ভারতে ২ লাখ কৃষকের আত্মহত্যার করুণ ঘটনাবলি নিয়ে নির্মিত ডকুমেন্টরি-‘নিরোর অতিথিরা’!!!

Posted: অক্টোবর 19, 2011 in সাহিত্য-সংস্কৃতি
ট্যাগসমূহ:, , , ,

লিখেছেন: মনজুরুল হক

গত ৩ মার্চ ভারতের ব্যাঙ্গালোর এর আই আই সায়েন্স সিটিতে প্রথম প্রদর্শনী হয়ে গেল বিখ্যাত তথ্যচিত্র ‘নিরোর অতিথিরা’র। ছবিটির অফিসিয়াল ট্রায়ালকে বাধাগ্রস্ত করতে কর্ণাটকের সরকার কম চেষ্টা করেনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ছবিটি মুক্তি পেয়েছে এবং সাধারণ মানুষ জানতে পেরেছে গত এক দশক ধরে ভারতের কৃষকদের সঙ্গে কি আচরণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার এবং ভারতের বিখ্যাত সব মিডিয়া টাইকুনেরা! এই ছবিটির নামকরণেও বিশেষ বৈশিষ্ট আছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যখন শত শত চাষী আত্মহত্যা করছে, তখন সরকারের এবং মিডিয়ার ধারণায় সে সব কেবলই ‘নিরোর বাঁশী’র সুর! আর সেই ব্যঙ্গশ্লেশকে অবলম্বন করেই ছবিটির নাম হয়েছে ‘নিরোর অতিথিরা’ বা “Niro’s Guests”

ছবিটির বিষয় বস্তু ভারতের প্রায় দুই লাখ কৃষক, যারা গত দশ বছরে আত্মহত্যা করেছে। কেন আত্মহত্যা করেছে? কারণ তারা তাদের মাথার ঘাম পায়ে ফেলে, কষ্টার্জিত ধারের টাকা লগ্নি করে যে ফসল উৎপাদন করে তার বাজার মূল্য পায় না। ধার করা টাকা শোধ দিতে না পেরে শেষ পর্যন্ত তারা আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। এভাবে গত দশ বছরে ভারতে প্রায় দুই লাখ কৃষকের মৃত্যু হয়েছে! চকচকে ঝকঝকে শত শত চ্যানেলে এই খবর আসেনি। তেমনভাবে আসেনি কোনো প্রিন্ট মিডিয়াতেও। ঠিক সেই সময় ‘দ্য হিন্দু’ সংবাদপত্রের মফস্বল বিষয়ক সম্পাদক পি সাঁইনাথ একেবারে প্রান্তিক চাষীদের ভেতরে গিয়ে খবর সংগ্রহ করে তা ছাপিয়ে বিভিন্ন রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে চাপ দিতে থাকেন। তার পরও সরকার তার সেই রিপোর্টকে আমলে আনেনি। এতে করেও পি সাঁইনাথ হতদ্যোম হয়ে পড়েননি। তিনি একের পর রিপোর্ট লিখে গেছেন, আর সেই সব রিপোর্টের শেষে তিনি একটি বার্তা সমাজকে জানাতে থেকেছেন, আর তা হলো-‘আমরা ভারতকে এই রূপে দেখতে চাই না।’

পি সাঁইনাথ

পি সাঁইনাথ শুধু ‘দ্য হিন্দু’র মফস্বল বিষয়ক সম্পাদকই নন। তিনি ২০০৭ সালে এশিয়ার সবচেয়ে সন্মানজনক ‘রামন ম্যাগসেসাই’ পুরষ্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক। যে পুরষ্কারকে ‘এশিয়ার নোবেল’ বলা হয়। তিনি একই সাথে সাহিত্য, সৃষ্টিশীল সামাজিক দায় দায়িত্ব এবং তথ্য প্রবাহ বিষয়েও খ্যাতিমান। এ যাবত ৩৫ বার বিশ্বস্তরের পুরষ্কার জিতেছেন। তার সর্বশেষ কাজ

“the agrarian crisis has produced the largest journalistic body of work ever on the Indian countryside in terms of the problems faced by farming communities. It is also a body of work that goes far beyond the realm of journalism, capturing issues and complexities that academia and policy makers have failed.”

দীপা ভাটিয়া

ছবিটি পরিচালনা করেছেন দীপা ভাটিয়া। যিনি বিখ্যাত চিত্র পরিচালক গোবিন্দ নিহালিনীর সাথে সহকারি হিসেবে দীর্ঘ দিন কাজ করেছেন। (দেব, হাজার চুরাশির মা, দিহাম প্রভৃতি বিখ্যাত ছবির সাথে জড়িত ছিলেন দীপা ভাটিয়া)। এর আগে বাণিজ্যিক ছবি করলেও দীপার এটা প্রথম তথ্য চিত্র। আর এই একটি ছবি কেন্দ্র করেই দীপা এখন আলোচিত। ‘নিরোর অতিথিরা’ তাকে বাণিজ্যিক ছবির আবহ থেকে এক ঝটকায় গণ মানুষের কাতারে সামিল করে দিয়েছে।

এদের দুজনকেই বাংলাদেশের গণমানুষের পক্ষ থেকে স্যালুট! আমাদের দেশে সারের দাবিতে শত শত কৃষকের মৃত্যু হলেও সেই সংবাদও আমাদের মিডিয়ায় আলোচিত হয় না। সেই সব বিভৎস মৃত্যু নিয়ে কেউ ডকুমেন্টারি বানানোর সাহস করেন না। তার বদলে আমাদের মিডিয়ায় মিডিয়া রুলস ভঙ্গ করে পুলিশের হাতে, র‍্যাবের হাতে নিহত হতভাগাদের ভাঙ্গাচোরা ছবির প্রদর্শনী চলে! আর চলে কৃষকে নিয়ে নির্লজ্জ বাণিজ্যিকীকরণের লাম্পট্য! কৃষকে দিয়ে কাবাডি খেলানো হয়, তাদের নিয়ে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের মচ্ছব করা হয়। এবং অতি অবশ্যই কৃষকই বাংলার প্রাণ“, “কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবেমার্কা স্লোগান নষ্টামি!

তথ্যসুত্র: মুম্বই মিরর ডট কম

Advertisements

মতামত জানান...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s