প্রেস বিজ্ঞপ্তি :: রাবি-তে সহিংসতার উস্কানিদাতা হিসেবে শিক্ষকদেরকে চিহ্নিত করা প্রসঙ্গে

Posted: ফেব্রুয়ারি 7, 2014 in দেশ
ট্যাগসমূহ:, , , , , ,

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ৬ই ফেব্রুয়ারি ২০১৪

ru-movement-21গতকালের (৬ই ফেব্রুয়ারি ২০১৪) দৈনিক সমকাল পত্রিকায় “রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়: উস্কানিদাতা ৮ শিক্ষক চিহ্নিত ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার” শিরোনামে প্রকাশিত খবরের প্রতি সারা দেশের সচেতন মানুষের, রাবিকমিউনিটির এবং বিশেষত আমাদের উদ্বিগ্ন দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। মুখেমুখে, সেলফোনে, সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে এবং আরও নানা মাধ্যমে আজ সারা দিন এ নিয়ে আলোচনা চলেছে, চলছে।

এ সম্পর্কে রাবির শিক্ষক সর্বজনাব ড. আবু নাসের (পরিসংখ্যান বিভাগ), কাজী মামুন হায়দার (গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ), . একেএম মাসুদ রাজা (বাংলা বিভাগ), বখতিয়ার আহমেদ (নৃবিজ্ঞান বিভাগ), সুস্মিতা চক্রবর্তী (ফোকলোর বিভাগ) এবং সেলিম রেজা নিউটন (গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ) এক বিবৃতিতে এ খবর সম্পর্কে তাঁদের তাৎক্ষণিক বক্তব্য মিডিয়ার কাছে তুলে ধরেছেন। নিচে বিবৃতিটি হুবহু পেশ করা হলো:

———————————————-

পত্রিকায় প্রকাশিত খবর অনুসারে গতকাল ৫ই ফেব্রুয়ারি তারিখেই রাবি তদন্ত কমিটি তাঁদের তদন্তের কাজ শুরু করেছে মাত্র। তদন্তের কাজ শুরুর প্রথম দিনেই তদন্ত কমিটি যেভাবে “রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সহিংসতার উস্কানিদাতা হিসেবে আট শিক্ষককে চিহ্নিত করেছে” তা রীতিমতো বিস্ময়কর।

দৈনিক সমকালের রিপোর্ট অনুসারে (৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৪), তদন্ত কমিটির প্রধান নিজেই “উস্কানিদাতা হিসেবে প্রাথমিকভাবে কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে” বলে জানিয়েছেন। উক্ত রিপোর্ট অনুসারে, তদন্ত কমিটির অপর এক সদস্য তথাকথিত “উস্কানিদাতা” হিসেবে আট শিক্ষকের নামও পত্রিকার কাছে প্রকাশ করছেন। তার মধ্যে আমাদের ছয় জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

ভালো করে খোঁজখবর ও তথ্যউপাত্ত সংগ্রহ না করেই, বলতে গেলে চোখের পলকে, “সহিংসতার উস্কানিদাতা”দেরকে “চিহ্নিত” করার এই অদ্ভুত তদন্তপ্রণালী পুরোপুরি নজিরবিহীন বলে আমরা মনে করি। এ থেকে বোঝা যায়, এই তদন্ত কমিটি বিশেষ মহলের বিশেষ উদ্দেশ্য পূরণের স্বার্থে পূর্বসংজ্ঞায়িত ধ্যানধারণা মোতাবেক অগ্রসর হচ্ছেন। এই খবর প্রকাশের পর তাঁদের কাছ থেকে প্রকৃত, আন্তরিক, ন্যায়নিষ্ঠ ও তথ্যনিবিড় কোনো তদন্ত আশা করার যুক্তিসঙ্গত কোনো কারণ থাকতে পারে না। বরং নিজেদের আচরণের মাধ্যমে এই তদন্ত কমিটি তাঁদের বিশ্বাসযোগ্যতা ও গ্রহণযোগ্যতা সম্পূর্ণভাবে হারিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়প্রশাসনের ভেতরকার কোনো একটি ক্ষুদ্র গোষ্ঠীর সংকীর্ণ স্বার্থসিদ্ধির উদ্দেশ্যে এই তদন্ত কমিটি কাজ করছে বলে আশঙ্কা করার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।

মিডিয়ার কল্যাণে এ কথা আজ সারা দেশের মানুষের জানা যে রাবিতে গত ২রা ফেব্রুয়ারির সহিংসতার ঘটনায় অংশ নিয়েছে আসলে ছাত্রলীগ, শিবির এবং পুলিশ। এই তিন পক্ষের কোনো পক্ষের সাথেই আমরা সামান্যতমও সংশ্লিষ্ট নয়। প্রকৃত সহিংসতার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দিকে মনোযোগ না দিয়ে, তাঁদেরকে চিহ্নিত করার চেষ্টা না করে, রীতিমতো হুট করে আমাদেরকে (এবং আমাদের অপর দুই সহকর্মী অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক ও এস এম আবু বকরকে) সহিংসতার অপবাদ দিয়ে কালিমালিপ্ত করার অপচেষ্টা গভীর কোনো ষড়যন্ত্রেরই অংশ বলে আমাদের মনে হচ্ছে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপউপাচার্য, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীসমাজ এবং বর্তমান সরকারের উচ্চতর মহলকে এই ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার জন্য আমরা অনুরোধ করছি।

 

বার্তাপ্রেরক,

সেলিম রেজা নিউটন

সহযোগী অধ্যাপক ও প্রাক্তন চেয়ারপার্সন

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, রাবি

salimrezanewton@gmail.com

০১৯১৪২৫৪৫৩৪

Advertisements

মতামত জানান...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s