revolt-3আসন্ন রাজনৈতিক সংকট মোকাবিলায় যৌথ আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রগতিশীল নয়টি সংগঠনের (শ্রমজীবী সংঘ, জাগরণের পাঠশালা, মঙ্গলধ্বনি, মৌলিক বাংলা, প্রপদ, নির্বাণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, দাবানল, সংস্কৃতির নয়া সেতু, জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ) উদ্যোগে গত ২৭ আগস্ট ২০১৩, মঙ্গলবার, বিকাল টায় পরিবাগে অবস্থিত সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. আখতারুজ্জামান।

সভায় যৌথ আন্দোলন গড়ার উদ্যোগে জাতীয় যুব পরিষদ, কমিউনিস্ট ইউনিয়ন এবং গণসংস্কৃতি পরিষদ যুক্ত হবার ঘোষণা দেন। আরো কয়েকটি প্রগতিশীল সংগঠন এই উদ্যোগে যুক্ত হওয়ার বিষয়ে বিবেচনা করছেন। সেই সাথে বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত কর্মীসদস্যরা ব্যক্তি পর্যায়ে এই উদ্যোগে যুক্ত হওয়ার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন নয়া গণতান্ত্রিক গণমোর্চা, জাতীয় গণফ্রন্ট, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ, কমিউনিস্ট পার্টি গঠন প্রক্রিয়া, বাংলাদেশ স্বাধীন চলচ্চিত্র আন্দোলন এবং গণতান্ত্রিক আইন ও সংবিধান আন্দোলনের প্রতিনিধিগণ।

উপস্থিত সদস্যদের প্রাণবন্ত আলোচনায় উঠে আসে রাষ্ট্রের অগণতান্ত্রিক চরিত্র ও সাম্প্রতিক প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন আইনকানুন ও চুক্তির মাধ্যমে সেই অগণতান্ত্রিক চেতনার নগ্ন বহির্প্রকাশের স্বরূপ। আর সেই সাথে নিজেদের মধ্যকার মতভিন্নতা সত্ত্বেও কিছু ইস্যুতে যৌথ আন্দোলন গড়ে তোলার তাগিদের কথাটি সকল বক্তার মুখেই উচ্চারিত হয়। এ লক্ষ্যে উক্ত সভায় একটি কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়। সর্বসম্মতিক্রমে ‌গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটি নামটি গ্রহণ করা হয়।

সভায় বারোটি সংগঠন (শ্রমজীবী সংঘ, জাগরণের পাঠশালা, মঙ্গলধ্বনি, মৌলিক বাংলা, প্রপদ, নির্বাণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, দাবানল, সংস্কৃতির নয়া সেতু, জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ, জাতীয় যুব পরিষদ, কমিউনিস্ট ইউনিয়ন এবং গণসংস্কৃতি পরিষদ) ও প্রগতিশীল ব্যক্তিবর্গের অংশগ্রহণে গঠিত গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটির গঠন প্রক্রিয়া ও কিছু আসন্ন কার্যক্রমের বিষয়েও আলোচনা করা হয়।

সিদ্ধান্ত সমূহ

১। গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটি একটি সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী গণতান্ত্রিক প্লাটফরম। এখানে সমমনা যেকোন সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গ যুক্ত হতে পারবেন। কোন সংগঠন সাংগঠনিকভাবে যুক্ত না হলেও সেই সংগঠনের সাথে যুক্ত কর্মীসদস্যরা ব্যক্তি পর্যায়ে এই আন্দোলনে যুক্ত হতে পারবেন।

২। গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটির কর্মকাণ্ড সমন্বয় করবে সংগঠনের প্রতিনিধি ও ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে গঠিত সমন্বয় কমিটি। নতুন কোন সংগঠন/ব্যক্তি ঐক্যবদ্ধ হলে তাদের কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করে নেয়া হবে। সমন্বয় কমিটির সমন্বয়ক হবেন কোন ব্যক্তি অথবা কোন সংগঠন। উক্ত সমন্বয় কমিটি ৩ মাস অন্তর অন্তর পরিবর্তিত হবে।

৩। আরো কয়েকটি সংগঠন ও ব্যক্তি ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রক্রিয়ায় থাকায় এবং সমন্বয়কারী নির্ধারণে তাঁদের মতামত যাতে গ্রহণ করা যায়একারণে এখনই সমন্বয়কারী নিধার্রণ করা হয়নি। অস্থায়ীভাবে জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করবে।

৪। ইস্যুভিত্তিক আন্দোলনে নিজেদের মধ্যকার আলোচনার ভিত্তিতে একই ইস্যুতে আন্দোলনরত অন্য কোন সংগঠন বা জোটের সাথে যুগপত আন্দোলনও করা যেতে পারে।

৫। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ক্ষমতাসীন সরকার দ্বিপাক্ষিক সন্ত্রাস বিরোধী স্মারক ও টিকফা চুক্তি স্বাক্ষর করতে যাচ্ছে। এই গণবিরোধী চুক্তি ও স্মারকের বিরুদ্ধে কর্মসূচী গ্রহণের বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

৬। পরবর্তীতে সন্ত্রাস দমন আইন ও তথ্য প্রযুক্তি আইনের মতো গণবিরোধী আইনকানুনের বিরুদ্ধে আন্দোলনসংগ্রামের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

 

সবশেষে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভাপতি সভার আনুষ্ঠানিক ইতি টানেন।।

 

প্রচারে,

গণঅধিকার সংগ্রাম কমিটি

ফোন: ০১৬৮২৭০৩৪৫২

ইমেইল: sangramcommittee@gmail.com

ফেসবুক পেইজ: https://www.facebook.com/gana.adhikar.sangram.committee

ফেসবুক গ্রুপ: https://www.facebook.com/groups/505122109580533/

Advertisements

মতামত জানান...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s