Posts Tagged ‘কবি’


লিখেছেন: মতিন বৈরাগী

matin-bairagi-10কবিতা এমনই এক বিষয় যে নিজেকে প্রস্তুত করে প্রকাশে এবং সেই প্রকাশের মধ্যদিয়ে পাঠক কবিকে চিনে নিতে পারেন একজন মানুষকেও যার সামাজিক অস্তিত্ব আছে, এবং অস্তিত্বমান সমাজে সে কোনো ধ্যানধারণাকে বহন করে তার মুখ খুলে দেয়। প্রত্যেক শিল্পই রাজনৈতিক দর্শন ভূক্ত এবং কোনো না কোনো শ্রেণীর প্রতিনিধিত্ব করে। সে যদি নিজকে গোপন ও করতে চায় তা হলেও সে প্রকাশ্য হয়ে পড়ে এবং তার প্রকাশরীতি সব সময়ই তার ধ্যানজ্ঞান পছন্দ ও ভাবনায় বাহিত হয়ে রূপলাভ করে শিল্পের মাধ্যমে, যাকে শিল্পী কোনো ভাবেই আড়াল করতে পারে না। আর কবিতাতে তো সম্ভবই নয়, দুরূহ বা দুর্ভেদ্য যাই হোক সে চিনিয়ে দেয় কবিকে, আখেরে সে কোন সামাজিক চেতনা ধারণ করছে এবং কাদের পক্ষের মানুষ হয়ে তার সৃষ্টিকে নিবেদিত করতে চাইছে। (বিস্তারিত…)

Advertisements

লিখেছেন: মুনীর সিরাজ

matin-bairagi-8১৯৭৭ সালে প্রকাশিত মতিন বৈরাগীর প্রথম কাব্য বিষণ্ন প্রহরে দ্বিধাহীন থেকে সহজেই শনাক্ত করা গেছে যে মতিন বৈরাগী জীবন চেতনার কবি। তার কবিতার মর্মবাণী মানবিক মুক্তির এবং কোন রাখঢাক নয়, মতিন বৈরাগী সুস্পষ্ট ভাষায় তার কবিতার উচ্চারণে দ্বিধাহীন ও জীবনবাস্তবতার নান্দনিক কবিতা রচনার প্রতি তার প্রবল ভাবে লগ্ন।

মোহময় জীবনের সমস্ত কালভার্ট ভেঙে দিয়ে

হে জীবন হে কবিতা আলোর দিকে ফিরে যাব আমরা

(বিস্তারিত…)


লিখেছেন: গোলাম কিবরিয়া পিনু

matin-bairagi-7কবি মতিন বৈরাগীর জন্ম ১৬ নভেম্বর ১৯৪৬। এবছরের ১৬ নভেম্বর তাঁর ৭০তম জন্মদিন। তাঁর জন্মদিনের সময় পড়ছিলাম তাঁরই কবিতা সমগ্র গ্রন্থটি। এই গ্রন্থে ১০টি কাব্যগ্রন্থের কবিতা আছে, অনেক কবিতা একসঙ্গে পড়ে একজন কবির পরিচয় ভালোভাবে পাওয়া যায় একজন পাঠক হিসেবে। এই গ্রন্থটি বের হয় ২০০৮ সালে, তারপর আরও দুটি কাব্যগ্রন্থ বের হয়েছে তাঁর। তাঁর কবিতা সম্পর্কে এক ধরনের বিবেচনা আমার আগে থেকেই ছিল, তাঁর কবিতা পড়ছি বহুদিন হলো ধারাবাহিকভাবে। কিন্তু একসঙ্গে অনেক কবিতা পড়তে পড়তে মনে হয়েছে, আমার যে বিবেচনা স্থির হয়েছিল তাঁর কবিতা সম্পর্কে, সেই বিবেচনায় আরও কিছু বোধ পাঠক হিসেবে সম্পকির্ত হলো নতুনভাবে।

তিনি সক্রিয়ভাবে রাজনীতির সাথে যুক্ত থেকেছেন, কিন্তু তিনি শেষ পর্যন্ত মূলভাবে সক্রিয় থেকেছেন এই ৭০ বছর অবধি একমাত্র কবিতায়। তাঁর কবিতাগ্রন্থগুলো হলো : বিষণ্ন প্রহরে দ্বিধাহীন (১৯৭৭), কাছের মানুষ পাশের বাড়ি (১৯৮০), খরায় পীড়িত স্বদেশ (১৯৮৬), আশা অনন্ত হে (১৯৯২), বেদনার বনভূমি (১৯৯৪), অন্তিমের আনন্দ ধ্বনি (১৯৯৮), অন্ধকারে চন্দ্রালোকে (২০০০), দূর অরণ্যের ডাক শুনেছি (২০০৫), স্বপ্ন এবং স্বাধীনতার গল্প (২০০৭) এবং অন্য রকম অনেক কিছু (২০০৮)। এই ৮টি কাব্যগ্রন্থ নিয়ে তাঁর ‘কবিতা সমগ্র’ গ্রন্থটি। এর পরবর্তী সময়ে আরও দু’টি কাব্যগ্রন্থ বের হয়েছে, খণ্ডে খণ্ডে ভেঙে গেছি (২০১২) এবং দুঃখ জোয়ারের স্রোতে (২০১৪) (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মহসিন শস্ত্রপাণি

matin-bairagiদীর্ঘদিন ধরে পথচলার সাথী কবি মতিন বৈরাগীর সত্তর বছরে যাত্রা উপলক্ষে অজস্র শুভেচ্ছা জানাই। তিনি পৃথিবীর আলোহাওয়ায় নিঃশ্বাস নিয়ে চোখ মেলে তীক্ষ্ণ চিৎকার দিয়েছিলেন বরগুনার লাকুরতলা গ্রামে, ১৯৪৬ সালের ১৬ নভেম্বর। তিনি কবিতাপ্রেমে একগ্রতার সাথে মগ্ন আছেন কৈশোরকাল থেকেই এবং নিশ্চিতভাবেই বলা যায় মগ্ন থাকবেন। অন্য কোনো বিষয়ে তাঁর প্রেম এতো গভীর ও অনড় নয়। জীবনের নানা আঘাত ও সংকটে তাঁর কবিতাপ্রেম এতোটুকু টলেনি। দুএকটা ছোট গল্প ও সামান্য কিছু গদ্য রচনায় মন দিলেও কবিতাই তাঁর সব। কবিতার সঙ্গে জীবনযাপনে তাঁর যতো সুখ, যতো আনন্দ। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: শাহ্জাহান সরকার

(কবি মতিন বৈরাগী দ্রোহীবরেষু)

abstract-art-22যখনই শুদ্ধস্বরে থাকে না কবিতা

অকবিও কবি হয়;

মুক্তস্বরে বোদ্ধা কবিরা লিখলে তখন

কবিতা মধুর হয়।

বদ্ধস্বরের ফের্‌ না মেরেইকবির

কবিতারা গতি পায়; (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: মৃণাল বসু চৌধুরী

matin-bairagi-book-4[আগামী ১৬ নভেম্বর, ২০১৪ কবি মতিন বৈরাগীর ৬৮ তম জন্মবার্ষিকী। কবি মতিন বৈরাগী ৭০ দশক থেকে আমাদের কাব্যাঙ্গনে সক্রিয় রয়েছেন। বর্তমান সময় কাল পর্যন্ত তাঁর প্রকাশিত কাব্যের মধ্যে ১. বিষণ্ন প্রহরে দ্বিধাহীন, . কাছের মানুষ পাশের বাড়ি, . খরায় পীড়িত স্বদেশ, .আশা অনন্ত হে, . বেদনার বনভূমি, . অন্তিমের আনন্দ ধ্বনি. .অন্ধকারে চন্দ্রালোকে, . দূর অরণ্যের ডাক শুনেছি, . স্বপ্ন এবং স্বাধীনতার গল্প, ১০. অনেক কিছু অন্যরকম, ১১. খণ্ডে খণ্ডে ভেঙে গেছি, ১২. দুঃখ জোয়ারের জলস্রোত, ১৩. নির্বাচিত, ১৪. সিলেক্টেড পোয়েমস [ইংরেজী অনুবাদ] কাব্যসমগ্র এবং আরো অনেক অগ্রন্থিত কবিতা। অসংখ্য কবিতা তাঁর ছাপা হয়েছে দেশেবিদেশে বিভিন্ন সাময়িকী, পত্রপত্রিকায়। ইদানিং তিনি কবিতা বিষয়ে প্রবন্ধ, দেশের খ্যতিমান কবিদের কাব্যআলোচনাও করছেন। তিনি নিয়মিত লিখছেন মঙ্গলধ্বনিতে। মঙ্গলধ্বনির পক্ষ হতে কবিকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।।] (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: বিনয় বর্মন

matin-bairagi-book-7মতিন বৈরাগী আমাদের সেই বয়োজ্যেষ্ঠ কবিদের একজন যিনি প্রায় চার দশক ধরে নিষ্ঠার সঙ্গে কবিতাচর্চা করে চলেছেন। তার কলম এখনও দুর্দান্তরকমে সচল সক্রিয়। গত চল্লিশ বছরে তিনি বাঙালি পাঠকদের অনেকগুলো কবিতার বই উপহার দিয়েছেন। এগুলোর মধ্যে আছেঃ বিষণ্ন প্রহরে দ্বিধাহীন (১৯৭৭), কাছের মানুষ পাশের বাড়ি (১৯৮০), খরায় পীড়িত স্বদেশ (১৯৮৬), আশা অনন্ত হে (১৯৯২), বেদনার বনভূমি (১৯৯৪), অন্তিমের আনন্দধ্বনি (১৯৯৮), অন্ধকারে চন্দ্রালোকে (২০০০), দূর অরণ্যের ডাক শুনেছি (২০০৫), স্বপ্ন এবং স্বাধীনতার গল্প (২০০৭), অন্য রকম অনেক কিছু (২০০৮), খণ্ডে খণ্ডে ভেঙে গেছি (২০১২)। ফেব্রুয়ারি ২০০৮, দুঃখ জোয়ারের জলস্রোত, বেরিয়েছে তাঁর নির্বাচিত’ কবিতা সমগ্র রয়েছে অজস্র অগ্রন্থিত কবিতা। সব মিলিয়ে তার সৃষ্টিসম্ভার ব্যাপক বিচিত্র। ভাবব্যঞ্জনার সাবলীল প্রকাশ বিদ্যুৎদ্যুতিতে মনকে আলোকিত আলোড়িত করে। তার কবিতা থেকে (কেবলমাত্র তাঁর কবিতা সমগ্রের অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন কাব্যগ্রšথেকে) আমার ভালোলাগা কিছু পংক্তির কথা এখানে চয়িত। (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: সুরাজ চৌধুরী

matin-bairagi-book-2কবি মতিন বৈরাগী চার দশকের বেশী সময় ধরে কাব্যচর্চা অব্যাহত রেখেছেন এবং বর্তমানের খণ্ডে খণ্ডে ভেঙে গেছি’ কবিতা গ্রন্থের মোট ছত্রিশটি কবিতায় কবির অন্তক্ষরণের বেদনা অনুভব করা যায় এখানে তাঁর আশা. স্বপ্ন, ক্ষোভ, প্রেম, বিরহ বেদনা এবং নৈরাশ্য প্রতি পঙক্তিতে উন্মোচিত হয়ে পাঠককে তাপিত করে ওয়াল্টার ডেলা মেয়ার এর অমোঘ পঙক্তি ক্ষেত্রে স্মরণযোগ্য হোয়াট লাভলী থিংস/দাই হ্যান্ড হ্যাথ মেড’ স্ক্রাইব কবিতা‘।

মতিন বৈরাগী তার সৃজনকর্মে স্বদেশ, স্বসমাজ তথা বিশ্বজনীন কল্যাণ কামনায় তাঁর স্বপ্ন এবং স্বপ্ন ভঙ্গের স্বরূপকে ক্রিয়া পদের ঘটমান ন্ঞর্থক শব্দ প্রয়োগে বাক্সময় করেছেন। কবির মাত্রাবৃত্ত উচ্চারণ ‘‘আর ছড়িয়ে ছিটিয়ে যাওয়াখণ্ডগুলো/তুলে নেবে কেউ কোনো বিশ্বাসী হাত/তুমুল করতালির নতুন অভিষেকে/মানুষ অমৃতপুত্র. কখনো মানেনি পরাভব’। কবি চাঁদ, সূর্য, তারকা জোছনার মতো রোমান্টিক অনুসঙ্গ তাঁর কাব্যে একেবারে বাদ দিয়ে এগোননি ফুল, পাখি, অরণ্য.নদী, সমুদ্র কংক্রিট এর মধ্যেও কবির লাবন্যদর্শন যা একজন কবির ভাবনায় বৈদগ্ধতারই প্রকাশ এসব অনুসংগের অন্তরালে তার স্বপ্ন, আশা নৈরাশ্য মোহভঙ্গ চক্রে ঘুরপাক খাচ্ছে এর পরও মেহনতী জনতার কিষাণ হাতের কাস্তে’ আনুষঙ্গটি যথানিয়মে কবির ভাবনায় উঠে এসেছে অরণ্যে ছিলো আলোকানন্দ নাচ/ভিতরে ভাঙছে অ্স্থিরতার কাচ’ কিংবা কখনো সুখের অমেয় আলোকে তুলেছো লেনিন হাত/কখনো চেখের জলের ধারায় হয়েছো নিশীথ রাত’ বিপ্লবের প্রতি গভীর মমত্বের প্রকাশ, কবি প্রধান্য দিয়েছেন মানুষের স্বাধীনতা কে। কবি কালিদাসের কাছে যেমন সবার উপরে মানুষ সত্য /তাহার উপরে নাই’ রঙ্গলালও সমাজ বাস্তবতার অভিজ্ঞতা থেকে বলেছিলেন স্বাধীনতা হীনতায় / কে বাঁচিতে চায় হে/কে বঁচিতে চায়’, মতিন বৈরাগী দেশ এবং বিশ্বে মানুষ স্বাধীন ভাবে বাঁচবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন মানুষ হাঁটবে আবার এই পথে /যাবে সে স্বাধীনতার স্নিগ্ধ সড়কে বাঁজিয়ে ভৈরবী’ (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: হামিদ রায়হান

matin-bairagi-3স্মৃতির ভেতরে কখনো কখনো আচমকাই জ্বলে

ওঠে নকশাল বাড়ি

কালের উল্টোরথ ঠেলে এগোয় ইতিহাসে কান

পাতলেই শুনি

মানুষের প্রস্তুতি

মানুষ কি আসছে?

[স্মৃতির ভেতরে : বেদনার বনভূমি] (বিস্তারিত…)


লিখেছেন: ফরিদুজ্জামান

matin-bairagi-2নব্বই দশকের শুরুর দিকে ঊন্মেষ সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদের সভায় আমার প্রথম পরিচয় সেই থেকে তাঁর সংগে আমার সম্পর্ক প্রায় ব্যক্তিক পর্যায়ের। তাঁর কবিতা আমাদের মুগ্ধ করত। তাঁর আলোচনা বিশেষ করে কাব্য প্রসংগে আলোচনা মনোযোগ দিয়ে শুনেছি, শুনি। কারণ কবিতা লেখা, কবিতার সৌন্দর্য, শিল্প সত্তা, কবিতার কাঠামো, কবিতার বসতি, আধার আধেয় নিয়ে সময় সুযোগ পেলে কথা তোলেন এবং বলতে চেষ্টা করেন।

সে সম্ভবত ১৯৯৪ সালের কথা উন্মেষ সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদের এক আসরে প্রায়ত কবি সমুদ্র গুপ্ত পরিচয় করিয়ে ছিলেন কবি মতিন বৈরাগীর সাথে। সে আসরের সভাপতি ছিলেন কথাশিল্পী মহসিন শস্ত্রপাণি। সেই সভায় আরও উপস্থিত ছিলেনকবি কাজী মনজুর, কবি মুনীর সিরাজ আর আমার বন্ধু ভজন সরকার। সেই থেকে আজ অবধি মতিন ভাইয়ের সাথে আমার সাপ্তাহিক যোগাযোগ অনিবার্য। তাঁর অনেক কবিতারই প্রথম শ্রোতা হবার সৌভাগ্য অর্জন করেছি। তাঁর অনেক কবিতার আলোচনা শুনে উজ্জিবিত হয়েছি। (বিস্তারিত…)