্দ কমানো, ১০০ দিনের কাজের মতো সামাজিক প্রকল্পগুলিতে যেটুকু ব্যয় বরাদ্দ ছিল, তাও কমিয়ে একই সাথে কর্পোরেট বেল আউটে বরাদ্দবৃদ্ধি ও গ্রামীন সামন্তশ্রেণীর বহুদিনের দাবী মেটানোর মাধ্যমে রাষ্ট্রের আধাসামন্ততান্ত্রিক আধাঔপনিবেশিক চরিত্রকে শক্তিশালী করার বাজেট) (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: নীলিম বসু

Modi-1ক্ষোভ, যন্ত্রণা, হতাশা,রাগ অনেক জমে আছে এই দেশটায়। হিন্দু ফ্যাসিবাদী শক্তি সেগুলো গড়ে ওঠার জন্য দায়ী নয় কোনোভাবেই। আসাম্যমূলক শোষক সমাজে সেগুলো থাকবেই। সেগুলোকে কাজে লাগিয়ে তার স্বাভাবিক গতিপথকে পালটে দিয়ে অসাধারণ ধৈর্য্য, কৌশল, চাতুর্য্য ও নৈপূণ্যের সাথে হিন্দু ফ্যাসিবাদীরা নিয়ে যাচ্ছে এক বিকৃত ও মিথ্যা অহংকারের দিকে দেশটাকে। যে দেশের জনগণের ৮০% দিনে ২০ টাকার চেয়ে বেশি খরচ করতে পারে না, যে দেশের জনগণ ক্রমাগত উচ্ছেদ হচ্ছেন বা হওয়ার জন্য দিন গুনছেন তাঁদের বাসভূমিসংস্কৃতিভাষাজীবিকা থেকে তাঁকে একটা কিছুর গর্বে তো গর্বিত করে তুলতে হবে, না হলে কিভাবে জুটবে সস্তা শ্রম, বিশাল বাজার, অনিয়ন্ত্রিত মুনাফা! তাই সেই গর্ব হোক এমন কিছুর, যা সে ব্যক্তিগত বা সমবেত প্রচেষ্ঠায় কোনোভাবেই অর্জন করতে পারবে না; এমন কিছু, যা কাল্পনিকধূলোমাটির থেকে বহু দূরের, অলিক। এই অবাস্তব গর্বের খুড়োর কল এই দেশে গড়ে তুলছে এক রণক্ষেত্র। যে রণক্ষেত্রে শ্রেণীবন্ধুরাই অস্ত্র ধরেন শ্রেণীবন্ধুদের বিরুদ্ধে। মনে পড়ে ২০০২ গুজরাট? যেখানে দেশের তৃতীয় দরিদ্রতম জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হয়েছিলেন দেশের দরিদ্রতম দুই জনগোষ্ঠী দলিত ও আদিবাসীরা? যে গুজরাটে হাজার বছর ধরে উচ্চবর্ণ, তথা হিন্দু ব্রাহ্মণ্যবাদীদের হাতে শোষিত, অবহেলিত, বঞ্চিত দলিতআদিবাসীরা তাঁদেরই শোষকদের নির্দেশে নেমে পড়েছিল মুসলিম নিধনে। দায় কার? এ তো আমরা ১৯৩০এর জার্মানি থেকে দেখে আসছি যে, কমিউনিস্টরা বাস ধরতে না পারলে, সেই বাসে উঠে নিজেদের লক্ষ্যে পৌঁছতে চায় ফ্যাসিবাদিরা। কোথাও রাইখস্ট্যাগ পোড়ে, তো কোথাও সবরমতি এক্সপ্রেস কোথাও আর্য শ্রেষ্ঠত্বের শ্লোগান, তো কোথাও হিন্দুরাষ্ট্রের আওয়াজ, এই তো পার্থক্য। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: নীলিম বসু

chotrodhar-mahatoস্বাধীনতাগণতন্ত্র বল কোথায় উলঙ্গ রাজা

আসল সত্য চিনিয়ে দেয় ছত্রধরের সাজা,

যাদের ORDER তাদেরই LAW

আদালত দেয় জানিয়ে,

গণতন্ত্র শাসকের দাশ (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সৌম্য মণ্ডল

bhagat-singh-2সন্ত্রাসবাদ” খুবই খারাপ ব্যাপার, সন্ত্রাসবাদীরা খারাপ মানুষ, সন্ত্রাসবাদীরা বোমা ফাটিয়ে খুন করে বেড়ায় এই তথ্য হলিউডি, বলিউডি অ্যাকশন সিনেমা আর কম্পিউটার গেম এর কল্যাণে শিশুরাও এ কথা জেনে গেছে। সম্প্রতি বর্তমান শিক্ষাবর্ষে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ক্লাস ৮ এর ইতিহাস বইয়ে ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে সশস্ত্র বিপ্লবীদের ইতিহাস সংক্রান্ত চ্যাপ্টার এর নাম “বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদ” হওয়ায় চারিদিকে নিন্দার ঝ উঠেছে, গত ১১ অগাস্ট ক্ষুদিরাম বসুর শহীদ দিবসে বিক্ষোভ দেখিয়েছে কেন্দ্রে শাসক দল বিজেপি, প্রতিবাদ জানিয়েছে ডানবাম নির্বিশেষে রাজনৈতিক দল, সাধারণ মানুষ। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

gaza_massacre-1প্যালেস্টাইনে ইজরায়েলি হানা অব্যাহত। এখন অবধি যা খবর তাতে সহস্রাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে অধিকাংশই অসামরিক ব্যক্তি তথা সাধারণ নাগরিক, যাদের মধ্যে আবার ২১৮জন শিশু, আহতের সংখ্যা এখনো অবধি ৫২৪০জন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ পশ্চিমী দেশগুলো এবং রাশিয়ায় যখন ইউক্রেন সীমান্তে ভেঙ্গে পড়া বিমানের যাত্রীদের মৃত্যু নিয়ে একদিকে শোকাতুর, অন্যদিকে এ নিয়ে রুশ মার্কিন চাপান উতর চলছে, তখন খুশির ঈদের দিনই উদ্বাস্তু শিবিরের সামনের মাঠে খেলাধুলারত শিশুদের উপর কিংবা স্কুলবাড়ি বা হাসপাতালে; জনবহুল রাস্তায় কিংবা অসামরিক নাগরিকদের বাসস্থানের জন্য নির্মিত এপার্টমেন্টে আছড়ে পড়েছে একের পর এক ইজরায়েলি মর্টার এবং ক্ষেপনাস্ত্র। ওই দিনই অন্ততঃ পাঁচটি মসজিদে তারা ক্ষেপনাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। ধ্বংস করা হয়েছে বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও জলবন্টন ব্যবস্থাকেও। (বিস্তারিত…)


 

লিখেছেন: সব্যসাচী গোস্বামী

private-prisons-for-profitদুনিয়ার দিকে দিকে গণতন্ত্রের ঠিকাদার হয়ে বসে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন ঘেষা প্রচারমাধ্যমগুলোও মার্কিনি গণতন্ত্রের প্রশংসায় পঞ্চমুখ, অথচ মার্কিন জেলগুলোর দিকে তাকালেই বোঝা যাবে যে সেখানে কি ব্যপক পরিমানে মানবাধিকারকে পদদলিত করা হয়। এ এমনই এক দেশ, যেখানে কারান্তরালে রয়েছেন প্রায় ২৫ লক্ষ সেই দেশেরই সহনাগরিক। অর্থাৎ মোট জনসংখ্যার প্রায় ১ শতাংশ। প্যারোল এবং প্রবিশন ধরলে সংখ্যাটা আরো বেশি। জনসংখ্যার শতকরা ৩.২ শতাংশ। অর্থাৎ এক্ষেত্রে বলা যায়, প্রতি ৩১ জন প্রাপ্তবয়স্ক মার্কিন নাগরিকের মধ্যে অন্ততঃ একজন জেলে আছেন! পৃথিবীর বন্দী সংখ্যার ২৫ শতাংশই মার্কিনি বন্দী। ক্যালিফোর্ণিয়ার প্রিজন ফোকাসের মতে “মানব সমাজের ইতিহাসে আর কোন সমাজে এত বেশি সংখ্যক সহনাগরিককে বন্দী করে রাখা হয়নি”। ইন্টার ন্যাশানাল সেন্টার ফর প্রিজন স্টাডিজের পরিসংখ্যান জানাচ্ছে প্রতি এক লক্ষ জনসংখ্যা অনুপাতে পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি মানুষ বন্দী আছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। প্রতি লাখে ৭১৬ জন। এই অনুপাতে দ্বিতীয় স্থানে আছে রাশিয়া। প্রতি লাখে ১২১ জন (ভারতও অবশ্য পিছিয়ে নেই সারা বিশ্বে বন্দী সংখ্যার নিরিখে ভারতের স্থান পঞ্চম!)। কালো চামড়ার মানুষরা আমেরিকায় জনসংখ্যার ১৩ শতাংশ, অথচ মোট বন্দীদের ৬০ শতাংশই হলো কালো চামড়ার মানুষ। ২০ থেকে ২৯ বছর বয়সী আফ্রোআমেরিকান পুরুষদের প্রতি তিনজনে একজন, কোন না কোন ক্রিমিনাল জাস্টিস সুপারভিশনের আওতায় আছেন। ৩০ বছর বয়সী কৃষাঙ্গ পুরুষদের প্রতি ১০ জনে ১ জন জেলে আছেন। বন্দিদের অনুপাত দেখলেই তথাকথিত ‘সভ্য’দের বর্ণবিদ্বেষ চোখে পড়বে। পরিসংখ্যান বলছে ১ কোটি ৪০ লক্ষ শ্বেতাঙ্গ এবং ২৬ লক্ষ কৃষ্ণাঙ্গ মাদকাসক্ত, অর্থাৎ মাদকাসক্তের অনুপাতে শ্বেতাঙ্গরাই অনেক বেশি। প্রায় ৫ গুণ বেশী। অথচ মাদক সংক্রান্ত মামলায় শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় ১০গুন বেশি কৃষ্ণাঙ্গ মানুষ জেলে বন্দী! (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: অজয় রায়

venezuela-crisis-21ভেনেজুয়েলায় নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার লক্ষ্যে বিরোধীপক্ষ গত ফেব্রুয়ারি থেকেই ব্যাপক হিংসা ছড়াচ্ছে। যাতে ইতিমধ্যে ৪২ জন নিহত ও ৯০০ জন আহত হয়েছেন।[] যাদের মধ্যে রয়েছেন পুলিশ আধিকারিক, বিরোধীপক্ষের কর্মী এবং সরকারের সমর্থকরাও। তবে এই “বিক্ষোভ চলছে প্রধানত ধনী ও উচ্চমধ্যবিত্তঅধ্যুষিত অঞ্চলগুলিতে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মতিন বৈরাগী

০১.

art-23রাত্রির ভিতরে যেই চিৎকার যেমন আমরা শুনতে পাই সে ছিলো কারো মরণের পরোয়ানা

একমাত্র অন্ধকার নিরাপত্তা হয়ে সতর্ক করছে আমাদের

এবং বলে এই চিৎকার আর শেষ আর্তধ্বনি মানুষের, বলে দেয় পৃথিবীতে খুন আরো বাড়লো (বিস্তারিত…)


টুকরো ছবির মধ্যে ভারতকে যতটুকু চিনতে পারলাম

লিখেছেন: রক্তিম ঘোষ

তোমরা রয়েছ এদেশের নিঃশ্বাসে

india_movement-1খিদে পেলে আর কি করা যাবে?৩ দিন কিছুই জোটে নি যে। বরং দেবুটা ঠিকই বলেছিল, বাড়িতে হানা দিতে হত। তাহলে এক ধাক্কায় মধুরেণ সমাপয়েৎ হত আর কি। তা আর হল কই?উৎসবের দিন বাড়িতে হানা দেবো না, এমন বিবেক বোধ জাগল আমার!! ! দূর দূর। মাঝখান থেকে তিন দিন না খেয়ে, না ঘুমিয়ে, তাড়া খেয়ে ফিরতে হচ্ছে। উৎসব বলে ছাড় দিলে না উজবুকগুলো!!

যাক গে হাত কামড়ে আর কি হবে?এদিকে সারারাত মশার কামড়ে যান কয়লা হয়ে গেল এক্কেরে। নেহাত উনি বাইরে এসেছিলেন তাই ……। মাস্টারদা বলেন ধর্ম তো বুকের ভিতর সবার এক, বাইরের সাজপোশাক আলাদা। একটু সঙ্কোচ হচ্ছিল বটে, তারপর আর সইল না। এগিয়ে গেলাম। একদম আমার মায়ের মতো মুখটা। সত্যি বলছি বিশ্বাস করুন! (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: নেসার আহমেদ

rana_plaza-1২৪ এপ্রিল, ২০১৩ সাল। ঐদিন সাভারে রানাপ্লাজা ভবন ধ্বসে হাজারের ঊর্ধ্বে কর্মরত শ্রমিক খুন হন। চরম নৃশংসতম ও ভয়াবহ এই হত্যাকাণ্ডের নজির গোটা বিশ্বের পোশাকশিল্পের ইতিহাসে মেলা ভার। হত্যাকাণ্ড আমাদের জনজীবনের পরে গভীর ছাপ রেখেছে। একইভাবে ক্রেতা রাষ্ট্রগুলোর জনগণের পরেও। শুরু হয়েছে নানামুখী আলোচনাসমালোচনা, প্রস্তাবনা ও রাজনীতি। যা দেশীয়আন্তর্জাতিক সব স্তরেই আজ চলছে। আমরা কেউই এই প্রতিক্রিয়ার বাইরে নই। ফলে সময়ের দাবি অনুযায়ী কিছু কথা বলা জরুরি (বিস্তারিত…)