পশ্চিমী মদতপুষ্ট সৌদি জোটের আগ্রাসনে বিধ্বস্ত ইয়েমেন

Posted: ফেব্রুয়ারি 11, 2018 in আন্তর্জাতিক
ট্যাগসমূহ:, , , , ,

লিখেছেন: অজয় রায়

২০১৫ সালের মার্চ থেকে ইয়েমেনের উপর সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে যাচ্ছে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জোট। যাদেরকে মদত দিচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন।[] ক্ষমতাচ্যুত রাষ্ট্রপতি আব্দরাব্বু মানসুর হাদিকে ইয়েমেনে পুনর্বহালের জন্য বিমান হামলা শুরু করেছিল সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট। তবে তারা সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালিয়েও ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদেরকে উৎখাত করতে পারেনি। বরং সৌদি জোটেই বিভাজন স্পষ্ট হয়েছে। সম্প্রতি যেমন এডেন শহরে সৌদি সমর্থিত হাদির অনুগত সেনাদের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমির শাহীর ঘনিষ্ঠ দক্ষিণাঞ্চলীয় বিচ্ছিন্নতাবাদী বাহিনীর সংঘর্ষ হয়েছে।

লক্ষণীয় যে, ইয়েমেনে সৌদি জোট বেপরোয়াভাবে যুদ্ধাপরাধ করে যাচ্ছে। নির্বিচারে বিমান হামলা চলছে। ইতিমধ্যেই যুদ্ধে ১২ হাজারেরও বেশি ইয়েমেনি প্রাণ হারিয়েছেন।[] নিহতদের একটি বড় অংশই বেসামরিক নাগরিক। আর ৩০ লক্ষ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন।[] হাসপাতাল এবং স্কুলেও বোমাবর্ষণ চলছে। পয়ঃনিষ্কাশন, পানীয় জল ও বিদ্যুতের মতো নাগরিক পরিষেবার পরিকাঠামো ধ্বংস করা হচ্ছে। মানবিক সংকটের মাঝেই দাঁড়িয়ে ইয়েমেন।

গত নভেম্বরে হুথি বিদ্রোহীরা রিয়াদ বিমানবন্দর লক্ষ্য করে একটি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ে। আর তার পরই সৌদি জোট ইয়েমেনের উপর পূর্ণাঙ্গ অবরোধ আরোপ করে। ত্রাণ সহায়তার পথও বন্ধ করা হয়। সৌদি আরব ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্যে ইরানকে দায়ী করে। যদিও ইরান গোড়া থেকেই হুথি বিদ্রোহীদের সহায়তার বিষয়টি নাকচ করে এসেছে। এদিকে বর্তমানে ১ কোটি ৭০ লক্ষ ইয়েমেনির জরুরি খাদ্য সহায়তা প্রয়োজন। আর তাঁদের মধ্যে ৭০ লক্ষ মানুষ দুর্ভিক্ষের সম্মুখীন হয়েছেন।[] সেই সঙ্গে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ছে কলেরা। এ পর্যন্ত ইয়েমেনে ১০ লাখ মানুষ কলেরায় আক্রান্ত হয়েছেন। []

আরো লক্ষণীয় বিষয় হলো, ইয়েমেনে প্রতিপদে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। সৌদি জোটের গড়া গোপন কারাগারগুলোতে যেমন বিনা বিচারে আটক বন্দীদের উপর চলছে নানা অত্যাচার। এদিকে পেন্টাগনও স্বীকার করেছে, তারা ইয়েমেনের ‘ভূমিতে বহু অভিযান’ চালিয়েছে। আর এই অস্থিরতার মধ্যেই ইয়েমেনে প্রভাব বাড়াচ্ছে আলকায়দা এবং ইসলামিক স্টেটের মতো মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সন্ত্রাসী সংগঠনগুলো।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মধ্যপ্রাচ্যের দরিদ্রতম দেশ ইয়েমেনে ২০১১ সালে প্রবল জনবিক্ষোভের মুখে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন স্বৈরশাসক আলি আবদুল্লাহ সালে। আর তার স্থলাভিষিক্ত হন হাদি। উভয়েই অবশ্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের ঘনিষ্ঠ ছিলেন। পরবর্তীকালে হাদির সরকারকে উচ্ছেদ করে হুথি বিদ্রোহী বাহিনী। যারা ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলের জাইদি শিয়া সম্প্রদায়ভুক্ত মিলিশিয়া। রাজধানী সানাসহ ইয়েমেনের বেশিরভাগ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেয় তারা। হুথি বিদ্রোহীদের সঙ্গে জোট করেন সালে। হাদি দেশ ছাড়তে বাধ্য হন। গত ডিসেম্বরের গোড়ায় অবশ্য সালে অবস্থান পাল্টান। তিনি ফের সৌদি আরবের সঙ্গে সম্পর্ক শুরুর মনোভাব ব্যক্ত করেন। যখন সালে অনুগত বাহিনীর সঙ্গে হুতি মিলিশিয়ার সংঘাত শুরু হয়। পরে সংঘর্ষে প্রাণ হারান সালে।

স্পষ্টতই, মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও তার দোসররা নিরঙ্কুশ কতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে। ইয়েমেনেও তাদের তৎপরতা বেড়েছে। দেশটি তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাসে সমৃদ্ধ। ভূরাজনৈতিক দিক থেকেও গুরুত্বপূ্র্ণ। কারণ তার লাগোয়া বাব আলমান্দাব প্রণালি। যা বিশ্বের জ্বালানি তেল সরবরাহের অন্যতম প্রধান একটি জলপথ। এদিকে, ইয়েমেনে পুতুল সরকার বসানোর জন্য সৌদি জোটকে সামরিক সহায়তা যোগাচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন। আর যুদ্ধে পশ্চিমী অস্ত্র কোম্পানিগুলি বিপুল মুনাফা লুটছে।

এ সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনে জাতিসংঘও দায়িত্ব এড়িয়ে যাচ্ছে। ইয়েমেনের বন্দরগুলোর উপর থেকে অবরোধ তুলে নেওয়ার জন্য সৌদি আরবকে আহ্বান জানানোর মধ্যেই মূলত তার ভূমিকা সীমাবদ্ধ রয়েছে। আন্তর্জাতিক মহলের একাংশ অবশ্য ইয়েমেনে শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন। আর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন অনুসারেই তা করার ব্যাপারে জোর দিয়েছেন তাঁরা

তথ্যসূত্র

[] Saudi-Led Strike Hits ‘Wrong Target,’ Kills 14 Yemeni Civilians”, December 27, 2017, Telesur

[] Yemen: 11 More Killed in Saudi-Led Airstrikes’’, December 14, 2017, Telesur

[] Civil war in Yemen creates one of world’s worst humanitarian crises”, December 30, 2017, Xinhua

[] Yemen, World Food Programme, United Nation

[] ‘‘Yemen cholera cases reach one million – ICRC’’, December 21, 2017, BBC

Advertisements

মতামত জানান...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

w

Connecting to %s