এটা চমৎকার অথবা এটা ভয়ংকর!

Posted: অগাষ্ট 2, 2018 in দেশ
ট্যাগসমূহ:, , , , , ,

লিখেছেন: অভয়ারণ্য কবীর

বাংলাদেশের সাম্প্রতিক আন্দোলনগুলোর চরিত্রকে পাল্টে দিচ্ছে যে আন্দোলন, তা হলো চলমান ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনএই আন্দোলন যারা করছে, তারা হলেন ‘সকাল আটটানটার সূর্য’তাদের আটকানোর মতো কোনো শক্তি নেইতাদের থামিয়ে দেয়ার মতো কোনো ট্যাঙ্ক নেই, নেই কোনো জলকামানশিক্ষার্থীদের একটি স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভ যে রাজনৈতিক ভারিক্কি ধার করে, তার অনেকটা এই কিশোরের দল ছাড়িয়ে গেছেতাদের থেকে বাংলাদেশের সকল বিপ্লবীদের শিখতে হবেএখানেই ‘জনগণের কাছ থেকে শেখো’ তত্ত্বের বাস্তব প্রয়োগের প্রশ্ন চলে আসেএটা না করে প্রথমেই তাদের শেখাতে যাওয়া হবে বিরাট মাপের ভুল

শিক্ষার্থীরা মাঠে নেমেছেতাদের লড়াই একটি নতুন পরিস্থিতির জন্ম দিচ্ছেসারাদেশে যখন হতাশা বিরাজ করছে তখন এই লড়া ইতিহাস সৃষ্টির ভ্রূণ হিসেবে কাজ করবেআমরা যারা সমাজ বিপ্লবকে এগিয়ে নিতে চাই, অথবা সমাজ বিপ্লবে পক্ষে আস্থাশীল, তাদের সবাইকে এ নতুন পরিস্থিতি সৃজনশীলভাবে ব্যাখ্যা করতে হবে

শিক্ষার্থীরা স্লোগান দিচ্ছে, ‘আমার ভাইয়ের জামা লাল, পুলিশ কোন চ্যাটের বাল’এই স্লোগান একটি অগ্রসর রাজনীতিকে ধারণ করেতারা সাম্প্রতিক অতীতের আন্দোলনগুলো থেকে শিক্ষা নিয়েছেতারা দেখেছে যে, পুলিশকে চ্যালেঞ্জ না করে সামনে এগোনো সম্ভব নয়তাই তারা ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করেছেএটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারএটাকে ধার করতে না পারলে শিক্ষার্থীদের ন্যূনতম গণআন্দোলনও গড়ে তোলা সম্ভব নয়

শিক্ষার্থীরা প্লাকার্ড বানিয়েছে তারা বলছে, ‘এক টাকায় নয় জিবি চাই না, নিরাপদ সড়ক চাই’।তারা বলছে, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ চাই না, সেফ বাংলাদেশ চাই’। এই স্লোগান সত্যিকার অর্থেই আমাদের সামনে সাহসের প্রতীক। এই অল্প বয়সী কিশোর সহযোদ্ধারা ইতিহাসে তাদের নাম লেখালেন স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে। তারা ফ্যাসিবাদের কথিতউন্নয়নের গণতন্ত্র’ চূর্ণ করে ধূলোয় মিশিয়ে দিলো। তারা বলে দিলো তোমরা উন্নয়নের বুলি অনেক শুনিয়েছো। আর নয়।এবার আমরা শোনাবো প্রতিবাদপ্রতিরোধের স্লোগান

বুধবার শিক্ষার্থীরা মন্ত্রীর গাড়িকেও আটকে দিয়েছেতারা বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের গাড়ি ঘুরিয়ে দিয়েছেএটা কল্পনা করার অতীত ছিলশুধু গাড়ি ঘুরিয়ে দিয়েছে তাই নয়, মন্ত্রীদের কপচানো বুলি দিয়েই মন্ত্রীকে ঘায়েল করেছেতারা বলেছেআইন সবার জন্য সমানএকজন মন্ত্রী, যিনি কিনা ট্রাফিক আইন না মেনে এই চরম আন্দোলনের মুহূর্তেও উল্টোপথে নিজের জাতীয় পতাকা ওড়ানো গাড়ি নিয়ে যায়, তার জন্য এর থেকে বড় লজ্জার আর কি থাকতে পারে!’ এখানেও দুঃসাহস দেখিয়েছে শিক্ষার্থীরাএটাও একটা অগ্রসরতার জায়গা

শিক্ষার্থীরা ধরে ধরে ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করেছের মাধ্যমে তারা কার্যত ট্রাফিক আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছেছাত্ররা পুলিশের গাড়ি আটকে দিয়েছে লাইসেন্স না থাকায়এটাকে আমরা কিভাবে দেখবো? এ দেশের পুলিশের মতো ফ্যাসিবাদী বাহিনীকে এভাবে চ্যালেঞ্জ করা কী নতুন শক্তির জন্ম নেয়া নয়?

ছাত্রলীগ পরিচয় দিয়ে কিশোর কমরেডদের মারতে আসলে তারা ছাত্রলীগকে ধাওয়া দিয়েছেতারা পাল্টা লড়াইয়ের সূচনা করেছেপ্রকাশ্যে নিপীড়নের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছেছাত্রলীগের মতো সন্ত্রাসী ‘হাতুরি লীগের’ নতুন নেতারা শিক্ষার্থীদের পক্ষে দাঁড়ানোর কথা বলছেতাদের দ্বিচারিতা উন্মোচন করে আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিয়েছেআওয়ামী লীগের নেতা ওবায়দুল কাদের প্রহসনের বক্তব্য দিয়েছেন। তিনিচিনির গোলা’ নিক্ষেপ করেছে ছাত্রছাত্রীদের উপরএই রাজনৈতিক কূপমন্ডুকের মতে, ক্ষোভ যোক্তিক, কিন্তু আন্দোলন করা যাবে নারাজনৈতিকভাবে কতটা আঘাত করলে তারা এই অবস্থান নিতে পারে!

কিশোর বিপ্লবীরা ঘোষণা দিয়েছে স্লোগান দিয়েছে, কোটার মতো আমাদের আশ্বাস দিয়ে কাজ হবে নাআমাদের দাবি পুরণ না হওয়া পর্যন্ত আমরা লড়বোঅতীত থেকে তারা শিখেছেতারা আন্দোলনগুলোকে পর্যবেক্ষণ করেছেনিজেদের আন্দোলনকে গুগতভাবে সমৃদ্ধ করেছেএকদিনের মধ্যেই শাহজাহান খানকে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করেছেগত কয়েক বছরে কোনো মন্ত্রী কি একদিনের মধ্যে এভাবে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়েছে? হয়নিএখানেও তারা দেখিয়ে দিলো অগ্রসরতা। সকাল আটটা নয়টার সূর্য পরিণত হলো দুপুরের কড়া রোদের উত্তাপে

সাধারণ জনগণ কিশোর বিদ্রোহের রাস্তা অবরোধকে ভোগান্তি হিসেবে দেখছে না। তারা এটাকে ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করছেন। জনগণের একটা বড় অংশ, যারা সড়কে প্রতিদিন চলাফেরা করেন পালিক ট্রান্সপোর্টে, তারা সবাই কিশোরদের এই বিক্ষোভকে সমর্থন করছেন।তারা সড়ক অবরোধের মধ্যে বিরক্তি প্রকাশ করছেন না। অসুস্থ নন, এমন সবাই পায়ে হেঁটে গন্তব্যে পৌঁছেছেন। জনগণ কিশোরদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেছেন। তারা বলছেন, গণপরিবহনে নৈরাজ্য দূর করতে হবে। ফিটনেসবিহীন গাড়ি বন্ধ করতে হবে। ড্রাইভিং লাইসেন্স দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো দুর্নীতি চলবে না। এসবই গণদাবি। এ দাবি একবার যখন জোড়ালোভাবে উঠেছে, তখন তা থেমে যাবে না। জ্বলে উঠবে।

বর্তমান কিশোরদের আন্দোলন পূর্বের আন্দোলনগুলো থেকে নিজেকে পৃথক করে চিনিয়েছেএই আন্দোলনের যে বিদ্রোহী রূপ রয়েছে, তা আমরা যদি বুঝতে ব্যর্থ হই তবে আমরা এখান থেকে কিছুই শিখবো নাআবার এই আন্দোলনকে সর্বোচ্চ আন্দোলন ভেবে সাগরে গা ভাসালে কোনোদিনই সুদিন আসবে নাকেউ কেউ এই আন্দোলনে অনেক দূর এগিয়ে গিয়ে বিপ্লবের পদধ্বনি শুনতে পাচ্ছেনএটা হাস্যকরতারা এতটাই বাস্তবতা বিচ্ছিন্ন যে, তারা একটা আন্দোলনকে বাস্তব অবস্থার ভিত্তিতে পর্যালোচনা করতে ব্যর্থতারা নিজেদের বিপ্লবীত্ব জাহির করে অন্যের করা কাজের মধ্যেতাদের চিন্তার দীনতা কি পর্যায়ে, তা আন্দোলনের সময় তাদের হম্বিতম্বি দেখলে টের পাওয়া যায়!

কিশোর আন্দোলনে বামপন্থী ছাত্র সংগঠনগুলো অংশ নিয়েছেতারা বিভিন্নভাবে এ ধরনের আন্দোলনে থাকে বৈকি! ধারাপাতের মতো তাদের সাংগঠনিক ইতিহাসে এ সমস্ত আন্দোলন লিপিবদ্ধ হয়তারা সবসময় সব আন্দোলনে থাকে এটা ভালো দিককিন্তু ৬০/৭০ এর দশকের বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর সঙ্গে এখনকার ছাত্র সংগঠনগুলোর পার্থক্য হলো তারা উপর থেকে আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে চায় বা দখল করতে চায়তাদের স্ট্যান্টবাজি করেই খেতে হচ্ছেআন্দোলনের মধ্যে আন্দোলনকে থামিয়ে দেয়ার পরিস্থিতি তৈরি করতে তারা ওস্তাদআজকে শাহবাগেও একই ঘটনা তারা ঘটিয়েছেউপর থেকে নেতৃত্ব দখল করতে গিয়েছেতাদের জ্ঞানের বহরকে উগ্রে দিতে চেয়েছেআসলে ছাত্রদের তারা বিভ্রান্ত করেছেতাদের উন্মোচন করা জরুরি

আগের দিনে বাম ছাত্র সংগঠনগুলো, বিশেষত ৬০/৭০এর দশকে তারা কাজের মধ্য দিয়ে নেতা তৈরি করেছেঅর্থাৎ ছাত্রদের মধ্যে কাজ করার মধ্য দিয়ে নেতা হয়েছেএখন হয় মিডিয়াবাজি আর মাইক নিয়ে কে কত বক্তব্য দিতে পারে, আর ফুটেজ খেতে পারে তার উপরওরা সচেতনভাবেই এটা করেকারণ আন্দোলনের ভেতরে ঢুকে আন্দোলনকে খেয়ে ফেলা সহজবাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন এই ক্ষেত্রে বিশেষভাবে সিদ্ধহস্ত, ওস্তাদ বলা চলে! তাদের সঙ্গে যুক্ত হয় বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন (গণসংহতি) সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টতারা আন্দোলনকে নিজেদের গ্রিপে নিতে গিয়ে আন্দোলনকেই শেষ করে দেয়এটা খুবই বাজে ইতিহাস তৈরি করছে

আন্দোলনে নেতৃত্ব একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ননেতৃত্ব যদি সঠিক না হয়, তবে আন্দোলন অনেক ক্ষেত্রেই বাধাগ্রস্ত হয়উপরের কথাগুলো বলার কারণে অনেক বন্ধুই তেড়ে আসবেনকিন্তু একটি কথা পরিষ্কার যে, নিচে থেকে নেতৃত্ব গড়ে তুলতে না পারলে আন্দোলনকে সঠিক পথে পরিচালিত করা যায় নাএতে হিতে বিপরীত হয়আমি বলছি না যে, আন্দোলনকে স্বতঃস্ফূর্ততার হাতে ছেড়ে দেবেনস্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনকে রাজনৈতিকভাবে নেতৃত্ব দেয়া মানেই নিজেদের নেতাদের মাইকে বক্তব্য দেয়ানো নয়যদি সংগঠনগুলোর স্কুল কলেজগুলোতে কাজ ভালো থাকতো তাহলে এমনিতেই আন্দোলনের লিডারশিপ তারাই হতোকিন্তু যখন তা নেই, তখন কাজ হচ্ছে ছাত্রদের সঙ্গে ব্যাপকভাবে নিজেদের মতামত নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করাতাদের উপর মত চাপিয়ে দেয়া নয়, তাদের জয় করাপ্রোপাগান্ডা করা নিজেদের বক্তব্যগুলো নিয়েতারপর তাদেরকে দিয়েই সেসব বলানোকিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, এখানে তার উল্টোটাই ঘটেতারা গড়ে ওঠা আন্দোলনের নেতা হতে চায়!

এবারে বিপ্লবী আন্দোলন কর্মীদের ব্যাপারে বলা যাকতাদের পর্যাপ্ত উপলব্ধি থাকলেও সাংগঠনিক শক্তির ভারসাম্যের দিকে খুবই দুর্বলসেজন্য তাদের তেমন দেখা যায় নাআবার এখানে দুটো বিষয় বলা দরকারএক. তারা সাংগঠনিকভাবে দুর্বলদুই. তারা মিডিয়াবাজি করে নাসেজন্য দশ জন নেতা কর্মী মাঠে থাকলেও, তা থাকে সাধারণের মধ্যে মিশেকার এটাই হচ্ছে আন্দোলনের পদ্ধতিতারা যদি তাদের সঠিকতাকে সামনে নিয়ে ছাত্রদের মধ্যে পুনরায় ঘাঁটি গড়তে পারে, তবে বাংলাদেশের ছাত্র আন্দোলনের ইতিহাস পাল্টে দেয়া সম্ভবসেক্ষেত্রে তাদেরও শিখতে হবে সাধারণ ছাত্রদের কাছেতাদের চলে যেতে হবে একেবারে গোড়া

আরেকটি দিক খেয়াল রাখতে হবে, তা হলো ব্যাপক জনগণে মধ্যে যেন বিভেদ তৈরি না করতে পারে রাষ্ট্রশ্রমিক এবং ছাত্রদের যেন মুখোমুখি দাঁড় করাতে না পারে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবেসতর্ক থাকতে হবে আন্দোলনগুলো যেন বিভেদের মধ্যে না পড়েকোনো আশ্বাসে বিশ্বাস করা সঠিক হবে না

বাংলাদেশে যে নতুন পরিস্থিতি তৈরি হতে যাচ্ছে, তা এক কথায় বলা যায়এটা চমৎকার অথবা এটা ভয়ংকরমানুষ ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করছে, এটা শাসকের কাছে ভয়ংকরকিন্তু ব্যাপক জনগণের কাছে তা চমৎকারএই চমৎকারকে দেখার দৃষ্টি থাকতে হবেসরকার বা রাষ্ট্রের দালালী করে এটা উপলব্ধি করা সম্ভব নয়

নিরাপদ সড়ক চাই!’

Advertisements

মতামত জানান...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.