Posts Tagged ‘গণজাগরণ মঞ্চ’


লিখেছেন: তৃষা বড়ুয়া

gonojagoron-program-12গণজাগরণ মঞ্চ থেকে প্রচার করা হয়েছে,

বছর ঘুরে আবারও আমাদের সামনে এসে হাজির হচ্ছে সেই ৫ ফেব্রুয়ারি। গত একবছরের এই দীর্ঘ যাত্রায় আমাদের প্রাপ্তি ও প্রত্যাশার হিসাব নিকাশ করা আবারও জরুরি। বর্ষপূর্তির ক্ষণে নিজেদেরকে আবারও উদ্দীপ্ত করার প্রত্যয় আর এযাবৎকালের অর্জনগুলোকে মূল্যায়ণ করাও খুব প্রয়োজন। সুতরাং, গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে বিশ্ব ইতিহাসের এই অভূতপূর্ব গণজাগরণের দিনটিকে পালন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাংলাদেশের সকল মানুষের এই বিষ্ময়কর ঐক্যবদ্ধ জাগরণকে স্মরণীয় করে রাখতে আমরা ৫ ফেব্রুয়ারিকে ‘গণজাগরণ দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করছি। আমরা এই বর্ষপূর্তিকে শুধু পালন করব না, আমাদের ক্লান্তিহীন সংগ্রাম যাতে আগামী প্রজন্মের কাছে হস্তান্তর করা যায়, এজন্য এবারের বর্ষপূর্তির আয়োজনে আমরা বিশেষ করে শিশুকিশোরদের অংশগ্রহনের জন্যও বেশ কিছু আয়োজন রেখেছি।” (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: বন্ধু বাংলা

shahbagh-1গণজাগরণ মঞ্চ নিয়ে অনেক কথা, অনেক বিশ্লেষণ করেছি সাথে এও বলেছিলাম মঞ্চের আন্দোলনের সারসংকলন টানার সময় এখনো আসেনি। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে, সেই সময় চলে আসছে এবং সারসংকলন টানার সময়টি আরও বেশী ঘনীভূত রূপ পাচ্ছে এবং আরো পাবে; বিশেষ করে নির্বাচনপূর্ব ও নির্বাচনোত্তর রাজনৈতিক পরিবেশে। না মঞ্চের বিষয়ে আগাম কিছু বা পুরনো বিশ্লেষণ তুলে ধরে কিছু বলব না। কিন্তু আজ গণজাগরণ মঞ্চ, প্রজন্ম ও সুশীল সমাজের কাছে একটি প্রশ্নই করব এবং এই প্রশ্নের উত্তর আমার কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শওকত রিপন

জাতি হিসেবে আমরা বরাবরই ছিদ্রান্বেষী। অন্যের দোষত্রুটিখুঁত খুঁজে বেড়াতে সময়ের অন্ত নাই। নিজের দোষ তো খুঁজিই না তাই খুঁজে পাবার আশা বাতুলতা। কার্যকারণে যদি কখনো কোন দোষ ধরা পড়ে যায় তবে ব্যাস্ত হয়ে পড়ি সেটা অন্য কারো ঘাড়ে চাপানোর জন্য। বাংলাদেশে এই মূহুর্তে যে অশনি সঙ্কেত বেজে চলেছে,ঘরে ঘরে আহাজারী আর দুর্দশা বেড়েই চলেছেতার জন্য কাকে দোষ দিতে গিয়ে কার কোপানলে পড়ি তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। (বিস্তারিত…)


প্রেস বিজ্ঞপ্তি

গণজাগরণ মঞ্চের মূল নেতৃবৃন্দের আপোষকামীতার কারণে আন্তরিক আন্দোলনকারীদের মধ্যে যে হতাশা সৃষ্টি হয়েছেতারই প্রকাশ ঘটেছে শহীদ রুমী স্কোয়াডের আমরণ অনশন কর্মসূচিতে। এ মূল নেতৃবৃন্দ শুরু থেকেই আওয়ামী লীগের গা বাঁচিয়ে, তাদের ছত্রছায়ায় গণজাগরণ মঞ্চ থেকে আন্দোলনের খেলা পরিচালনা করছে। তারা জনগণের আশাআকাঙ্খার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। এ সত্য এখন পুরোপুরি উন্মোচিত হয়ে পড়েছে। সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও রুমী স্কোয়াডের এ কর্মসূচি আপোষকামী নেতৃত্বের কব্জা থেকে আন্তরিক আন্দোলনকারীদের বেরিয়ে আসার প্রবণতা হিসাবে গণ্য করা যেতে পারে। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মেহেদী হাসান

rumi-squad-5-যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবীতে শাহবাগের প্রজন্ম চত্বর কেন্দ্রিক পুরো বাংলাদেশ জুড়ে গণজাগরণের হাওয়া বইতে শুরু করে। অনেক বেশী লোকের সমাবেশ হওয়ার কারণে এবং এটা যেহেতু একটা বড় ধরণের গণজাগরন সুতরাং তার দরকার পড়েনি হিংসাত্বক হওয়ার। অহিংস পদ্ধতিতেই এই আন্দোলন চলে আসছে অনেক দিন ধরে।

কিন্তু আন্দোলনের ধারাবাহিকতার একপর্যায়ে এসে দেখা গেল ঘোষকদের অহিংসার পদ্ধতি হাস্যকর পর্যায়ে এসে ঠেকেছে। জনগণ প্রচন্ডরকম মনঃক্ষুণ্ণ হয়ে আস্থা হারিয়ে ফেলে পিছু হটতে শুরু করে। জনগণ তাদের বুকের ভেতরে যে দায় বা তাগিদ অনুভব করেছে তাতে করে তারা প্রজন্ম চত্বরে সমবেত না হয়ে পারেনি। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মিঠুন চাকমা

revolutionary-force-2বিদ্যমান বিশৃঙ্খলা বা নৈরাজ্যিক পরিস্থিতিতে জনগণের লড়াইকামী শক্তির বিভ্রান্ত হবার কোনো কারণ নেই, বরং লড়াইকে জনমানুষের কাতারে নেবার এখনই যথার্থ সময়। অরূন্ধতী রায়ের লেখা থেকে একটি উদ্ধৃতি দিয়ে আমি আমার এই লেখাটি অবতারনা করছি।

প্রখ্যাত লেখক এবং সমাজসংশ্লিষ্ট মতামত প্রদানকারী ভারতীয় লেখা অরূন্ধতী রায় তার এক লেখায় লিখেছেন, ক্ষমতায় থাকা যে কারো জন্যই প্রধান কৌশল হলো জাতিকে বিভক্ত রাখার পথ খোঁজা।” (বিস্তারিত…)