প্রেস বিজ্ঞপ্তি

গণজাগরণ মঞ্চের মূল নেতৃবৃন্দের আপোষকামীতার কারণে আন্তরিক আন্দোলনকারীদের মধ্যে যে হতাশা সৃষ্টি হয়েছেতারই প্রকাশ ঘটেছে শহীদ রুমী স্কোয়াডের আমরণ অনশন কর্মসূচিতে। এ মূল নেতৃবৃন্দ শুরু থেকেই আওয়ামী লীগের গা বাঁচিয়ে, তাদের ছত্রছায়ায় গণজাগরণ মঞ্চ থেকে আন্দোলনের খেলা পরিচালনা করছে। তারা জনগণের আশাআকাঙ্খার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। এ সত্য এখন পুরোপুরি উন্মোচিত হয়ে পড়েছে। সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও রুমী স্কোয়াডের এ কর্মসূচি আপোষকামী নেতৃত্বের কব্জা থেকে আন্তরিক আন্দোলনকারীদের বেরিয়ে আসার প্রবণতা হিসাবে গণ্য করা যেতে পারে।

শহীদ রুমী স্কোয়াডের অবস্থানে এখনও গুরুতর দুর্বলতা রয়ে গেছে। তারা এখনও এ কর্মসূচিকে গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলনের সম্পূরক কর্মসূচি হিসাবে প্রচার করছে। হয়তবা কৌশলগত কারণে। একইভাবে গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম কর্মসূচি জামাত নিষিদ্ধের দাবীই স্কোয়াডের প্রধান দাবী। তারা প্রেসিডেন্সিয়াল অর্ডারে জামাত নিষিদ্ধের দাবী তুলছে। এ দাবীর সীমাবদ্ধতা হচ্ছে, এধরণের অর্ডার যে কোন সময় প্রত্যাহার করা কঠিন কিছু নয়। প্রেসিডেন্সিয়াল এ অর্ডার প্রকৃতপক্ষে একটি নিবর্তনমূলক আইন। তাই একে সমর্থন করা যায় না। ‘ইসলামী জঙ্গী’ দমনের জন্য ইতিমধ্যে শাহরিয়ার কবীর মার্কিনীদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। সুতরাং জামাত ইস্যুকে কেন্দ্র করে ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অনন্ত যুদ্ধের’ ছকের আওতায় সন্ত্রাস দমন আইন, প্রেসিডেন্সিয়াল অর্ডার ইত্যাদির প্রয়োগ গণতান্ত্রিক দাবী হতে পারে না। বরং জামাত ইসলামীর বিচার ও শাস্তি হওয়া প্রয়োজন যুদ্ধাপরাধের সাথে যুক্ত সংগঠন হিসাবে। অপরদিকে রাষ্ট্র থেকে ধর্মকে বিযুক্ত করে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের গণতান্ত্রিক দাবীর আওতাতেই জামাতসহ ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ হওয়া প্রয়োজন। উচ্চ আদালতের রায়ে চতুর্থ সংশোধনী বাতিল হওয়ার কারণে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি সাংবিধানিকভাবে নিষিদ্ধ হয়ে পড়ে। কিন্তু বর্তমান হাসিনা সরকারই পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে এ ধর্মভিত্তিক রাজনীতির সুযোগ পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেছে। শুধু তাই নয়, এ সংশোধনীর মাধ্যমে জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের গণতান্ত্রিক অধিকার অস্বিকৃত হয়েছে। এ সংশোধনীর ফলে বর্তমান সংবিধান ও রাষ্ট্র অধিকতর ফ্যাসিস্ট ও অগণতান্ত্রিক হয়ে উঠেছে। আমরা শহীদ রুমী স্কোয়াডকে আহ্বান জানাই জামাত ইসলামীকেকে যুদ্ধাপরাধের দায়ে বিচারের সম্মূখীন করা এবং পঞ্চদশ সংশোধনী বাতিল করে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করার দাবীকে সামনে আনুন।

আমরা মনে করি, গণজাগরণ মঞ্চের মূল নেতৃত্বের দাবী ও ধারণার উপর ভিত্তি করে, সম্পূরক শক্তি হিসাবে থাকলে তা আওয়ামী রাজনীতির আনুগত্য থেকে বেরিয়ে জনগণের আকাঙ্খাকে ধারণ করতে সফল হবে না। রুমী স্কোয়াডকে সাহসের সাথে এ থেকে পরিপূর্ণ বিচ্ছেদ ঘটাতে হবে। আমরা আশা করি, শহীদ রুমী স্কোয়াড যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবীতে অনড় থেকে সরকার কর্তৃক এর রাজনৈতিক অপব্যবহার বন্ধের দাবীতে সোচ্চার হবে। সরকারের ঘেরাটোপে থেকে নয়, জামাতের সাথে আঁতাতকারী, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল ও দমনপীড়ন চালাবার হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহারকারী ফ্যাসিস্ট সরকারকে টার্গেট করেই আন্দোলন পরিচালনা করতে হবে।

আসুন, আমরা রাষ্ট্রীয় ও ধর্মীয় ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করি, প্রতিরোধ গড়ে তুলি।

.

কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটি,

ছাত্র গণমঞ্চ।

অস্থায়ী যোগাযোগ: মধুর কেন্টিন, ঢাবি।

মোবাইল: ০১১৯৫২০০২১০

Advertisements

মতামত জানান...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.